চ্যানেল আই অনলাইন
হৃদয়ে বাংলাদেশ প্রবাসেও বাংলাদেশ

বাড়ি ফেরার পথে মধ্যরাতে গার্মেন্ট কর্মী ধর্ষণের শিকার

ঢাকা থেকে বাড়ি ফেরার পথে চাঁদপুরের মতলব উত্তরে হাতমুখ বেঁধে জোরপূর্বক এক গার্মেন্ট কর্মীকে তুলে নিয়ে ধর্ষণ করার খবর পাওয়া গেছে। মুমূর্ষ অবস্থায় এলাকার লোকজন মঙ্গলবার রাত পৌনে ১১টায় তাকে মতলব দক্ষিণ হাসপাতালে ভর্তি করে।

বিজ্ঞাপন

অবস্থার অবনতি হলে রাত সাড়ে ১২টায় চাঁদপুর ২৫০শয্যা সদর হাসপাতালে নিয়ে আসা হয়। পুলিশ হাসপাতালে মেয়ের স্বাক্ষ্য গ্রহণ করেছে।

চাঁদপুর ২৫০শয্যা সদর হাসপাতাল বেডে থাকা গামেন্টস কর্মী আসমা আক্তার (২৬) জানান, মতলব উত্তর উপজেলার সুলতানাবাদ ইউনিয়নের চরলক্ষ্মীপুর গ্রামে তার বাড়ী। ঢাকা তেজগাঁও এফএসি গার্মেন্টে সে চাকুরী করে।

মঙ্গলবার বাড়ির উদ্দেশ্যে ঢাকা হতে বাসে এসে দুপুর সাড়ে ১২টায় খাদেরগাঁও ইউনিয়নের ধনারপাড় নেমে সে পায়ে হেটে বাড়ি যাচ্ছিল। হঠাৎ ধনারপাড় হাফেজ মিয়ার বাড়ির পার্শ্বে ৩ বখাটে যুবক তার গতিরোধ করে মুখ চেপে জোরপূর্বক পাশের দাস বাড়ির একটি ঘরে নিয়ে যায় এবং হাত-মুখ বেঁধে জোর পূর্বক বখাটে এক যুবক তাকে ধর্ষণ করে।

বিজ্ঞাপন

গার্মেন্টস কর্মী তিন বখাটে যুবকের দু’বখাটেকে চিনতে পারে। এরা হচ্ছে- একই উপজেলার পদ্মপাল গ্রামের গিয়াস উদ্দিনের ছেলে রুবেল প্রধান (২৬) ও শান্তুর ছেলে সুমন (২৫)।

অজ্ঞাত আরেক বখাটে যুবককে চিনতে পারেনি। বখাটে ৩ যুবক তার কাছে থাকা ২ হাজার টাকা ও মোবাইল ফোন নিয়ে পালিয়ে যায়।

এলাকাবাসী জানায়, দুপুরে হাফেজ মিয়ার স্ত্রী পুকুরঘাটে থালাবাসন ধৌত করতে গেলে চিৎকার শুনে দ্রুত ওই ঘরে যায়। এ সময় তাকে মূমূর্ষ অবস্থায় দেখতে পায়। পরে এলাকার লোকজন মেয়েটিকে মুমূর্ষ অবস্থায় উদ্ধার করে মতলব দক্ষিণ স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করে।

খবর পেয়ে মতলব থানার এসআই তপন দাস হাসপাতালে গিয়ে মেয়েটির জবানবন্দী নেয়। মঙ্গলবার রাত ১২টায় গার্মেন্টস কর্মীকে মতলব দক্ষিণ হাসপাতাল থেকে চাঁদপুর ২৫০শয্যা হাসপাতালে রেফার করা হয়।

মতলব দক্ষিন থানার ইনচার্জ মোঃ কুতুবুদ্দিন জানান, এ ঘটনার সঙ্গে জড়িতদের দ্রুত আইনের আওতায় আনা হবে।