চ্যানেল আই অনলাইন
হৃদয়ে বাংলাদেশ প্রবাসেও বাংলাদেশ

পটুয়াখালী মেডিকেল কলেজ স্থানান্তর চেষ্টা প্রতিরোধে মানববন্ধন

পটুয়াখালী মেডিকেল কলেজের (পমেক) জন্য নির্ধারিত স্থান পরিবর্তনের প্রতিবাদে  মানববন্ধন ও সংবাদ সম্মেলন করেছে ঢাকাস্থ ‘পটুয়াখালী মেডিকেল কলেজ স্থানান্তর ষড়যন্ত্র প্রতিরোধ আন্দোলন কমিটি’।

শুক্রবার জাতীয় প্রেসক্লাবের সামনে মানববন্ধন ও ঢাকা রিপোর্টার্স ইউনিটিতে সংবাদ সম্মেলন অনুষ্ঠিত হয়।

বিজ্ঞাপন

সংবাদ সম্মেলনে জাননো হয়, ‘পটুয়াখালী মেডিকেল কলেজের (পমেক) জন্য নির্ধারিত স্থান ১৯৬৭ সালে পটুয়াখালী জেলা শহরের জন্য তৈরি করা মাস্টার প্ল্যানের বাস্তবায়ন। স্বাধীনতার পর ৫০ শয্যা বিশিষ্ট হাসপাতাল দেখতে গিয়ে বঙ্গবন্ধু এখানে মেডিকেল কলেজ করার কথা বলেছিলেন।

২০১৫ সালের ১০ জানুয়ারি ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ২৫০ শয্যা বিশিষ্ট জেনারেল হাসপাতালকে মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে উন্নীত করার ঘোষণাসহ কলেজের শুভ উদ্বোধন করেন।

বর্তমানে মেডিকেল কলেজে তিনটি ব্যাচের শিক্ষা কাযক্রম চলমান রয়েছে। বিভিন্ন ভবন নির্মাণে গত ফেব্রুয়ারিতে একনেক সভায় ৫৮৪ কোটি টাকা অনুমোদন দেয়া হয়। এরপর গণপূর্ত বিভাগের মাধ্যমে উক্ত স্থানে দুটি ভবন নির্মানের জন্য দরপত্র ডাকা হয়।

এসময় কলেজের অবকাঠামো নির্মানে হাসপাতাল সংলগ্ন জেলা জজ আদালতের উত্তর পাশের বড় পুকুর ভরাট করা হয়।

বিজ্ঞাপন

এমতাবস্থায় বৃহৎ জনগোষ্ঠীর সুযোগ-সুবিধার বিষয়টি জলাঞ্জলি দিয়ে এলাকার উন্নয়ন ব্যাহত করে শুধুমাত্র পারিবারিক স্বার্থে একটি কুচক্রী মহল স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ে কলেজের বর্তমান স্থানের পরিবর্তন চেয়ে ৬ কি. মি. দূরে বহালগাছিয়ায় বিরোধপূর্ণ জমির উপর মেডিকেল কলেজ স্থানান্তরের প্রস্তাব পাঠায়।

এই প্রস্তাবনার প্রেক্ষিতে স্থান পরিদর্শন করে প্রতিবেদন দাখিলের জন্য স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা মন্ত্রণালয়ের অতিরিক্ত সচিবকে (উন্নয়ন) প্রধান করে পাঁচ সদস্যের একটি দল গঠন করে স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ মন্ত্রণালয়ের স্বাস্থ্যসেবা বিভাগের উপ-সচিব স্বাক্ষরিত একটি চিঠি ইস্যু করা হয়।

এই চিঠির সূত্র ধরে দল-মত নির্বিশেষে পটুয়াখালী শহর তথা জেলাবাসীর মধ্যে ব্যাপক প্রতিক্রিয়ার সৃষ্টি হয়। মেডিকেল কলেজ স্থানান্তরের বিরুদ্ধে যেকোন ষড়যন্ত্র মোকাবেলায় পটুয়াখালীবাসী ঐক্যবদ্ধ হয়ে আন্দোলন করতে পথে নেমে আসে।

গত ২৫ এপ্রিল মেডিকেল কলেজ প্রাঙ্গণে দশ হাজারেরও বেশী মানুষ সমবেত হয়ে মানববন্ধন করে এবং মানববন্ধন শেষে জেলা প্রশাসকের মাধ্যমে মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর বরাবরে স্মারকলিপি প্রদান করে।’

এরই ধারাবাহিকতায় ঢাকাস্থ ‘পটুয়াখালী মেডিকেল কলেজ স্থানান্তর ষড়যন্ত্র প্রতিরোধ আন্দোলন কমিটি’ এই কর্মসূচির আয়োজন করে।

সংবাদ সম্মেলনে তারা বর্তমান স্থান থেকে মেডিকেল কলেজ কেন সরানো উচিৎ নয় সে সম্পর্কিত কিছু বিষয় তুলে ধরেন।