চ্যানেল আই অনলাইন
হৃদয়ে বাংলাদেশ প্রবাসেও বাংলাদেশ

মিশেল লিয়নস: শত শত মৃত্যুদণ্ডের এক প্রত্যক্ষদর্শী

যুক্তরাষ্ট্রের অঙ্গরাজ্যগুলোর মধ্যে সবচেয়ে বেশি লোককে মৃত্যুদণ্ড দেয়া হয় টেক্সাসে। সেখানকার একজন সাবেক নারী কর্মী নিজ চোখে দেখেছেন শত শত মৃত্যুদণ্ড। তার ওপর এসব দৃশ্যের গভীর প্রভাবের কথা সম্প্রতি বর্ণনা করেছেন মিশেল লিয়নস নামের ওই নারী।

বিজ্ঞাপন

বিবিসি জানায়, দীর্ঘ ১৮ বছরের ক্যারিয়ারে রিয়নস এসব মৃত্যুদণ্ড দেখেন। প্রথমে পত্রিকার প্রতিবেদক হিসেবে এবং পরে টেক্সাসের বিচার বিভাগের একজন মুখপাত্র হিসেবে। নিজের পেশার কারণেই এমন অভিজ্ঞতার মুখোমুখী হতে হয়েছে মিশেলকে।

২০০০ থেকে ২০১২ সালের মধ্যেই প্রায় ৩শ নারী-পুরুষের মৃত্যুদণ্ড কার্যকর হতে দেখেন তিনি। প্রথম মৃত্যুদণ্ড দেখেন ২২ বছর বয়সে। জেভিয়ের ক্রুজ নামের এক ব্যক্তির মৃত্যুদণ্ডের কার্যকরের পর নিজের একটি জার্নালে তিনি লেখেন, ‘‘বিষয়টিতে আমি স্বাভাবিক ছিলাম। আমার কী কষ্ট পাওয়া উচিত?”

‘ডেথ রো: দ্য ফাইনাল মিনিটস’ নামে স্মৃতিকথায় লিয়নস লেখেন, মৃত্যুদণ্ড কার্যকর হতে দেখাটা ছিল আমার কাজের একটি অংশ। আমি ছিলাম মৃত্যদণ্ডের পক্ষে।

বিজ্ঞাপন

তিনি লেখেন, আমার মনে হতো কিছু অপরাধের জন্য মৃত্যুদণ্ড সবচেয়ে কার্যকর শাস্তি। আর যেহেতু আমি তরুণ এবং একগুঁয়ে ছিলাম, তাই আমার কাছে সবকিছু ছিল সাদা ও কালো।

তিনি আরো লেখেন, আমি যদি ওই সব ঘটনার কথা বিশ্লেষণ করি, তাহলে তা আমাকে অনেক বেশি আবেগী ও চিন্তিত করে তোলে, আমি ভাবি, আমার পক্ষে কিভাবে আমি মাসের পর মাস বছরের পর বছর মৃত্যুদণ্ড কার্যকর হওয়া ঐসব কক্ষে ফিরে যেতাম?

টেক্সাসে মৃত্যুদণ্ড কার্যকরের একটি ঘর

যুক্তরাষ্ট্রের অন্য রাজ্যগুলোর চেয়ে টেক্সাসে মৃত্যুদণ্ডের হার যে বেশি একটি পরিসংখ্যানেই তা বোঝা যায়। কেবল ২০০০ সালেই সেখানে ৪০ জনের মৃত্যুদণ্ড কার্যকর করা হয়েছে।