চ্যানেল আই অনলাইন
হৃদয়ে বাংলাদেশ প্রবাসেও বাংলাদেশ

পাকিস্তানে মাসুদ আজহারের ভাই, ছেলেসহ আটক অর্ধশতাধিক

জঙ্গি বিরোধী অভিযান

পাকিস্তানভিত্তিক নিষিদ্ধ ঘোষিত জঙ্গি সংগঠন জইশ-ই-মোহাম্মদের প্রধান মাসুদ আজহারের ভাই মুফতি আবদুল রউফ ও ছেলে হামাজ আজহারসহ অর্ধশতাধিক সদস্যকে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য আটক করেছে পাকিস্তানের নিরাপত্তা বাহিনী।

বিজ্ঞাপন

দেশটির স্বরাষ্ট্র সচিব আজম সুলেমান খান বলেন, জাতীয় নিরাপত্তা কমিটির সিদ্ধান্ত অনুযায়ী জঙ্গি-সন্ত্রাসের বিরুদ্ধে দেশব্যাপী এ অভিযান অব্যাহত থাকবে। প্রয়োজনে নিষিদ্ধ সংগঠনগুলোর সব সম্পত্তিও জব্দ করা হবে বলে জানান স্বরাষ্ট্র সচিব।

এ বিষয়ে তার বরাতে মঙ্গলবার প্রকাশিত সরকারি বিবৃতিতে বলা হয়েছে, ‘আগে থেকেই সিদ্ধান্ত হয়েছিল সবগুলো নিষিদ্ধ সংগঠনের বিরুদ্ধে পদক্ষেপ ত্বরান্বিত হবে। এরই ধারাবাহিকতায় মুফতি আবদুল রউফ এবং হামাজ আজহারসহ নজরদারিতে থাকা নিষিদ্ধ ঘোষিত সংগঠনের ৪৪ জন সদস্যকে তদন্তের খাতিরে সতর্কতামূলক হেফাজতে নেয়া হয়েছে।’

আজম সুলেমান খান জানান, পুলওয়ামা হামলার পর গত সপ্তাহে ভারতের দেয়া সন্ত্রাসীদের তালিকায় মুফতি আবদুল রউফ ও হামাজ আজহারের নাম রয়েছে।

বিজ্ঞাপন

এদিকে যুক্তরাষ্ট্রে পাকিস্তানের রাষ্ট্রদূত ড. আসাদ মাজিদ খান বলেছেন, দুই দেশের মধ্যে সাম্প্রতিক উত্তেজনা কমাতে ভারতকে আলোচনার সুযোগ দিতে প্রস্তুত রয়েছে পাকিস্তান।

আর ভারত এরপর আর কোনো হামলা হলে পাকিস্তানকে ছাড় দেবে না বলে দেশের সেনাবাহিনীর বরাত দিয়ে জানিয়েছে ভারতীয় গণমাধ্যম। বলা হয়েছে, কূটনৈতিক এবং আন্তর্জাতিকভাবেই পাকিস্তানের ওপর সর্বোচ্চ চাপ সৃষ্টির কৌশল হাতে নিয়েছে দিল্লি।

এর আগে পাকিস্তান সরকার দেশজুড়ে চরমপন্থি-জঙ্গিদের বিরুদ্ধে কঠোর দমনমূলক অভিযান চালানোর ঘোষণা দেয়ার পরও জঙ্গি সংগঠন জইশ-ই-মোহাম্মদ (জেইএম) নিজেদের বিদ্বেষমূলক বার্তা ছড়িয়ে যাচ্ছে বলে মঙ্গলবার দাবি করেছিল এনডিটিভি।

এনডিটিভি জানায়, পাকিস্তানভিত্তিক নিষিদ্ধ ঘোষিত জেইএম’র সাপ্তাহিক পত্রিকা আল কালাম এখনো ইন্টারনেটে পড়া যাচ্ছে। আর তাতে ‘সাদী’ ছদ্মনামে লেখা প্রায় আড়াইশ’র বেশি প্রবন্ধ রয়েছে।

এই ছদ্মনামটি জইশের প্রধান মাসুদ আজহারের বলে দাবি করা হয়েছে। জইশ প্রধান আজহারের বিরুদ্ধে ভারতে হওয়া একাধিক জঙ্গি হামলার পরিকল্পনার অভিযোগ রয়েছে।

আল কালামে শেষ প্রবন্ধটি আপলোড হয়েছিল ২৭ ফেব্রুয়ারি। এর ঠিক একদিন আগেই পাকিস্তান নিয়ন্ত্রিত আজাদ কাশ্মীরের বালাকোটে জইশের মূল ঘাঁটিতে আঘাত হানে ভারতের একটি মিগ-২১ যুদ্ধবিমান। বিমান হামলার বিষয়টি তুলে ধরে ওই প্রবন্ধে লেখা হয়েছে: ‘ভারত যেন না ভাবে আমরা ভয় পাচ্ছি’।