চ্যানেল আই অনলাইন
হৃদয়ে বাংলাদেশ প্রবাসেও বাংলাদেশ

রপ্তানি শিল্পে উৎসে কর বৃদ্ধি, রাজস্ব বাড়বে ২ হাজার কোটি টাকা

রপ্তানি শিল্পে উৎসে কর বাড়ানোর কারণে সরকারের রাজস্ব আয় বাড়বে প্রায় ২ হাজার কোটি টাকা। তবে রপ্তানিমুখী সবচেয়ে বড় খাত-পোশাক শিল্প মালিকরা বলছেন, এতে তাদের উপর করের বোঝা প্রায় ৫০ শতাংশ বাড়বে। কারখানা কমপ্লায়েন্স করার জন্য বেশিরভাগ উদ্যোক্তার অতিরিক্ত খরচ হওয়ায় দুই বছর উৎসে কর কম রাখার দাবি তাদের।

বিজ্ঞাপন

অর্থমন্ত্রীর প্রস্তাবিত বাজেটে দেশের সবচেয়ে বড় রপ্তানিমুখী শিল্প পোশাক খাতের জন্য বেশ কিছু সুখবর আছে। কর্পোরেট ট্যাক্স কমানোর পাশাপাশি আধুনিক নিরাপদ কর্মপরিবেশের কারখানা তৈরির প্রয়োজনীয় প্রি-ফেব্রিকেটেড আইটেম ও অগ্নি নির্বাপন সামগ্রীর উপর শুল্ক তুলে নেয়া হয়েছে।

বিজ্ঞাপন

তবে রপ্তানির উপর উৎসে কর দশমিক ছয় শূন্য থেকে প্রস্তাব করা হয়েছে দেড় শতাংশ। এ ব্যাপারে বিজিএমইএ’র সহ-সভাপতি মো. নাছির উদ্দিন বলেন, ‘একটা কারখানা যদি ৩ শতাংশ মুনাফা করে, সেক্ষেত্রে তার কর গিয়ে দাঁড়াবে ৫০ শতাংশ যা ব্যাংকের চেয়েও বেশি। ২ শতাংশ মুনাফায় সেই কারখানার কর হবে ৭৫ শতাংশ। আর ১ শতাংশ মুনাফা করলে তা হবে ১৫০ শতাংশ।

তিনি বলেন, ‘অ্যাকর্ড অ্যালায়েন্স এবং নেশন অ্যাকশন প্ল্যানের কারণে ক্ষুদ্র ও মাঝারি কারখানাগুলোর এখন কমপক্ষে ৫ থেকে ২০ কোটি টাকা খরচ করতে হচ্ছে। যেহেতু পোশাক খাতটি বর্তমানে প্রচণ্ড একটা চাপের মধ্যে রয়েছে, তাই আমরা আবেদন করেছিলাম অন্তত ২০১৪-১৫ বছরের মতো যেন শুল্ক ০.৩ শতাংশ করা হয়।

গত বছর উৎসে কর বাবদ তৈরি পোশাক খাত থেকে আয় হয়েছিলো প্রায় ১২শ’ কোটি টাকা। নতুন অর্থবছরে যদি পোশাক রপ্তানি খাত থেকে ৩ হাজার কোটি টাকা আয় হয়, তবে উৎস কর থেকে অতিরিক্ত ১৮ শ কোটি টাকা রাজস্ব আদায় হবে।

তবে বাজেট প্রস্তাবনায় পোশাক শিল্পের জন্য প্রণোদনা প্যাকেজে কোনো ধরণের পরিবর্তন আনা হয়নি।