চ্যানেল আই অনলাইন
হৃদয়ে বাংলাদেশ প্রবাসেও বাংলাদেশ

নিজ হাতে বানানো স্বপ্নের মুসা প্রাসাদ

বিজ্ঞাপন

মুসা প্রাসাদটি লেবানানের দেইর আল কামার ও বিটিডডাইন পাহাড়ের মাঝে অবস্থিত। মাত্র ১৪ বছর বয়সেই মামারী নিজের প্রাসাদ তৈরির পরিকল্পনা করেছিলেন। মামারীর ছেলে জিয়াদ আল মামারী বলেন, বাবা একদিন স্কুলে একটি প্রাসাদের ছবি আঁকেন। কিন্তু তাঁর শিক্ষক সেই ছবিটি ছিঁড়ে ফেলেন। মামারী সেই ছেঁড়া টুকরোগুলো কুড়িয়ে নেন এবং বাস্তবে প্রাসাদটি করার প্রতিজ্ঞা করেন। মামারী প্রাসাদটিতে তাঁর ছোটবেলার সেই ঘটনাটিও তুলে ধরেছেন। পরিকল্পনা অনুযায়ি ১৯৬২ সালে মামারী তার স্বপ্নের প্রাসাদটির ভিত্তি স্থাপন করেন। লেবাননের শাসক আমির বাশির শিহাব দ্বিতীয়কে উৎসর্গ করে প্রাসাদটি নির্মাণ করেছিলেন। ইট ও খোদাইকৃত নকশার মাধ্যমে ৩৫০০ বর্গফুটের প্রাসাদটি তৈরি করেন।  প্রতিটি পাথরে রয়েছে ভিন্ন ভিন্ন নকশা। প্রাসাদটিতে ৩০ এর অধিক কক্ষ রয়েছে এবং ১৫০ টির অধিক মূর্তি। প্রতিটি মূর্তি মামারী নিজ হাতেই তৈরি করেছেন। যেখানে লেবাননের সামাজিক, ঐতিহাসিক ও গ্রামীণচিত্র ফুটিয়ে তোলা হয়েছে। প্রাসাদটি নর্মিাণের সময় মামারী প্রবেশ দরজাটি ছোট করে তৈরি করেছিলেন যেন তাঁর শিক্ষকরা ভেতরে প্রবেশ করার সময় মাথা নিচু করে প্রবেশ করে। প্রাসদটির দরজায় লেখা আছে, আমি এখানে তরুণ হিসেবে প্রবেশ করেছি এবং বুড়ো হয়ে বের হয়েছি। ১৯৬৯ সালে জনসাধারণের জন্য উন্মুক্ত হওয়ার পর পর্যটকদের কাছে আকর্ষণীয় স্থান হয়ে উঠেছে। প্রতিদিন প্রায় ১০০০ জন পর্যটক বেড়াতে আসেন।