চ্যানেল আই অনলাইন
হৃদয়ে বাংলাদেশ প্রবাসেও বাংলাদেশ

সাজানো নাটকে উপনির্বাচন স্থগিত: শাফিন আহমেদ

ভোটার তালিকা হালনাগাদ না করা এবং নব গঠিত ১৮টি ওয়ার্ড সমূহের কাউন্সিলরদের মেয়াদ কতদিন হবে সে বিষয়ে আইনে পরিষ্কার উল্লেখ না করার অভিযোগ এনে নির্বাচনের তফসিল ঘোষণাকে ‘এক প্রকার বিস্ময়’ বলেছেন জাতীয়তাবাদী গণতান্ত্রিক আন্দোলন-এনডিএম এর হয়ে উত্তরের মেয়র পদে লড়তে চাওয়া শাফিন আহমেদ। তবু এই নির্বাচনে অংশ নিতে কেন মনোনয়নপত্র সংগ্রহ করেছিলেন তার জবাব নিজেই দিয়েছেন।

বিজ্ঞাপন

তিনি বলেছেন: এরপরও সরকার এবং নির্বাচন কমিশনের উপর পূর্ণ আস্থা রেখে গত ১১ জানুয়ারি মেয়র পদে মনোনয়নপত্র সংগ্রহ করি এবং আজ বুধবার জমা দেওয়ার জন্য তারিখ নির্ধারণ করি।

বুধবার হাইকোর্টের দেয়া উত্তর সিটি কর্পোরেশন নির্বাচন ৩ মাসের জন্য স্থগিতাদেশের পর সংবাদ সম্মেলনে এসব কথা বলেন শাফিন আহমেদ। তার অভিযোগ,সাজানো নাটকের মাধ্যমে উপ-নির্বাচন স্থগিত করা হয়েছে।

সরকারের দিকে অভিযোগের আঙুল তুলে মাইলস ব্যান্ড থেকে তারকাখ্যাতির পর সম্প্রতি রাজনীতি শুরু করা শাফিন বলেন: নির্বাচন কমিশনে আনুষ্ঠানিক চিঠি প্রদানের মাধ্যমে সরকার দলীয় প্রার্থীর বিধি বহির্ভুত আগাম প্রচারণার বিষয়টি তুলে ধরেছিলাম। আওয়ামী লীগের প্রার্থী তার আগাম প্রচারণায় বারবার বলেছিলেন তিনি তার গ্রহণযোগ্যতা যাচাই করছেন। এজন্য আমরা স্পষ্ট বলতে চাই, বর্তমান সরকারের গণতন্ত্র হরণ, অব্যাহত গুমের ঘটনা, দ্রব্যমূল্যের উর্ধ্বগতি, দূর্নীতি এবং সরকার দলীয় সাংসদের বিভিন্ন অপকর্মের ঘটনায় সচেতন ঢাকাবাসী সরকার দলীয় মেয়র প্রার্থী থেকে মুখ ফিরিয়ে নিয়েছে জানতে পেরেই সাজানো নাটকের মাধ্যমে এই উপ-নির্বাচন স্থগিত করা হয়েছে।

বিজ্ঞাপন

সম্প্রতি বিতর্কিত ব্যবসায়ী মুসা বিন শমসেরের ছেলে এবং এইচ এম এরশাদের সাবেক মুখপাত্র ববি হাজ্জাজ জাতীয় গণতান্ত্রিক আন্দোলন-এনডিএম নামের একটি রাজনৈতিক দল গঠন করেন। গত ৩০ অক্টোবর নিবন্ধনের জন্য নির্বাচন কমিশনের কাছে আবেদন করে দলটি। গত ২৬ ডিসেম্বর এক সংবাদ সম্মেলনে দলটির চেয়ারম্যান ববি হাজ্জাজের পাশে বসিয়ে শাফিন আহমেদকে উত্তরের মেয়র পদে উপনির্বাচনের প্রার্থী হিসেবে আনুষ্ঠানিক সমর্থন জানানো হয়।

প্রথমবারের মত উত্তরের মেয়র পদে নির্বাচনে অংশ নিতে চাওয়া শাফিনের আপাতত কিছু করার নেই। কারণ নির্বাচনের তফসিল তিন মাসের জন্য স্থগিত ঘোষণা করে বিচারপতি নাঈমা হায়দার ও বিচারপতি জাফর আহমেদের সমন্বয়ে গঠিত হাইকোর্ট বেঞ্চ বুধবার রুলসহ আদেশ দেন। রুলে নির্বাচনের তফসিল কেন বেআইনি ঘোষণা করা হবে না তাও জানতে চেয়েছেন আদালত।

গত ৯ জানুয়ারি ঢাকা উত্তর সিটি কর্পোরেশনের মেয়র পদে উপ-নির্বাচনসহ সিটি কর্পোরেশনে নতুন যুক্ত হওয়া এলাকায় নির্বাচনের তফসিল ঘোষণা করা হয়। ওই তফসিলের বৈধতা চ্যালেঞ্জ করে গতকাল হাইকোর্টে পৃথক দুটি রিট করেন ভাটারা ইউপির চেয়ারম্যান আতাউর রহমান ও বেরাইদ ইউপির চেয়ারম্যান জাহাঙ্গীর আলম।

সে রিটের শুনানি নিয়ে আদালত আদেশের জন্য বুধবার দিন ধার্য করেছিলেন।

গত ৯ জানুয়ারি নির্বাচন কমিশনের ঘোষিত তফসিলে ভোটগ্রহণের তারিখ নির্ধারিত হয় আগামী ২৬ ফেব্রুয়ারি। নির্বাচনী তফসিল অনুসারে, নির্বাচনে প্রার্থিতার জন্য সম্ভাব্য প্রার্থীদের মনোনয়নপত্র দাখিলের শেষ তারিখ ছিল ১৮ জানুয়ারি। রিটার্নিং অফিসার কর্তৃক মনোনয়নপত্র বাছাইয়ের তারিখ ২১ ও ২২ জানুয়ারি। আর প্রার্থিতা পাবার পর ২৯ জানুয়ারি পর্যন্ত তা প্রত্যাহারের জন্য দিন নির্ধারিত ছিল।