চ্যানেল আই অনলাইন
হৃদয়ে বাংলাদেশ প্রবাসেও বাংলাদেশ

৯ শতাংশ সুদে ঋণ না দিলে সরকারি আমানত পাবে না ব্যাংক

যেসব ব্যাংক গ্রাহকদের ৯ শতাংশ সুদে ঋণ দেবে না, এমনকি যারা ইতোমধ্যে ৯ শতাংশে ঋণের সুদহার নামিয়ে আনতে ব্যর্থ হয়েছে, সেসব ব্যাংক আমানত হিসেবে সরকারি তহবিলের অর্থ পাবে না।

বৃহস্পতিবার বাংলাদেশ ব্যাংক দেশের সব বাণিজ্যিক ব্যাংকের প্রধান নির্বাহীর কাছে এ সংক্রান্ত একটি নির্দেশনা পাঠিয়েছে।

এর আগে গত ২০ মে অর্থ মন্ত্রণালয়ের আর্থিক প্রতিষ্ঠান বিভাগ এ সংক্রান্ত প্রজ্ঞাপন জারি করে।

অর্থ মন্ত্রণালয়ের আর্থিক প্রতিষ্ঠান বিভাগের উপসচিব জেহাদ উদ্দিন স্বাক্ষরিত প্রজ্ঞাপনে বলা হয়েছে, স্বায়ত্তশাসিত ও আধা-স্বায়ত্তশাসিত সংস্থার প্রকল্প বাস্তবায়নের জন্য বার্ষিক উন্নয়ন কর্মসূচির (এডিপি) আওতায় সরকার থেকে প্রাপ্ত তহবিল, সরকারি, আধাসরকারি প্রতিষ্ঠান, স্বায়ত্তশাসিত ও আধাস্বায়ত্তশাসিত সংস্থার মোট নিজস্ব তহবিলের অর্থ ব্যাংক বা আর্থিক প্রতিষ্ঠানে সর্বোচ্চ ৬ শতাংশ হারে আমানত রাখা যাবে।

নির্দেশনায় আরও বলা হয়, যেসব ব্যাংক ২০১৮ সালের ২ আগস্ট প্রতিশ্রুতি অনুযায়ী ঋণের সুদহার ৯ শতাংশে নামিয়ে আনতে ব্যর্থ হয়েছে, তারা এ সুবিধা প্রাপ্য হবে না।

জানা গেছে, সুদের হার কমিয়ে আনতে ব্যাংকগুলো সরকারি আমানতের ৫০ শতাংশ বেসরকারি ব্যাংকে রাখা, সিআরআর এক শতাংশ কমানো, ঋণ আমানতের হার (এডিআর) সমন্বয়সীমার সময় বাড়ানো এবং রেপো রেট ৬ দশমিক ৭৫ শতাংশ থেকে ৬ শতাংশ করাসহ বেশ কয়েকটি সুবিধা নিয়েছে সরকারের কাছ থেকে। কিন্তু তারা সুদ হার কমায়নি।

ব্যাংকের প্রধান নির্বাহীরা বলছেন, ৬ শতাংশ সুদে আমানত পেলে এক অঙ্কে তথা ৯ শতাংশ সুদে ঋণ বিতরণ করতে পারবেন তারা।

এর আগে ২০১৮ সালের ১ আগস্ট জারি করা অর্থ মন্ত্রণালয়ের প্রজ্ঞাপন অনুযায়ী, ব্যাংকবহির্ভূত আর্থিক প্রতিষ্ঠানও (এনবিএফআই) বার্ষিক উন্নয়ন কর্মসূচির (এডিপি) তহবিলের অর্থ নিতে পারবে। ব্যাংকবহির্ভূত এই আর্থিক প্রতিষ্ঠানে সরকারি ও স্বায়ত্তশাসিত প্রতিষ্ঠান তাদের তহবিলের সর্বোচ্চ ৫০ শতাংশ আমানত হিসেবে জমা রাখতে পারবে। তবে সব এনবিএফআই সরকারি ও স্বায়ত্তশাসিত প্রতিষ্ঠানের অর্থ পাবে না। মাত্র ১৪টি প্রতিষ্ঠানে এসব আমানত রাখা যাবে। বর্তমানে দেশে ৩৪টি এনবিএফআই রয়েছে।

অর্থ মন্ত্রণালয়ের সিদ্ধান্ত অনুযায়ী, সরকারি প্রতিষ্ঠানগুলো ব্যাংকে রাখা মেয়াদি আমানতের ক্ষেত্রে ৬ শতাংশের বেশি সুদ নিতে পারবে না