চ্যানেল আই অনলাইন
হৃদয়ে বাংলাদেশ প্রবাসেও বাংলাদেশ

পরিবারের সাথে মিলেছে যুক্তরাষ্ট্রের ১৮০০ অভিবাসী শিশু

যুক্তরাষ্ট্রের ১ হাজার ৮০০-রও বেশি অভিবাসী শিশু তাদের পরিবারের সাথে আবারও একত্রিত হতে পেরেছে।

বিজ্ঞাপন

মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের প্রশাসন জানায়, আদালতের দেওয়া ডেডলাইন অনুযায়ী এই পুনরেকত্রীকরণ সম্পন্ন হয়।

এরমধ্যে ১ হাজার ৪৪২ জন শিশু যুক্তরাষ্ট্রের ইমিগ্রেশন এবং কাস্টমস ইনফোর্সমেন্ট (আইসিই) কাস্টডিতে তাদের পরিবারের কাছে ফিরবে এবং বাকি ৩৭৮ জনকে ‘উপযুক্ত পরিস্থিতিতে’ মুক্তি দেয়া হবে।  আদালতে জমা দেওয়া নথিতে এমনটি জানানো হয়েছে।

কিন্তু ৭০০ এর অধিক শিশু তাদের পরিবারের কাছে ফিরে যাওয়ার জন্য ‘যোগ্য’ নয় বলে বিবেচিত হয়েছে, যাদের ৪৩১ জনের বাবা-মা এখন আর যুক্তরাষ্ট্রে নেই।

এর আগে চলতি বছরের শুরুর দিকে মেক্সিকো সীমান্তে যুক্তরাষ্ট্র সরকার অবৈধ অভিবাসীদের বিরুদ্ধে ‘জিরো টলারেন্স’ নীতিতে অভিযান শুরু করে।

বিজ্ঞাপন

কর্মকর্তারা আড়াই হাজারেরও বেশি শিশুকে তাদের বৈধ কাগজপত্রহীন পরিবারের কাছ থেকে বিচ্ছিন্ন করে।

কিন্তু গত মাসেই তীব্র সমালোচনার মুখে প্রেসিডেন্ট ট্রাম্প এই অভিযান বন্ধ করেন।

আদালতের একটি আদেশে ট্রাম্প প্রশাসনকে ৫ থেকে ১৭ বছর বয়সী সকল শিশুকে মুক্ত করে দেওয়ার জন্য ডেডলাইন বেঁধে দেয়।

সান ডিয়েগো ফেডারেল বিচারক গত মাসে রুল জারি করেন, পরিবার থেকে বিচ্ছিন্ন সকল শিশুকে ২৬ জুলাইয়ের মধ্যে তাদের পরিবারের হাতে তুলে দিতে হবে।

এই মাসের শুরুতেই ট্রাম্প প্রশাসন ৫ বছরের কম বয়সী শতাধিক অভিবাসী শিশুকে তাদের পরিবারের সাথে মিলিয়ে দেয়, যদিও তা আদালতের বেধে দেওয়া ডেডলাইন অনুযায়ী সম্পন্ন হয়নি।

অবৈধভাবে যুক্তরাষ্ট্রে প্রবেশের পর এদের গ্রেপ্তার করা হয়।  নিজ দেশ এল সালভাদর, গুয়েতেমালা এভং হন্ডুরাসে সহিংসতার জন্য পালিয়ে আসার কথা জানায় তারা।

অবৈধভাবে আসা শিশুদের দেশজুড়ে বিভিন্ন যত্নকেন্দ্রে পাঠিয়ে দেওয়া হয় এবং প্রাপ্তবয়স্কদের আটক করা হয়।