চ্যানেল আই অনলাইন
হৃদয়ে বাংলাদেশ প্রবাসেও বাংলাদেশ

ভাষাহীন শোয়েব, উইকেট পেয়েও সমালোচনায় আমির

বিশ্বকাপের প্রথম ম্যাচেই দেশ ও সমর্থকদের হতাশ করেছে পাকিস্তান দল। অন্য সবার মতো ম্যাচে ছাপ ফেলার মতো ইতিবাচক কিছু খুঁজে পাননি দেশটির সাবেক পেস সুপারস্টার শোয়েব আখতারও। পাকিস্তানের বিপর্যয় দেখে রীতিমতো ভাষাহীন তিনি।

বিজ্ঞাপন

ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিপক্ষে প্রথমে ব্যাট করে মাত্র ১০৫ রানেই অলআউট হয়ে যায় পাকিস্তান। পরে গেইলের হাফসেঞ্চুরিতে ভর করে ‘গ্রিন আর্মিদের’ ৭ উইকেটে উড়িয়ে দেয় ক্যারিবীয়রা।

বাজে পারফরম্যান্স পাকিস্তানি ব্যাটসম্যানদের। বিশ্বকাপের কয়েকদিন আগেও যারা ইংল্যান্ডের মতো দলের বিপক্ষে টানা তিন ম্যাচে ৩৩০’র বেশি রান তুলেছিল, তারাই কিনা এদিন শেষ হয়ে যায় তিন অঙ্কে পেরিয়েই।

পাকিস্তানের হয়ে টপঅর্ডারের দুই ব্যাটসম্যান বাবর আজম ও ফখর জামান সর্বোচ্চ ২২ রান করে করেন। দ্বিতীয় সর্বোচ্চ ১৮ রান আসে লেজের ব্যাটসম্যান ওয়াহাব রিয়াজের থেকে। অন্যদের মধ্যে দুই অঙ্ক ছুঁয়েছেন কেবল মোহাম্মদ হাফিজ (১৬)।

বিজ্ঞাপন

পাকিস্তানের এমন পারফরম্যান্স ও হারকে এক শব্দে বর্ণনা করেছেন শোয়েব আখতার। নিজের টুইটার অ্যাকাউন্টে রাওয়ালপিন্ডি এক্সপ্রেস শুধু লিখেছেন, ‘ভাষাহীন (স্পেসলেস)’।

ম্যাচে পাকিস্তানের ব্যাটসম্যানরা বাজে করলেও বল হাতে নিজের প্রথম বিশ্বকাপ ম্যাচে ঠিকই আলো কেড়েছেন মোহাম্মদ আমির। ওয়েস্ট ইন্ডিজের আউট হওয়া তিনটি উইকেটই নিয়েছেন তিনি। গেইল তাণ্ডবের মধ্যে ৬ ওভারে আবার রান দিয়েছেন কেবল ২৬।

এমন বোলিং করার পরও সমালোচনার মুখে পড়তে হয়েছে আমিরকে। তার সমালোচনা করেছেন সাবেক অধিনায়ক মিসবাহ-উল হক। ম্যাচ শেষে ইএসপিএন-ক্রিকইনফোর বিশ্লেষণে অংশ নিয়ে আমিরের সমালোচনা করেন মিসবাহ।

তিনি বলেন, ‘ সবাই বলছে, এই বিপর্যয়ে একটা ইতিবাচক দিক আমিরের উইকেট পাওয়া। কিন্তু আমির তিন উইকেট পেলেও তার বোলিং গতি ছিল ৮০-এর কাছাকাছি। দলের এত অল্প পুঁজি সামনে রেখে ওপেনিং বোলারের এই গতি দিয়ে কীভাবে কী হবে। যেখানে হাসান আলি গড় ৮৮ গতিতে বল করেছেন।’

পাকিস্তানের দ্বিতীয় ম্যাচ আগামী ৩ জুন। ওই ম্যাচে তাদের প্রতিপক্ষ বিশ্বকাপের উদ্বোধনী ম্যাচে সাউথ আফ্রিকাকে উড়িয়ে দেয়া স্বাগতিক ইংল্যান্ড। আর ৬ জুন ওয়েস্ট ইন্ডিজ তাদের পরের ম্যাচ খেলবে অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষে।