চ্যানেল আই অনলাইন
হৃদয়ে বাংলাদেশ প্রবাসেও বাংলাদেশ

নূর হোসেনের জন্য প্রস্তুত প্রশাসন

শিগগিরই নূর হোসেনকে ভারত থেকে ফেরত আনা হচ্ছে বলে জানিয়েছেন স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান কামাল। নারায়ণগঞ্জের চাঞ্চল্যকর অপহরণ ও সাত খুনের মামলার প্রধান আসামি সাবেক ওয়ার্ড কাউন্সিলার নূর হোসেনকে ফেরত পাঠাতে প্রক্রিয়া চালাচ্ছে ভারত সরকার।

একথা জানিয়ে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী বলেছেন, যেকোনো সময় ফেরত পাঠানো হবে। আর পুলিশও প্রস্তুত রয়েছে তাকে গ্রহণ করার জন্য।

স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, নূর হোসেনকে যেকোনো সময় ফেরত দেবে ভারত। আমাদের সঙ্গে দু’একবার কথা হয়েছে। হয়তো তাদের কোনো জটিলতার জন্য দেরি হচ্ছে। তবে সীমান্তে আমাদের লোকজন প্রস্তুত রয়েছেন। সর্বশেষ অবস্থা আপনারা পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় থেকে জানতে পারবেন। তারা জানালে আমরা ফেরত নিতে প্রস্তুত আছি।

কী প্রক্রিয়ায় তাকে ফেরত নেওয়া হবে জানতে চাইলে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, যেকোনো একটি প্রক্রিয়ায় তাকে ফেরত নেওয়া যেতে পারে।

বর্তমানে পশ্চিমবঙ্গের দমদম জেলে বন্দি নূর হোসেনকে পুশ-ব্যাক ফর্মুলায় ফেরত দিতে ভারত ইতোমধ্যেই প্রক্রিয়া শুরু করেছে বলে সংবাদ মাধ্যমে খবর প্রকাশ করা হয়েছে।

নূর হোসেন আর তার অপর দুই সহযোগীর বিরুদ্ধে অনুপ্রবেশের মামলা চলছে এক বছরেরও বেশি সময় ধরে চলছে উত্তর চব্বিশ পরগনার জেলা আদালতে। সোমবার ওই মামলার শুনানি অনুষ্ঠিত হওয়ার কথা থাকলেও অপর দুই আসামি আদালতে হাজির না হওয়ায় শুনানি হয়নি।

আদালত ২১ সেপ্টেম্বর পরবর্তী শুনানির দিন ধার্য করেছেন। সেখানেই মামলা তুলে নেওয়ার আবেদন জানিয়েছেন উত্তর চব্বিশ পরগনার প্রধান সরকারি আইনজীবী শান্তময় বসু।

স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, অনুপ্রবেশের মামলায় দমদম জেলে রয়েছেন নূর হোসেন। অভিযোগ প্রত্যাহার করা হলে তাকে দেশে ফিরিয়ে আনার ক্ষেত্রে আর কোনো বাধা থাকছে না।

গত বছরের ২৭ এপ্রিল নারায়ণগঞ্জ সিটি করপোরেশনের প্যানেল মেয়র ও ২ নম্বর ওয়ার্ডের কাউন্সিলার নজরুল ইসলাম এবং আইনজীবী চন্দন কুমার সরকারসহ সাতজন অপহৃত হন। 

এরপর ৩০ এপ্রিল শীতলক্ষ্যা নদীতে ভেসে ওঠা ছয়জনের মরদেহ উদ্ধার করে পুলিশ। পরদিন আরও একজনের মরদেহ পাওয়া যায় নদীতে।

অপহরণের পরপরই নজরুলের পরিবারের পক্ষ থেকে সিদ্ধিরগঞ্জ থানা আওয়ামী লীগের সহ সভাপতি ও নারায়ণগঞ্জ সিটি করপোরেশনের ৪ নম্বর ওয়ার্ডের সে সময়কার কাউন্সিলার নূর হোসেনকে প্রধান আসামি করে হত্যা মামলা দায়ের করা হয়।

একই সংবাদ সম্মেলনে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, র‌্যাবের বিলুপ্তির প্রয়োজন নেই। তারা দায়িত্ব পালনে সফল। দুই-একটি বিচ্ছিন্ন ঘটনা ছাড়া তারা আইন অনুসারেই কাজ করছে।

FacebookTwitterInstagramPinterestLinkedInGoogle+YoutubeRedditDribbbleBehanceGithubCodePenEmail