চ্যানেল আই অনলাইন
হৃদয়ে বাংলাদেশ প্রবাসেও বাংলাদেশ

হাথুরুসিংহেরও কষ্ট আছে

হাথুরুসিংহে হতাশ কিংবা কোনো কারণে কষ্ট পাচ্ছেন- এমন কথা বাংলাদেশের মানুষ শুনেছেন বলে মনে পড়ে না। নিখাদ পেশাদার এক কোচ তিনি। সফলতা আর ব্যর্থতা যার কাছে সমান অর্থ বহন করে। সেই হাথুরুসিংহেরও কষ্ট আছে। বাংলাদেশের কোচ হিসেবে জন্মভূমি শ্রীলঙ্কায় পা রেখে নিজ মুখে বলেছেন সেই কষ্টের কথা।

বিজ্ঞাপন

‘কয়েক বছর আগে কী ঘটেছিল তা এখন আর মনে করতে চাই না’ -সংবাদ সম্মেলনে হাথুরুর মুখ থেকে এই কথা শোনার পর লঙ্কান সাংবাদিকরা নড়েচড়ে বসেন। হাথুরু স্মরণ করেন সাঙ্গাকারাদের আমলের কথা। যখন তিনি নিজ দেশের সহকারী কোচ ছিলেন, ‘ছয় বছর আগের ঘটনা নিয়ে আমার কোনো অনুতাপ নেই। তবে আমি হতাশ। কষ্ট হয় তখন, যখন দেখি আমার দেশকে সাহায্য করতে পারছি না। কিন্তু নিজের বর্তমান কাজ নিয়ে আমি খুশি।’

হাথুরুর কথায় বোঝা যায় নিজের ইচ্ছায় সেবার শ্রীলঙ্কার কোচিং স্টাফের দায়িত্ব থেকে সরে দাঁড়াননি তিনি। তবে ঠিক কী কারণে দায়িত্ব ছাড়েন তা কখনো খোলাসা করে বলেননি।

শ্রীলঙ্কায় দুটি টেস্ট, তিনটি ওয়ানডে ও দুটি টি-টুয়েন্টি খেলবে বাংলাদেশ। সফর শুরু হচ্ছে টেস্ট সিরিজ দিয়ে। ৭ মার্চ গলে শুরু হবে প্রথম টেস্ট। দ্বিতীয়টি ১৫ মার্চ, কলম্বোয়।

বিজ্ঞাপন

হাথুরুসিংহে তিন বছর আগে বাংলাদেশের দায়িত্ব নেন। ওই সময় তার সঙ্গে দুই বছরের চুক্তি হয়। পরে ২০১৯ সালের বিশ্বকাপ পর্যন্ত মেয়াদ বাড়ানো হয়।

হাথুরুর অধীনে বাংলাদেশ নতুন যুগের দেখা পেয়েছে। ওয়ানডে বিশ্বকাপে ভালো করার পর নিজেদের কন্ডিশনে একের পর ম্যাচ জিতে ক্রিকেটবিশ্বে নিজের স্থান পাকা করেছে।

কিন্তু সম্প্রতি বিদেশের মাটিতে কয়েকটি হার দেখতে হয়েছে লাল-সবুজের দলকে। ম্যাচগুলো হারলেও উন্নতির ছোঁয়া ছিল স্পষ্ট। হাথুরু বলছেন শ্রীলঙ্কা সফর তার দলের জন্য একটি সুযোগ, ‘ক্রিকেট বিশ্বকে আরেকবার দেখানোর সুযোগ থাকছে আমাদের সামনে। আমরা কতটা উন্নতি করেছি এই সফর দিয়ে সেটা প্রমাণ করতে হবে।’

‘অন্য দেশের তুলনায় শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে আমরা বেশি টেস্ট খেলেছি। আমি যখন শ্রীলঙ্কার হয়ে খেলতাম তখন আমাদের বাংলাদেশের মতো অবস্থা ছিল।’ বলেন হাথুরু।

হাথুরু বিশ্বাস করেন শ্রীলঙ্কার এই দলটিকে হারাতে পারে বাংলাদেশ, ‘ওদের বেশ কয়েকজন সিনিয়র ক্রিকেটার অবসর নিয়েছে। দলটি সেই অর্থে নবীন। আমাদের সামনে সুযোগ আছে তাদের হারানোর।’