চ্যানেল আই অনলাইন
হৃদয়ে বাংলাদেশ প্রবাসেও বাংলাদেশ

সৌদি আরবের প্রথম নারী রাষ্ট্রদূত রিমা বিনতে বান্দার

প্রথম বারের মতো কোনো নারীকে রাষ্ট্রদূত পদে নিয়োগ দিয়েছে রক্ষণশীল মুসলিম দেশ সৌদি আরব। তার নাম রিমা বিনতে বান্দার আল সৌদ। তিনি দেশটির রাজপরিবারের সদস্য। তাকে যুক্তরাষ্ট্রে দায়িত্ব দিয়ে পাঠানো হচ্ছে । 

বিজ্ঞাপন

ইস্তাম্বুলে সৌদি কনস্যুলেটে রাজতন্ত্রের সমালোচক সাংবাদিক জামাল খাশোগি হত্যার পর ওয়াশিংটনের সঙ্গে রিয়াদের সম্পর্কের অবনতিতে মার্কিন প্রশাসনকে সামলানোর জন্য প্রিন্সেস রিমাকে গুরুত্বপূর্ণ এ পদে নিয়োগ দেওয়া হয়েছে বলে ধারণা করা হচ্ছে।

যুক্তরাষ্ট্রে এতোদিন ধরে দায়িত্ব সামলাচ্ছিলেন সৌদি আরবের প্রভাবশালী ক্রাউন প্রিন্স বা রাজত্বের প্রথম উত্তরাধীকারী মোহাম্মদ বিন সালমানের আপন ছোট ভাই প্রিন্স খালিদ বিন সালমান।

বিজ্ঞাপন

তিনি সৌদি আরবের উপ-প্রতিরক্ষামন্ত্রীর দায়িত্বও পালন করছিলেন। তবে জামাল খাশোগি হত্যায় মার্কিন কংগ্রেস মোহাম্মদ বিন সালমানের দিকে আঙুল তুললে বেকায়দায় পড়ে যান তার ভাই খালিদ। তাই সেখান থেকে খালিদকে ফিরিয়ে দায়িত্ব দেওয়া হচ্ছে প্রিন্সেস রিমাকে।

রিয়াদে জন্ম নেওয়া প্রিন্সেস রিমা পড়াশোনার সুবাদে যুক্তরাষ্ট্রে বহুবছর কাটিয়েছেন। তার বাবা বান্দার বিন সুলতান আল সৌদ ১৯৮৩ থেকে ২০০৫ সাল পর্যন্ত যুক্তরাষ্ট্রে সৌদি আরবের রাষ্ট্রদূত হিসেবে দায়িত্ব পালন করেন।

আর রিমার বাবা বান্দার ছিলেন ১৯৩২ থেকে ১৯৫৩ সাল পর্যন্ত রাজত্ব করা বাদশাহ আবদুল আজিজের নাতি।

রিমা জর্জ ওয়াশিংটন ইউনিভার্সিটি থেকে সংগীতবিদ্যায় স্নাতক ডিগ্রি লাভের পর রিয়াদে ফিরে যান। সৌদি আরবে নারীর ক্ষমতায়ন ও অধিকার প্রতিষ্ঠায় তিনি দীর্ঘদিন ধরে লড়াই করে আসছেন।

এর আগে তিনি সৌদি আরবের সাধারণ ক্রীড়া কর্তৃপক্ষের প্রধান হিসেবে দায়িত্ব পালন করেন। খেলাধুলায় নারীর অংশগ্রহণ বাড়ানোর জন্য তার সচেতনতামূলক কার্যক্রমের ফলে সম্প্রতি বেশ কিছু ক্রীড়া অনুষ্ঠানে মেয়েদের দেখা গেছে।