চ্যানেল আই অনলাইন
হৃদয়ে বাংলাদেশ প্রবাসেও বাংলাদেশ

বিচ্ছিন্ন অভিবাসী সন্তানদের ফিরিয়ে দিতে মার্কিন বিচারকের নির্দেশ

ট্রাম্প প্রশাসনের ‘জিরো টলারেন্স’ নীতির অধীনে অভিবাসী বাবা-মায়ের কাছ থেকে আলাদা করা সন্তানদের আগামী ৩০ দিনের মধ্যে ফিরিয়ে দেয়ার আদেশ দিয়েছেন যুক্তরাষ্ট্রের এক বিচারপতি।

বিজ্ঞাপন

যুক্তরাষ্ট্রে প্রবেশ বা প্রবেশের চেষ্টা করা বৈধ কাগজপত্রবিহীন অভিবাসী পরিবারগুলো থেকে শিশুদের আলাদা করার ঘটনায় করা এক মামলায় এই হুকুম জারি করেন তিনি।

ট্রাম্প প্রশাসনের এই বিতর্কিত নীতির কারণে মে এবং জুন মাসে ২ হাজার ৩শ’র বেশি অভিবাসী শিশুকে তার বাবা-মায়ের কাছ থেকে আলাদা করে দেয়া হয়। এই নীতি অনুসারে বৈধ কাগজপত্র ছাড়া যে কোনো ব্যক্তি সীমান্ত অতিক্রম করার চেষ্টা করলে তাকে গ্রেপ্তার করা হবে এবং কোনো পরিবার এভাবে যুক্তরাষ্ট্রে প্রবেশের চেষ্টা করলে সেই পরিবারের শিশুদের সরিয়ে নিয়ে আলাদা ফ্যাসিলিটিতে রাখা হবে।

বিজ্ঞাপন

ইতোমধ্যে অভিবাসী পরিবারগুলোতে বাবা-মায়ের থেকে সন্তানদের আলাদা করা ‘নিষ্ঠুর ও অবৈধ’ নীতির জন্য ট্রাম্প প্রশাসনের বিরুদ্ধে মামলা করেছে যুক্তরাষ্ট্রের ১৭টি অঙ্গরাজ্য

ওয়াশিংটন, নিউইয়র্ক ও ক্যালিফোর্নিয়াসহ ১৭টি অঙ্গরাজ্যের ডেমোক্র্যাট অ্যাটর্নি জেনারেল যৌথভাবে মঙ্গলবার এই মামলা দায়ের করেন।ট্রাম্প প্রশাসন-অভিবাসন নীতি-অভিবাসী

মামলা করা রাজ্যগুলো হলো: ওয়াশিংটন, ম্যাসাচুসেটস, ক্যালিফোর্নিয়া, নিউইয়র্ক, ডেলাওয়্যার, আইওয়া, ইলিনয়, ম্যারিল্যান্ড, মিনেসোটা, নিউ জার্সি, নিউ মেক্সিকো, নর্থ ক্যারোলিনা, অরিগন, পেনসিলভেনিয়া, রোড আইল্যান্ড, ভার্মন্ট ও ভার্জিনিয়া।

যুক্তরাষ্ট্র-মেক্সিকো সীমান্ত দিয়ে কাগজপত্র ছাড়াই যুক্তরাষ্ট্রে প্রবেশের চেষ্টা করা অভিবাসন প্রার্থীদের প্রবেশে বাধা দেয়া এবং সেসব পরিবারের কাছ থেকে শিশুদের আলাদা করে দেয়ার নতুন নীতির প্রতিবাদ হিসেবে মামলাটি করা হয়েছে।

মেক্সিকো সীমান্তে অভিবাসন প্রত্যাশীদের রুখতে ‘জিরো টলারেন্স’ নীতি ঘোষণা করার পর আবার গত ২০ জুন ট্রাম্প প্রশাসন সেই পরিবারগুলোকে একসাথে রাখার নির্দেশ দেয়। সেই নির্দেশকেও ‘ছলনা’ বলে বর্ণনা করা হয়েছে ওয়াশিংটনের সিয়াটলে অবস্থিত ইউএস ডিস্ট্রিক্ট কোর্টে দায়ের করা ওই মামলায়।