চ্যানেল আই অনলাইন
হৃদয়ে বাংলাদেশ প্রবাসেও বাংলাদেশ

‘সরকারের আচরণে মনে হয় জনগণের কাছে তাদের দায়বদ্ধতা নেই’

রোববার বিকালে শাহবাগ জাতীয় জাদুঘরের সামনে গণজাগরণ মঞ্চের ডাকা ‘নির্বিচারে মানুষ খুনের বিরুদ্ধে জাগো বাংলাদেশ’ নামক প্রতিবাদ সমাবেশে বাধা দিয়েছে পুলিশ।

বিজ্ঞাপন

এসময় গনজাগরণ মঞ্চের মুখপাত্র ইমরান এইচ সরকার সাংবাদিকদের বলেন, সরকারের আচরণ দেখলে মনে হয় তারা জনগনের কাছে দায়বদ্ধ নয়।

মাদক বিরোধী অভিযানে বিচার ছাড়া মানুষ হত্যা করা হচ্ছে। বিচার ছাড়া কোনো মানুষকে হত্যা সমর্থনযোগ্য নয়। সে দাবি নিয়ে আমরা প্রতিবাদ জানাতে এখানে এসেছিলাম। কিন্তু পুলিশ এই কর্মসূচীতে বাধা দিয়েছে। সরকারের আচরণে মনে হচ্ছে, দেশে একনায়কতান্ত্রিক শাসন চলছে। মানুষের কথা বলার কোনো অধিকার নেই, জবাবদিহিতা নেই।

বিজ্ঞাপন

ইমরান এইচ সরকার আরও বলেন, গত কয়েকদিন ধরে দেশে মাদক বিরোধী অভিযানের নামে শতাধিক মানুষকে হত্যা করা হয়েছে। সুনির্দিষ্ট কোন অভিযোগ ও তদন্ত ছাড়াই এসব মানুষকে হত্যা করা হয়েছে। এই অভিযানে বিনা বিচারে ভুল মানুষকে হত্যা করছে। শুধুমাত্র চুনোপুটিদেরই বিচারের আওতায় আনা হচ্ছে রাঘববোয়ালরা ধরা ছোয়ার বাইরে থাকছে। গণমাধ্যমে বিভিন্ন সময়ে প্রশাসনের কর্মকর্তা এবং সংসদ সদস্যদের নামে মাদক ব্যবসার অভিযোগ আসলেও তাদের বিরুদ্ধে কোন ব্যবস্থা নেয় নি সরকার।

“সম্প্রতি কক্সবাজারে ঘটে যাওয়া হত্যাকাণ্ড নিয়ে অডিও প্রকাশ করায় বাংলাদেশের একটি গণমাধ্যমের ওয়েবসাইট ব্লক করে দেয়া হয়। আমরা এই ঘটনার তীব্র নিন্দা জানাই । এটা গণমাধ্যম ও বাক স্বাধীনতার উপর আঘাত। সরকার যে পথে এগোচ্ছে এটা কোনো গণতান্ত্রিক পথ না। এভাবে কোনো গণতান্ত্রিক রাষ্ট্র চলতে পারে না। এভাবে বিচারবহির্ভূত হত্যাকাণ্ডের মাধ্যমে সরকার মানুষ হত্যার যে মিশন হাতে নিয়েছে তার তীব্র নিন্দা জানাই। এভাবে অভিযান চালানো হলে কখনো তা সফল হবে না।”

তাই সরকারকে বিচারবহির্ভূত হত্যাকাণ্ড থেকে সরে আসার আহ্বান জানান তিনি।

আগামী ৬ জুন (বুধবার) বিকাল চারটায় শাহবাগ জাতীয় জাদুঘরের সামনে মাদক বিরোধী অভিযানের নামে বিচারবহির্ভূত হত্যকান্ডের প্রতিবাদে সমাবেশ অনুষ্ঠিত হবে। পুলিশের সকল ধরনের প্রক্রিয়া মেনে এই সমাবেশ অনুষ্ঠিত হবে।

রমনা জোনের অতিরিক্ত উপ-পুলিশ কমিশনার আজিমুল হক সাংবাদিকদের বলেন, প্রতিবাদ সমাবেশের অনুমতি ছিলো না। এজন্য তাদের সমাবেশ না করার জন্য অনুরোধ করা হয়েছে।