চ্যানেল আই অনলাইন
হৃদয়ে বাংলাদেশ প্রবাসেও বাংলাদেশ

মা-ভাষা রুগ্ন হলে জাতি রুগ্ন হয়

ভাষা শহীদ দিবস ও আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবসকে সামনে রেখে চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ের যোগাযোগ ও সাংবাদিকতা বিভাগের সহকারী অধ্যাপক আর রাজী বলেছেন: ভাষা হচ্ছে সেই বিস্ময়কর মহাশক্তিশালী হাতিয়ার, যে সর্বাবস্থায় তার আসল মালিকের স্বার্থ রক্ষা করে চলে। মা-ভাষা রুগ্ন হলে জাতি রুগ্ন হয়।

ফেসবুকে দেয়া এক স্ট্যাটাসে তিনি এসব কথা লিখেছেন।

ওই স্ট্যাটাসে তিনি বলেন: “পৃথিবীতে এমন কোনো জাতি নাই, যারা তার সন্তানদের পরভাষায় শিক্ষা দিয়ে বিশ্বে মর্যাদার আসন পেয়েছে এবং ভাল থেকেছে।

ইতিহাস সাক্ষ্য দেয়, কোনো একটি দেশ, যত দিন পর্যন্ত তার বাসিন্দাদের মাতৃভাষায় উচ্চ-শিক্ষা নিশ্চিত করতে না পেরেছে, ততোদিন পর্যন্ত সেই দেশের মানুষ মান-মর্যাদা-সুখ-সমৃদ্ধি থেকে বঞ্চিত থেকেছে।

শূন্য-হাতে বিশ্বদরবারে দাঁড়িয়ে কেউ বিশ্বনাগরিকের সম্মান বা মর্যাদা পেতে পারে না। যার যার হাজার বছরের সঞ্চিত নিজস্ব সম্পদই কেবল তাকে বিশ্বনাগরিকের সম্মান বা মর্যাদা দিতে পারে। আর এই হাজার বছরের সম্পদের সন্ধান পাওয়া যেতে পারে কেবল স্ব স্ব মাতৃভাষাতেই।

মানুষকে সুখ, শান্তি, আত্ম-ক্ষমতা ও আত্মশক্তি অর্জন থেকে বঞ্চিত রাখার সবচে কার্যকর ও পরীক্ষিত উপায় হচ্ছে, তাকে তার মাতৃভাষা ছাড়া ভিন্ন-ভাষায় শিক্ষা গ্রহণে বাধ্য করা। সে শিক্ষা নিম্ন-উচ্চ যে স্তরেরই হোক না কেন।

ভাষার মধ্যে এই স্বয়ংক্রিয় ব্যবস্থা গাঁথা রয়েছে যে, যে ভাষা-গোষ্ঠীর ভাষা ব্যবহার করে মানুষ সাফল্য পায়, সেই ভাষা ব্যবহারকারীদের স্বার্থ রক্ষা করতে সে বাধ্য থাকে। মানব-সমাজে ভাষাসাম্রাজ্য প্রতিষ্ঠার যে উদগ্র-বাসনা দেখা যায়, তার অন্তর্নিহিত অন্যতম কারণ ভাষার এই গুণ।

ভাষা হচ্ছে সেই বিস্ময়কর মহাশক্তিশালী হাতিয়ার, যে সর্বাবস্থায় তার আসল মালিকের স্বার্থ রক্ষা করে চলে।

মাতৃভাষা হচ্ছে মাতৃগাছের মতো, তাতে একটা জাতির সব গুণাগুণ ধরা থাকে। সেই মা-ভাষা রুগ্ন হলে, জাতি রুগ্ন হয়। সেই মা-ভাষা হারিয়ে গেলে জাতি তার সব গুণাগুণ হারিয়ে ফেলে। মানুষের অস্তিত্ব ছাড়া মাতৃভাষার চেয়ে মূল্যবান মানুষের কিছু থাকতে পারে না।”