চ্যানেল আই অনলাইন
হৃদয়ে বাংলাদেশ প্রবাসেও বাংলাদেশ

নির্বাচনী উত্তেজনার ধাক্কায় ডিজিটাল সেবায় ধস

আসন্ন জাতীয় সংসদ নির্বাচনের ধাক্কায় নড়ে উঠেছে বাংলাদেশে ডিজিটাল সেবার ব্যবসা। নির্বাচনের আগে আগে অপ্রত্যাশিতভাবে ব্যবসার পরিসর কমে যাচ্ছে।

বিজ্ঞাপন

৩০ ডিসেম্বরের নির্বাচনে এবার ডিজিটাল প্রচারণায় মুখর ছিল রাজনৈতিক দলগুলো। ফলে ডিজিটাল শিল্পে লাভের পরিমাণ বাড়তে থাকলেও শেষ মুহূর্তে এসে সেই লাভ হঠাৎ করেই কমতে শুরু করেছে।

হোলসেল ব্যান্ডউইথ সরবরাহকারী ‘ফাইবার এট হোম’ ও নানা ব্যবসায়ীক সূত্রে এসব তথ্য জানা গেছে।

মোবাইল অপারেটর, ব্রডব্যান্ড ইন্টারনেট সেবাদানকারী, মোবাইল হ্যান্ডসেট কোম্পানি থেকে শুরু করে পাইকারি ব্যান্ডউইথ সরবরাহকারী সবাই-ই বলছেন, ব্যবসার দিক থেকে চলতি বছরের সবচেয়ে খারাপ সময় তাদের যাচ্ছে এই ডিসেম্বর মাসে।

ব্যবসায়ীরা জানান, মোবাইল নেটওয়ার্ক এবং ব্রডব্যান্ড, উভয় মাধ্যমেই ডেটা ব্যবহার ডিসেম্বর মাসে উল্লেখযোগ্য হারে কমে গেছে।

উদাহরণ হিসেবে বলা যায়, বাংলাদেশে সবচেয়ে বেশি ব্যবহৃত সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকের ব্যবহার গত মাসের তুলনায় চলতি মাসে ৩০ শতাংশ কমে গেছে।

বিজ্ঞাপন

হোলসেল ব্যান্ডউইথ সরবরাহকারী ফাইবার এট হোম-এর দেয়া তথ্য অনুসারে, নভেম্বরে তাদের কাছ থেকে নেয়া ডেটা ফেসবুকে ব্যবহৃত হয়েছিল ২৮ জিবিপিএস (গিগাবিট/সেকেন্ড)। কিন্তু চলতি সপ্তাহে তা নেমে ১৮ জিবিপিএসে দাঁড়িয়েছে।

অন্যদিকে মোবাইল ইন্টারনেটের ক্ষেত্রেও ব্যবহার কমে যাওয়ার ফলে সার্বিকভাবে কোম্পানিগুলোর আয় ডিসেম্বরে ৫ থেকে ৭ শতাংশ কমে গেছে।

সাধারণত বছরের শেষ প্রান্তিক হয় রাজস্ব আয়ের সময়। কিন্তু এ বছর তা উল্টো হয়ে গেল। ডিজিটাল সেবাদানকারী প্রতিষ্ঠানগুলো নির্বাচনে ডিজিটাল প্রচারণা বাড়তির দিকে দেখে আশা করেছিল শেষ ২/১ মাসে আয় বাড়বে অন্তত ১০ শতাংশ। কিন্তু লাভ ঘুরে ডিসেম্বরে তা লোকসানের দিকে এগিয়ে যাচ্ছে।

শুধু মোবাইল ডেটা নয়, ভয়েস কল সেবা থেকেও আয় অস্বাভাবিকভাবে কমে গেছে। শুধু একমাসের ব্যবধানে যা এর আগে দেখা যায়নি।

মোবাইল হ্যান্ডসেট বিক্রিও কমে গেছে লক্ষ্যণীয় হারে। মোবাইল ব্যবসায়ীরা জানান, নভেম্বরের তুলনায় ডিসেম্বরে মোবাইল বিক্রি ৩০ থেকে ৪০ শতাংশ পর্যন্ত কমে গেছে। এমনিতেই গত ৫ বছরের মধ্যে সবচেয়ে কম হ্যান্ডসেট বিক্রি হয়েছে ২০১৮’তে। আর ডিসেম্বরে এসে বিক্রি যাচ্ছে উল্টোদিকে।

ব্যবসায়ীদের ধারণা, কী বলতে গিয়ে কী বলে ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনের আওতায় পড়তে হবে, এই ভয় থেকেই ডিজিটাল সেবা গ্রহণ কমিয়ে দিয়েছে জনগণ। নির্বাচনের আগে আগে সেই ভয় আরও বেশি কাজ করছে তাদের মাঝে।

এছাড়াও বাংলাদেশ সরকার বেশকিছু ওয়েবসাইট এবং পোর্টাল ব্লক করে দেয়ায় দেশের গুগল ব্যবহারকারীদের অনেকে গত সপ্তাহ দুয়েক ধরে জিমেইল, গুগল অ্যাডস এবং গুগল ড্রাইভ ব্যবহারে সমস্যার মুখে পড়ছেন। এটাও ব্যবসা কমে যাওয়ার আরেকটি কারণ বলে মনে করছেন সংশ্লিষ্টরা।

ই-কমার্স ওয়েবসাইটগুলো এখনো তাদের ব্যবসা কমার তথ্য সরাসরি প্রকাশ না করলেও আশঙ্কা করছে, আগামী কয়েকদিন তাদের অর্ডার পাওয়ার পরিমাণ অনেকখানিই কমে যাবে।