চ্যানেল আই অনলাইন
হৃদয়ে বাংলাদেশ প্রবাসেও বাংলাদেশ

সেই ছাত্রীকে ‘হয়রানী’ করেননি এসআই রতন

আদাবর থানার এস আই রতন কুমার হালদারের বিরুদ্ধে বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্রীকে হেনস্তা ও হয়রানীর অভিযোগের সত্যতা পায়নি তদন্ত কমিটি।

বিজ্ঞাপন

তবে তদন্তে উঠে এসেছে তার আচরণ ছিলো অপেশাদার। রতনের বিরুদ্ধে আনা অভিযোগের তদন্তে দেওয়া প্রতিবেদনে এমনই মন্তব্য করা হয়েছে।

সম্প্রতি রাজধানীর মোহাম্মদপুরে শিয়া মসজিদের সামনে পুলিশের এসআই রতন কুমার হালদারের বিরুদ্ধে ওই ছাত্রীকে হয়নরানী করে বলে অভিযোগ ওঠে।

বিজ্ঞাপন

ওই ঘটনার পর অভিযুক্ত এ পুলিশ কর্মকর্তার বিরুদ্ধে আদালতে অভিযোগ দায়ের করেন ওই ছাত্রী। 

তাতে বলা হয়, ‘বিশ্ববিদ্যালয় থেকে ক্লাস শেষে বেলা তিনটায় রিকশায় করে ফেরার পথে মোহাম্মদপুরের শিয়া মসজিদের সামনে আদাবর থানার এসআই রতন কুমার হালদার রিকশা থামিয়ে তাকে নামতে বলেন। এ সময় রতনের সঙ্গে দুজন কনস্টেবলও ছিলেন। এরপর তাকে একটি দোকানে ঢুকতে বলেন ওই এসআই। ঢোকার পর এসআই রতন তার (ছাত্রী) কাছে ২০০ ইয়াবা আছে বলে দাবি করেন।’

‘দোকান থেকে সবাইকে বের করে দিয়ে তার ব্যাগে তল্লাশি চালানো হয়। তার জ্যাকেট খুলতে বলা হয় এবং নানা ধরনের কটূক্তি করা হয়। প্রায় এক ঘণ্টা ধরে তাকে হয়রানি করা হয়।’

আদালত ওই অভিযোগ আমলে নিয়ে এই ঘটনার বিচার বিভাগীয় তদন্তের নির্দেশ দেন। একই সঙ্গে আগামী সাত কার্যদিবসের মধ্যে ঢাকার মুখ্য মহানগর হাকিমকে এ বিষয়ে তদন্ত করে প্রতিবেদনও দিতে বলেন।

তদন্তে প্রত্যক্ষদর্শীরা পুলিশকে জানান, বাক-বিতণ্ডা হলেও ওই ছাত্রীকে নিয়ে এসআই রতন কোনো দোকানের ভেতর ঢোকেননি।