চ্যানেল আই অনলাইন
হৃদয়ে বাংলাদেশ প্রবাসেও বাংলাদেশ

সেই সেনাদের বীরত্ব

মুক্তিযুদ্ধে সশস্ত্র বাহিনী-১১

মুক্তিযুদ্ধের শুরু থেকেই সেনাবাহিনীর বাঙালি সদস্যরা যুদ্ধে ঝাঁপিয়ে পড়েছিলেন। সেক্টর কমান্ডার ও সিনিয়র সেনা কর্মকর্তারা নেতৃত্ব দেয়ার পাশাপাশি সরাসরি যুদ্ধ করেছেন।

বিজ্ঞাপন

এই সেনাদের মধ্য থেকে শহীদ ও আহতদের তালিকা অনেক দীর্ঘ। তাদের বীরত্ব ছিল প্রবাদের মতো

মুক্তিযুদ্ধে ৩ নম্বর সেক্টরের কমান্ডার এবং এস ফোর্সের প্রধান ছিলেন কে এম সফিউল্লাহ বীরউত্তম। ১৯ মার্চ তার নেতৃত্বেই দ্বিতীয় বেঙ্গল রেজিমেন্ট বিদ্রোহ ঘোষণা করে। পরে তিনটি ব্যাটালিয়ন নিয়ে জয়দেবপুর থেকে ময়মনসিংহ হয়ে সিলেট অঞ্চলে গিয়ে যুদ্ধ শুরু করেন।

প্রথমে সেক্টর, পরে এস ফোর্স গঠন করে ভৈরব থেকে সিলেট পর্যন্ত একটি বড় অংশ মুক্তাঞ্চল হিসেবে গড়ে তোলেন তিনি।

বিজ্ঞাপন

একাত্তরে পাকিস্তান সেনাবাহিনীর ক্যাপ্টেন পদে চট্টগ্রামে ইপিআরের অ্যাডজুট্যান্ট হিসেবে প্রেষণে দায়িত্বপ্রাপ্ত ছিলেন রফিকুল ইসলাম বীরউত্তম। স্বাধীনতার জন্য তিনি বিদ্রোহ করেন এবং মুক্তিযুদ্ধে অংশ নিয়ে নেতৃত্ব দেয়ার পাশাপাশি সরাসরি যুদ্ধে বীরত্বপূর্ণ অবদান রাখেন।

চট্টগ্রামে জেড ফোর্স প্রধান জিয়াউর রহমানের নেতৃত্বে যুদ্ধে অংশ নেন অলি আহমেদ বীরবিক্রম। চট্রগ্রামসহ ১০ জায়গায় সরাসরি যুদ্ধে অংশ নেন তিনি। কুমিল্লা অঞ্চলে বেশ কিছু অপারেশনে সাহসী ভূমিকা রাখেন তখনকার তরুণ সেনা কর্মকর্তা জামিল ডি আহসান বীরপ্রতীক।

এরকম মুক্তিযোদ্ধাদের বীরত্বের কারণেই দ্রুত শত্রুমুক্ত হয় বাংলাদেশ।

বিস্তারিত দেখুন পরাগ আজিমের ভিডিও প্রতিবেদনে: