চ্যানেল আই অনলাইন
হৃদয়ে বাংলাদেশ প্রবাসেও বাংলাদেশ

সিএনজি-অটোরিকশাই যেন লোকাল বাস

‘গুলিস্তান একজন, গুলিস্তান একজন’ রাজধানীর লোকাল বাসগুলোর চিরচেনা ডাক। পরিবহন শ্রমিকদের ধর্মঘটে সেই লোকাল বাসগুলো না চললেও চলছে সেসব বাসের চিরচেনা হাঁকডাক। তবে মজার ব্যাপার হলো অন্যান্য দিন যেসব অটোরিকশা চালকরা ‘যাবো না’ বলে বসে থাকেন, আজ তারাই চেঁচিয়ে যাত্রী ডাকছেন এভাবে।

গণপরিবহনের সংকট থাকায় তারা যাত্রী পেয়েও যাচ্ছেন প্রায় সঙ্গে সঙ্গে। একটি অটোরিকশায় এমনিতে ৩ জন বসলেও আজ ভেতরে গাদাগাদি করে বসছে অন্তত ৪-৫জন যাত্রী। আর যারা একা গন্তব্যে যেতে সিএনজি অটোরিকশা চাইছেন তাদের গুণতে হচ্ছে দ্বিগুণ ভাড়া।

অটোরিকশা চালকদের কয়েকজন জানান, বেশিরভাগ যাত্রীই কাছের গন্তব্যে যেতে চাইছে। এতো কাছের দূরত্বে মিটারে যাওয়া পোষায় না বলেই এভাবে লোকাল বাসের মতো যাত্রী নেয়া হচ্ছে। তবে বাড়তি ভাড়া নেয়ার অভিযোগ অস্বীকার করেছে তারা।

তাই কাছের গন্তব্যে যেতে অনেকেই রিকশা খুঁজছে। তবে আজ রিকশাওয়ালারাও ইচ্ছা মতো ভাড়া বাড়িয়ে দাম হাকাচ্ছে। ৩-৪ বার ভাড়া নিয়ে তর্ক করে হার মেনেছেন বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্র রাকিবুল আলম। বাধ্য হয়েই দ্বিগুণ ভাড়ায় মগবাজার যাচ্ছেন তিনি।

মহাখালী থেকে নাবিস্কো মোড়, তিব্বত, সাতরাস্তা পর্যন্ত রাস্তার দু’পাশে দাঁড় করিয়ে রাখা হয়েছে দূরপাল্লার বাস। এই অচল বাসগুলোর পাশ কাটাচ্ছে সারি সারি সবুজ-ধূসর সিএনজি অটোরিকশা। ব্যক্তিমালিকানার গাড়ি তো আছেই।
দেশব্যাপী পরিবহন ধর্মঘটের দ্বিতীয় দিনে জনপরিবহনশূন্য রাজধানীর এটিই ছিলো খণ্ডচিত্র।