চ্যানেল আই অনলাইন
হৃদয়ে বাংলাদেশ প্রবাসেও বাংলাদেশ

হিজবুল্লাহকে ‘সন্ত্রাসী দল’ ঘোষণা করলো যুক্তরাজ্য

লেবাননভিক্তিক সংগঠন সশস্ত্র গোষ্ঠী হিজবুল্লাহর রাজনৈতিক শাখাকেও সন্ত্রাসী সংগঠন হিসেবে ঘোষণা করেছে যুক্তরাজ্য সরকার। ইরান ও তার মিত্র দেশগুলোকে একঘরে করতে যুক্তরাষ্ট্রের প্রচেষ্টার মধ্যেই এমন সিদ্ধান্ত নিলো ব্রিটিশ সরকার।

যুক্তরাজ্য এর আগে লেবানিজ শিয়া দল এবং রাজনৈতিক শাখাগুলোর মধ্যে পার্থক্য তুলে ধরে। সেখানে লেবাননের সংসদে থাকা ১৩ মন্ত্রীর কথাও উল্লেখ করা হয়েছিলো।

এ নিয়ে সদ্য প্রকাশিত এক প্রতিবেদনের পরিপ্রেক্ষিতে মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প তেহরানকে চাপে রাখতে বলেছেন, এখন পুরো দলটিকেই সন্ত্রাসী দল হিসেবে অ্যাখ্যায়িত করা হয়েছে।

যুক্তরাজ্যের হোম সেক্রেটারি সাজিদ জাভিদ বলেন, মধ্যপ্রাচ্যে ভঙ্গুর অবস্থা বজায় রাখতে প্রচেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছে হিজবুল্লাহ। আর আমরা তাদের নিষিদ্ধ হওয়া সন্ত্রাসী সংগঠন এবং রাজনৈতিক দলের মধ্যে পার্থক্য করতে পারবো না। এসবের পরিপ্রেক্ষিতে আমরা দলটিকে পুরোপুরি নির্বাসিত করছি।

১৯৮০ সালের দিকে ইরানের সমর্থনে হিজবুল্লাহ প্রতিষ্ঠিত হয়। শুরুর দিকে সাউদার্ন লেবাননে ইসরায়েলি দখলের বিরুদ্ধে লড়াই করে দলটি। ১৯৭৫-১৯৯০ সালে লেবাননে ভয়াবহ গৃহযুদ্ধের পরে হিজবুল্লাহই একমাত্র সন্ত্রাসী দল ছিলো যারা পুরোপুরি নিরস্ত্র ছিলো না। তারা নিজেদের অস্ত্রকে আরো একটি ইসরায়েলি হস্তক্ষেপের প্রতিরোধক হিসেবেও উল্লেখ করে।

বর্তমানে হিজবুল্লাহ লেবাননের একটি শক্তিশালী সশন্ত্র দল। এমনকি তারা দেশটির সেনাদেরও নিয়ন্ত্রণ করে। এমনকি দেশটির সরকারি নীতি নির্ধারণকেও বেশ প্রভাবিত করে দলটি।

সাম্প্রতিক বছরে, সিরিয়ার গৃহযুদ্ধেও বেশ প্রভাব বিস্তার করেছে দলটি। পশ্চিমের নীতি নির্ধারকেরা হিজবুল্লাহর বেড়ে চলা ভয়াবহ শক্তির প্রভাব দেখেছেন।

এসবের ভিত্তিতে তো বটেই সাম্প্রতিক যুক্তরাজ্যের এই সিদ্ধান্ত নেওয়া হলো লেবানন সরকারে দলটির ভয়াবহ প্রভাবের বিষয় উপলব্ধি করেই।