চ্যানেল আই অনলাইন
হৃদয়ে বাংলাদেশ প্রবাসেও বাংলাদেশ

প্রিন্সের চোখে ইডেনের লড়াই

টেস্ট এবং ওয়ানডে স্ট্যাটাস পাওয়ার আগের সময়ে বাংলাদেশের অন্যতম সেরা পেসার জি. এম নওশের প্রিন্স। ১৯৯০ সালে বাংলাদেশ যখন ইডেনে প্রথম এবং শেষ খেলেছে তখন ওই দলে ছিলেন তিনি। শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে
বাংলাদেশের পেস অ্যাটাকের মূল কাণ্ডারিও ছিলেন।

নয় ওভার বল করে
পেয়েছিলেন এক উইকেট। লঙ্কান ওপেনার সেনানায়েককে আকরাম খানের হাতে ক্যাচ বানিয়ে শূন্য রানে সাজঘরে ফেরত পাঠিয়েছিলেন প্রিন্স।

গোলাম নওশের প্রিন্স এখন যুক্তরাষ্ট্র প্রবাসী। সেখান থেকে নিয়মিত বাংলাদেশ দলের খেলা দেখেন। দেখছেন বিশ্বকাপও। আরেকটি ইডেন লড়াইয়ের আগে চ্যানেল আই অনলাইনকে জানিয়েছেন তার প্রত্যাশার কথা।

প্রিন্স বলেন, ২০ ওভারের ম্যাচে নিজেদের সেরা খেলা খেলতে পারলে যে কেউই জয়লাভ করতে পারে। বুধবার বাংলাদেশ-পাকিস্তান ম্যাচটি হবে দুই শক্তির লড়াই।

চ্যানেল আই অনলাইনকে প্রিন্স বলেন, ম্যাচটিতে আমরা এগিয়ে থাকবো, কারণ আমরা মাত্র কয়েকদিন আগেই পাকিস্তানকে হারিয়েছে। এই টি-টুয়েন্টি বিশ্বকাপে ‘আমাদের ম্যাচ জয়ের ধারাবাহিকতা আরও ভালো হবে’ বলেই মনে করেন তিনি।

বাংলাদেশ দলের কাছ থেকে প্রত্যাশা সম্পর্কে প্রিন্স বলেন: বড় ম্যাচে কিভাবে নিজেদের মেলে ধরতে হয় সেটা আমাদের ছেলেদের জানা আছে। আমি বিশ্বাস করি কঠোর পরিশ্রম আর নিজেদের সেরা খেলাটা খেললেই এ ম্যাচে জয় পাবে টাইগাররা।

‘আমার অন্তরের অন্তঃস্থল থেকে বাংলাদেশ দলের প্রতি শুভ কামনা জানাই। শুধুমাত্র ইডেনের ম্যাচই নয়, এই টি-টুয়েন্টি বিশ্বকাপে আমাদের ছেলেরা আমাদের জন্য বড় কিছু বয়ে আনতে পারবে,’ এমন আশায় আছেন একসময় বাংলাদেশ দলের পেস আক্রমণের প্রধান নাম জি এম নওশের প্রিন্স।

টি-২০ বিশ্বকাপের এবারের আসরে সুপার টেনে পাকিস্তান ছাড়াও অস্ট্রেলিয়া, ভারত এবং নিউজিল্যান্ডের মুখোমুখি হবে বাংলাদেশ।