চ্যানেল আই অনলাইন
হৃদয়ে বাংলাদেশ প্রবাসেও বাংলাদেশ

ভেজালের বিরুদ্ধে যুদ্ধ ঘোষণায় প্রধানমন্ত্রীর প্রতি হাইকোর্টের আহ্বান

সারাদেশে মাদকবিরোধী অভিযানের উদাহরণ টেনে ভেজাল খাদ্যপণ্যের বিরুদ্ধেও যুদ্ধ ঘোষণা করতে প্রধানমন্ত্রীর প্রতি আহবান জানিয়েছেন হাইকোর্ট।

বিজ্ঞাপন

দেশের বাজারে থাকা ভেজাল বা নিম্নমানের খাদ্যপণ্য বিষয়ে ব্যবস্থা নিতে করা এক রিটের আদেশ দিতে গিয়ে রোববার বিচারপতি শেখ হাসান আরিফ ও বিচারপতি রাজিক আল জলিলের বেঞ্চ এ আহবান জানান।

আদালত বলেন, ‘খাদ্যে ভেজালের বিষয়টিকে এক নম্বর অগ্রাধিকার দিয়েই কাজে নামা উচিত। এক্ষত্রে সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের কর্মকর্তারা শুধুমাত্র একজন কর্মকর্তা হিসেবে নন, একজন দেশপ্রেমিক হিসেবে জনসাধারণের প্রতি দায়বদ্ধতা থেকে তাদের উপর অর্পিত দায়িত্ব পালন করবেন। এই আদালত সেটাই প্রত্যাশা করে।’

আদালত আরো বলেন, ‘খাদ্য নিরাপত্তার ব্যপারে আপোস করার কোনো সুযোগ নেই। এই সমস্যা থেকে উত্তরণের জন্য প্রত্যেকটা নিয়ন্ত্রণকারী সংস্থা বা প্রতিষ্ঠানকে সমন্বিতভাবে কাজ করা উচিত।’

এরপর হাইকোর্ট তার আদেশে বিএসটিআই’র পরীক্ষায় প্রমাণিত ৫২টি ভেজাল বা নিম্নমানের খাদ্যপণ্য বাজার থেকে অবিলম্বে সরিয়ে নেয়ার নির্দেশ দিয়েছেন।

যে ৫২ টি পণ্যকে নিম্নমানের ও ভেজাল বলে বিএসটিআই উল্লেখ করে সেগুলো হলো: গ্রীণ ব্লিচিং এর সরিষার তেল, শমনমের সরিষার তেল, বাংলাদেশ এডিবল ওয়েলের সরিষার তেল, সিটি ওয়েলের সরিষার তেল, কাশেম ফুডের চিপস, আরা ফুডের ড্রিংকিং ওয়াটার, আল সাফির ড্রিংকিং ওয়াটার, মিজান ড্রিংকিং ওয়াটার, মর্ণ ডিউয়ের ড্রিংকিং ওয়াটার, ডানকান ন্যাচারাল মিনারেল ওয়াটার, আরার ডিউ ড্রিংকিং ওয়াটার, দিঘী ড্রিংকিং ওয়াটার, প্রাণের লাচ্ছা সেমাই, ডুডলি নুডলস, শান্ত ফুডের সফট ড্রিংক পাউডার, জাহাঙ্গীর ফুড সফট ড্রিংক পাউডার, ড্যানিশের হলুদের গুড়া, প্রাণের হলুদ গুড়া, ফ্রেশের হলুদ গুড়া, এসিআইর ধনিয়ার গুড়া, প্রাণের কারি পাউডার, ড্যানিশের কারী পাউডার, বনলতার ঘি, পিওর হাটহাজারী মরিচ গুড়া, মিস্টিমেলা লাচ্ছা সেমাই, মধুবনের লাচ্ছা সেমাই, মিঠাইর লাচ্ছা সেমাই, ওয়েল ফুডের লাচ্ছা সেমাই, এসিআইর আয়োডিন যুক্ত লবন, মোল্লা সল্টের আয়োডিন যুক্ত লবন, কিং’য়ের ময়দা, রুপসার দই, মক্কার চানাচুর, মেহেদীর বিস্কুট, বাঘাবাড়ীর স্পেশাল ঘি, নিশিতা ফুডস এর সুজি, মধুবনের লাচ্ছা সেমাই, মঞ্জিলের হলুদ গুড়া, মধুমতির আয়োডিন যুক্ত লবন, সান ফুডের হলুদ গুড়া, গ্রীন লেনের মধু, কিরনের লাচ্ছা সেমাই, ডলফিনের মরিচের গুড়া, ডলফিনের হলুদের গুড়া, সূর্যের মরিচের গুড়া, জেদ্দার লাচ্ছা সেমাই, অমৃতের লাচ্ছা সেমাই, দাদা সুপারের আয়োডিন যুক্ত লবন, মদীনার আয়োডিন যু্ক্ত লবণ, নুরের আয়োডিনযুক্ত লবণ।

বিজ্ঞাপন

হাইকোর্ট তার আদেশে এসব খাদ্যপণ্য উৎপাদনকারীদের বিরুদ্ধে আইন অনুযায়ী ব্যাবস্থা গ্রহণের নির্দেশ দিয়েছেন।

সেই সাথে মান উন্নীত না হওয়া পর্যন্ত এসব খাদ্যপণ্যের উৎপাদন ও বিক্রি বন্ধ রাখার নির্দেশ দেয়া হয়েছে। এবং আদালতের এই আদেশ বাস্তবায়ন করে আগামী ১০ দিনের মধ্যে জাতীয় ভোক্তা অধিকার সংরক্ষণ অধিদপ্তর ও বাংলাদেশ নিরাপদ খাদ্য কর্তৃপক্ষকে হাইকোর্টে প্রতিবেদন দিতে বলা হয়েছে। আদালত এ বিষয়ে পরবর্তী আদেশের জন্য ২৩ মে দিন ধার্য করেছেন।

আজ আদালতে রিটের পক্ষে ছিলেন আইনজীবী ব্যারিস্টার শিহাব উদ্দিন খান। রাষ্ট্র পক্ষে ছিলেন ডেপুটি অ্যাটর্নি জেনারেল মোখলেসুর রহমান। আর বাংলাদেশ নিরাপদ খাদ্য কর্তৃপক্ষের পক্ষের ছিলেন আইনজীবী মো. ফরিদুল ইসলাম।

এর আগে গত ৯ মে হাইকোর্টে এই ৫২টি খাদ্যপণ্যের বিষয় নিয়ে রিট করে কনসাস কনজ্যুমার সোসাইটি। এরপর রিটটি আদালতে উপস্থাপনের পর ভেজাল বা নিম্নমানের খাদ্যপণ্য বাজারে থাকায় উষ্মা প্রকাশ করে হাইকোর্ট বলেন: ‘একের পর এক ভেজালের বিষয় হাইকোর্টে আসছে। আমরা মানুষের অন্য মামলা করব না এগুলা দেখব? এগুলা তো সরকারের কাজ। কোর্টের কাজ নয়। সরকার কী করছে? আবার আমরা এসব বিষয়ে আদেশ দিলে তো আমাদের সমালোচনা করা হয়। কিন্তু বিষয়গুলো এত গুরুত্বপূর্ণ যে এগুলো আমাদের কোর্টে আসলে আমরা তো ফেলে দিতে পারি না।’

ওইদিন আদালত বলেন: ‘এই যে দেখছি হলুদের গুড়ায় ভেজাল, ব্র‍্যান্ডের তেলে ভেজাল, সেমাইতে ভেজাল। আইনে তো এ বিষয়ে সর্বোচ্চ শাস্তির বিধান রয়েছে। আমরা এখন কী করব বুঝতে পারছি না। আমরা কোথায় যাচ্ছি?’

ওইদিন আদালত আরো বলেন: ‘রোজা আসলেই কেন ভেজালের বিষয়টি খোঁজা হয়? রোজার সাথে ভেজালের কী সম্পর্ক? কারণ খাবার তো সারা বছরই আমাদের খেতে হয়।’

এরপর আদালত ভেজাল বা নিম্নমানের খাদ্যপণ্য বাজার থাকার বিষয়ে ব্যাখ্যা দিতে নিরাপদ খাদ্য কর্তৃপক্ষ ও বিএসটিআই’র ডেপুটি ডিরেক্টর পর্যায়ের দুইজন কর্মকর্তাকে ১২ মে হাইকোর্ট হাজির হতে বলেন। সে আদেশ অনুযায়ী আজ (১২ মে) কর্মকর্তারা হাইকোর্টে হাজির হন। এবং বিএসটিআই এর ডেপুটি ডাইরেক্টর মো: রিয়াজুল হক আদালতে বক্তব্য তুলে ধরেন।

এ রিটে খাদ্য মন্ত্রণালয়ের সচিব, বাণিজ্য মন্ত্রণালয়ের সচিব, শিল্প মন্ত্রণালয়ের সচিব, বাংলাদেশ স্ট্যান্ডার্স অ্যান্ড টেস্টিং ইনস্টিটিউশন (বিএসটিআই)-এর মহাপরিচালক (ডিজি), বাংলাদেশ নিরাপদ খাদ্য কর্তৃপক্ষের চেয়ারম্যান ও জাতীয় ভোক্তা অধিকার সংরক্ষণ অধিদপ্তরের মহাপরিচালককে বিবাদী করা হয়।