চ্যানেল আই অনলাইন
হৃদয়ে বাংলাদেশ প্রবাসেও বাংলাদেশ

চিরনিদ্রায় শায়িত কৌতুক অভিনেতা আনিস

ফেনীর ছাগলনাইয়া উপজেলায় বল্লবপুর গ্রামে পারিবারিক কবরস্থানে দাফন সম্পন্ন হয়েছে কৌতুক অভিনেতা আনিসের। সোমবার রাত আটটার দিকে চ্যানেল আই অনলাইনকে খবরটি জানিয়েছেন তার জামাতা আলাউদ্দিন শিমুল।

শিমুল জানান, আমরা ভেবেছিলাম ঢাকা থেকে আসতে সময় লাগবে। কিন্তু আল্লাহ’র রহমতে বিকেলেই আমরা ফেনীর বল্লবপুর গ্রামে পৌঁছাই। এরপর মাগরিবের নামাজের পর উনার তৃতীয় জানাজা সম্পন্ন হয়। এরপর তার পারিবারিক কবরস্থানেই দাফন হয়।

এরআগে শিল্পী সমিতির সভাপতি ও খল অভিনেতা মিশা সওদাগরের অনুরোধে সোমবার সকাল সাড়ে এগারোটার দিকে শেষবারের মতো এফডিসিতে নিয়ে আসা হয় ‘হাসির রাজা’ খ্যাত আনিসকে। সেখানে তার দ্বিতীয় জানাজা সম্পন্ন হয়। এখান থেকেই সোজা ফেনীতে গ্রামের বাড়ি নিয়ে যাওয়া হয় তাকে।

বাংলা চলচ্চিত্রের জনপ্রিয় কৌতুক অভিনেতা আনিস রবিবার দিবাগত রাত এগারোটায় মারা যান। মৃত্যুকালে তার বয়স হয়েছিলো ৭৮ বছর।

তার মৃত্যুর খবরটি চ্যানেল আই অনলাইনকে জানিয়ে ছিলেন জামাতা আলাউদ্দিন শিমুল। সোমবার সকালে তিনি বলেন, রবিবার রাত ১১ টার দিকে হৃদরোগে আক্রান্ত হয়ে মৃত্যু হয় তার। সেসময় বাসায় কেউ ছিল না। ১২ টায় তার মেয়ে ও জামাতা কলকাতা থেকে ফিরে দেখতে পান উনি মারা গেছেন। বাসায় পড়ে আছেন।

‘হাসির রাজা’ খ্যাত অভিনেতা আনিস বাংলা চলচ্চিত্রের কৌতুক অভিনয়ের ক্ষেত্রে একটি অবিস্মরণীয় নাম। যার নামের সাথে চার শতাধিক চলচ্চিত্র এবং অসংখ্য রেডিও ও টেলিভিশন নাটক যুক্ত!

ক্যারিয়ারের শুরুতে উদয়ন চৌধুরীর ‘বিষকন্যা’ চলচ্চিত্রে অভিনয়ের সুযোগ পেলেও আনিসের পুরোপুরি অভিনয় জীবন শুরু হয় জিল্লুর রহিমের ‘এইতো জীবন’ চলচ্চিত্রের মাধ্যমে। যা মুক্তি পায় ১৯৬৪ সালে।

তার অভিনীত উল্লেখযোগ্য চলচ্চিত্রের মধ্যে রয়েছে ‘এই তো জীবন’, ‘পয়সে’, ‘মালা’, ‘জরিনা সুন্দরী’, ‘জংলী মেয়ে’, ‘মধুমালা’, ‘ভানুমতি’, ‘পদ্মা নদীর মাঝি’, ‘সূর্য ওঠার আগে’, ‘অধিকার’ ‘অঙ্গার’, ‘বারুদ’, ‘ঘর সংসার’, ‘এমিলের গোয়েন্দা বাহিনী’, ‘ পুরস্কার’ ‘লাল কাজল’, ‘ নির্দোষ’ , ‘সানাই’ , ‘উজান ভাটি’, ‘তালাক’ ইত্যাদি।