চ্যানেল আই অনলাইন
হৃদয়ে বাংলাদেশ প্রবাসেও বাংলাদেশ

সৌদি যুবরাজের নির্দেশে খাশোগিকে হত্যা: তুরস্কের দৈনিক

সৌদি যুবরাজ মুহাম্মাদ বিন সালমানের নির্দেশেই সাংবাদিক জামাল খাশোগিকে হত্যা করা হয়েছে বলে দাবি করেছে তুরস্কের সরকার সমর্থিত দৈনিক ইয়েনি শাফাক।

বিজ্ঞাপন

দৈনিকটির এক প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, সৌদি রাজতন্ত্রবিরোধী সাংবাদিক জামাল খাশোগি নিহত হওয়ার আগে সৌদি যুবরাজ মুহাম্মাদ বিন সালমান তাকে টেলিফোন করে রিয়াদে ফিরে যেতে রাজি করানোর চেষ্টা করেন। তবে গ্রেপ্তার ও হত্যার ভয়ে খাশোগি যুবরাজের প্রস্তাব প্রত্যাখ্যান করেন। এর কিছুক্ষণ পরেই তাকে হত্যা করা হয়।

ঘটনার পর থেকে দায় অস্বীকার করে আসার পর সোমবার সাংবাদিক জামাল খাশোগি হত্যার ঘটনাকে অনিচ্ছাকৃত বড় ভুল বলে মন্তব্য করেন সৌদি পররাষ্ট্রমন্ত্রী আদেল আল জুবাইর।

এ বিষয়ে যুবরাজ মোহাম্মদ বিন সালমান কিছুই জানতেন না বলেও দাবি করেন তিনি।

ওই ঘটনার বিভিন্নভাবে তদন্ত শুরু করেছে তুরস্ক। আঙ্কারা বলছে, পরিকল্পিতভাবেই জামাল খাশোগিকে হত্যার পর তার মরদেহ টুকরো টুকরো করা হয়।

তুরস্কের প্রেসিডেন্ট রিসেপ তাইয়েপ এরদোগানের মুখপাত্র জানিয়েছেন, তদন্তের মাধ্যমেই শিগগিরই হত্যাকাণ্ডের প্রকৃত তথ্য উদঘাটন করে সত্য প্রকাশ করা হবে বলে জানিয়েছেন তুর্কি প্রেসিডেন্ট।

বিজ্ঞাপন

খাশোগি হত্যাকাণ্ডে সৌদি ব্যাখ্যায় আবারও অসন্তোষ প্রকাশ করেছেন মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প।

জামাল খাশোগি চক্রান্তের শিকার ছিলেন বলে মার্কিন গণমাধ্যম ইউএসএ টুডে’তে এক সাক্ষাৎকারে জানিয়েছেন মার্কিন প্রেসিডেন্ট।

হত্যার তদন্তে তুরস্কে সফরে যাচ্ছেন সিআইএ প্রধাস জিনা হ্যাসপেল।

গত ২ অক্টোবর তুরস্কের ইস্তাম্বুলে সৌদি কনস্যুলেটে প্রয়োজনীয় কাগজপত্র নিতে গিয়ে নিখোঁজ হন জামাল খাশোগি।

পরে সৌদি সরকার স্বীকার করে, কনস্যুলেটের ভেতরে ‘ধস্তাধস্তিতে’ খাশোগি নিহত হন।

কিন্তু এই ব্যাখ্যায় সত্য নয় বলে দাবি করে তুরস্ক। দেশটি খাশোগি হত্যাকাণ্ডের প্রকৃত সত্য ও বিস্তারিত সৌদি সরকারকে প্রকাশ করতে হবে বলে হুঁশিয়ারি দেয়।

এ ব্যাপারে কোনো ধামাচাপা যুক্তি গ্রহণ করা হবে না বলেও জানিয়েছে তারা। এমনকি সৌদি যদি এ বিষয়ে সত্য প্রকাশ না করে তাহলে তুরস্ক বিস্তারিত প্রকাশ করবে বলেও হুঁশিয়ারি দেয়।