চ্যানেল আই অনলাইন
হৃদয়ে বাংলাদেশ প্রবাসেও বাংলাদেশ

এখনই সময় চুল কাটার

চুলের স্টাইলে পরিবর্তন এলেই যেন বদলে যায় চেহারার একঘেয়ে ভাব। তাই ঈদের আগে সবাই চায় চুলগুলোকে স্টাইলিশ একটা লুক দিতে। কিন্তু চুল এবং চেহারার আদল না বুঝে ঝোঁকের বশে হেয়ার কাট দিলে, ঈদটাই মাটি হয়ে যেতে পারে।

বিজ্ঞাপন

হেয়ার কাট দেওয়ার পর চুলটা সেট হতেও পাঁচ-ছয়দিন সময় লাগে। তাই এখনই চুল কাটার উপযুক্ত সময়। জেনে নিন মুখের ধরণ বুঝে যুগের সাথে তাল মিলিয়ে কেমন হেয়ার কাট দেয়া যায় সেই ব্যাপারে কিছু পরামর্শ।

ভলিউম লেয়ার: বড় মুখে বেশ মানানসই এই কাট। ঘন, স্ট্রেইট ও বড় চুলে বেশ ভালো দেখায়। এই স্টাইলে লেয়ার শুরু হয় কানের দুই পাশ থেকে এবং সামনের ও পেছনের চুল সমান ভাগ করে লেয়ার কাটা হয়।

ফরোয়ার্ড গ্রাজুয়েশন লেয়ার: ঢেউ খেলানো চুল এবং স্ট্রেইট চুলের জন্য এই কাট উপযোগী। নিচ থেকে চুলের আগা পর্যন্ত সামনের দিকে লেয়ার করে কাটা হয় এ স্টাইলে। তবে যাদের গলা ছোট ও উচ্চতা কম তারা এই স্টাইলটি করবেন না। গোল মুখ এবং লম্বা চুলের জন্য এ কাটটি মানানসই।

বিজ্ঞাপন

ইমো: যাদের মুখের গড়ন পাতলা ও ছোট, এই কাট তাদের জন্য। মূলত টিনএজারদের মাঝে খুব জনপ্রিয়। স্ট্রেইট চুলে বেশ মানানসই। ইমো কাটের সাথে চুলে হাইলাইট করিয়ে নিয়ে আরও বেশি ভালো দেখায়।

স্লাইস: যে কোনো মুখের গড়নের সঙ্গে মানিয়ে যায় এই হেয়ার কাট। চুলের লেন্থ বুঝে শর্ট, লং ও মিডিয়াম লেয়ার করতে পারেন। যত বেশি লেয়ার হবে, তত সুন্দর দেখাবে। অল্প কোঁকড়া বা রুক্ষ চুলেও স্লাইস লেয়ার করা যায়।

লেয়ার শ্যাগ: গোলাকার, লম্বাটে বা ডিম্বাকার মুখের গড়নে এবং ভালো মানায় এই হেয়ার কাট। । ষাটের দশকে খুব জনপ্রিয় ছিল এই হেয়ার স্টাইলটি। শ্যাগে অনেক লেয়ার করে কাটা হচ্ছে চুল। এতে চুলের ভলিউম বেশি দেখায়। এ স্টাইলে চুল কমপক্ষে কাঁধ পর্যন্ত কিংবা এর থেকে বেশিও রাখা যায়।

চিক কাট: স্ট্রেইট চুল এবং চৌকোনা মুখে বেশ মানায় এই কাটটি

পিক্সি: যাদের মুখ গোলাকার এ ধরনের মুখের জন্য ছোট চুলের স্টাইল মানানসই। চুলের লেন্থ গলা পর্যন্তই থাকে। তবে কানের দুই পাশে খানিকটা বাড়তি চুল রেখে দেওয়া হয়, যাতে কান ঢাকা থাকে।