চ্যানেল আই অনলাইন
হৃদয়ে বাংলাদেশ প্রবাসেও বাংলাদেশ

ফোনালাপ: রাষ্ট্রদ্রোহিতার অভিযোগ, মোশাররফের অস্বীকার

বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য ড. খন্দকার মোশাররফ হোসেনের সঙ্গে পাকিস্তানের গোয়েন্দা সংস্থা আইএসআই-এর এক কর্মকর্তার কথিত ফোনালাপ ফাঁসের পর তার বিরুদ্ধে রাষ্ট্রদ্রোহের অভিযোগ আনা হয়েছে।

 

বিজ্ঞাপন

যদিও ফোনালাপের বিষয়টি অস্বীকার করে কুমিল্লার দুটি আসন থেকে প্রার্থী হওয়া সাবেক এ মন্ত্রী বলেছেন, ‘‘আমার ভাবমূর্তি ক্ষুণ্ন ও নির্বাচনী প্রচার কাজে বিঘ্ন সৃষ্টির জন্য সৃজিত ও বানোয়াট ফোনালাপের ভিডিও প্রচার করা হচ্ছে৷ এই ভিডিওটি রাজনৈতিক হীন উদ্দেশ্যে প্রকাশ ও প্রচার করা হচ্ছে।’’

ফাঁস হওয়া ফোনালাপকে নির্বাচনবিরোধী ষড়যন্ত্র উল্লেখ করে কুমিল্লার দাউদকান্দি থানায় রাষ্ট্রদ্রোহিতার অভিযোগ এনেছেন সংশ্লিষ্ট উপজেলা চেয়ারম্যান মেজর (অব.) মোহাম্মদ আলী সুমন।

বৃহস্পতিবার সকালে দাউদকান্দি থানার এসআই প্রদীপ অভিযোগের বিষয়টি নিশ্চিত করে জানান, বুধবার (১২ ডিসেম্বর) রাতে দাউদকান্দি মডেল থানায় এ অভিযোগ দায়ের করা হয়েছে।

অভিযোগে বলা হয়: ড. খন্দকার মোশাররফ (৭৩), পিতা মৃত খন্দকার আশরাফ হোসেন পাকিস্তানের গোয়েন্দা সংস্থা আইএসআইয়ের সঙ্গে কথা বলে একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচন নিয়ে ষড়যন্ত্র করছেন। এটি রাষ্ট্রদ্রোহিতার শামিল।

খন্দকার মোশাররফের সঙ্গে আইএসআই এজেন্টের কথোপকথনের একটি অডিও সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ছড়িয়ে পড়েছে। থাইল্যান্ডভিত্তিক নিউজ পোর্টাল এশিয়ান ট্রিবিউন কথোপকথনের এ সংবাদ ছেপেছে।

তাদের দাবি, মেহমুদ নামে ওই ব্যক্তি পাকিস্তানি গোয়েন্দা সংস্থা ইন্টার সার্ভিস ইন্টেলিজেন্সের (আইএসআই) কর্মকর্তা।

খন্দকার মোশাররফ হোসেন-আইএসআই-ফোনালাপ ফাঁস
মেজর (অব.) মোহাম্মদ আলী সুমনের অভিযোগ

বিজ্ঞাপন

মোহাম্মদ আলী সুমনের অভিযোগ, বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য খন্দকার মোশাররফ হোসেনের সঙ্গে আইএসআইয়ের এজেন্ট মেহমুদের যে কথোপকথন তাতে স্পষ্টতই বোঝা যায় – তিনি ভোটে জয়ী হতে ষড়যন্ত্র করে রাষ্ট্রবিরোধী অপরাধ করেছেন।

তার অভিযোগে আরো বলা হয়েছে, খন্দকার মোশাররফ ও আইএসআইয়ের কথোপকথন ১১ ডিসেম্বর এশিয়ান ট্রিবিউন ও ১২ ডিসেম্বর ডিবিসি নিউজে প্রকাশ হয়। এতে শোনা যায়, বিবাদী পাকিস্তানি গোয়েন্দা সংস্থার প্রতিনিধির সঙ্গে একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচন নিয়ে আলোচনা করেছেন। নির্বাচনে বিজয়ী হতে চীনকে ম্যানেজ করে দিতে বলেন মোশাররফ। বিদেশি শক্তির সহায়তা চেয়ে তিনি রাষ্ট্রদ্রোহ অপরাধ করেছেন।

সুমন অভিযোগে লেখেন, ‘রাষ্ট্রের সার্বভৌমত্বের বিরুদ্ধে বিদেশি গোয়েন্দা সংস্থার সঙ্গে ষড়যন্ত্র করায় আমি সংক্ষুব্ধ হয়ে মামলা করার জন্য থানায় অভিযোগ করলাম।’

ড. মোশাররফ হোসেনের বিরুদ্ধে অভিযোগ প্রাপ্তির বিষয়টি গণমাধ্যমকে নিশ্চিত করেছেন দাউদকান্দি মডেল থানার ওসি আলমগীর হোসেন।

তিনি জানান, অভিযোগ গ্রহণ করা হয়েছে, বৃহস্পতিবার অভিযোগের বিষয়ে সিদ্ধান্ত নেয়া হবে।

বিভিন্ন গণমাধ্যমে ড. খন্দকার মোশাররফের ওই কথোপকথন এরই মধ্যে ভাইরাল হয়ে পড়েছে।

খন্দকার মোশাররফ হোসেন-আইএসআই-ফোনালাপ ফাঁস
মোশাররফ হোসেনের বিবৃতি

ফোনালাপ নিয়ে বৃহস্পতিবার এক বিবৃতিতে খন্দকার মোশাররফ হোসেন বলেন: ‘‘এই ভিডিওটি রাজনৈতিক হীন উদ্দেশ্যে প্রকাশ ও প্রচার করা হচ্ছে৷ জনৈক মেহমুদ নামের এই ব্যক্তিকে আমি চিনি না। আমি কথিত এই ব্যক্তির সাথে বা আইএসআইয়ের কোনো কর্মকর্তার সাথে কখনোই কথোপকথন করিনি৷

এই বানোয়াট ভিডিও প্রচার করা থেকে বিরত থাকার জন্য সংশ্লিষ্ট মহল ও ব্যক্তির কাছে সবিনয় অনুরোধ করছি।’’