চ্যানেল আই অনলাইন
হৃদয়ে বাংলাদেশ প্রবাসেও বাংলাদেশ

দেশে পাইকারি হারে নারী নির্যাতন চলছে: রিজভী

দেশে পাইকারী হারে নারী নির্যাতন চলছে বলে মন্তব্য করেছেন বিএনপির জ্যেষ্ঠ যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী। শনিবার রাজধানীর নয়াপল্টন বিএনপির কেন্দ্রীয় কার্যালয়ের সামনে মহিলা দল আয়োজিত এক মানববন্ধন কর্মসূচিতে তিনি এ মন্তব্য করেন।

বিজ্ঞাপন

কিশোরগঞ্জের বাজিতপুরে চলন্ত বাসে নার্স শাহিনুর আক্তার তানিয়াকে গণধর্ষণ ও হত্যাকারীদের সর্বোচ্চ শাস্তি ও ফাঁসির দাবিতে এ মানববন্ধন অনুষ্ঠিত হয়। রুহুল কবির রিজভী বলেন: বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী ও স্পিকার নারী। অথচ কি দুর্ভাগ্যের বিষয়- পাইকারি হারে নারী নির্যাতন চলছে।

যখন থেকে তারা ক্ষমতায় এসেছেন তখন থেকে তারা এটা করছে। আর নারী নির্যাতন নির্মূল করার দায়িত্ব সরকারের। কিন্তু নির্মূল করা তো দূরে থাক, আমরা অনেক সময় উস্কানি দিতে দেখেছি। নারী ও শিশু নির্যাতনের বিষয়ে তিনি বলেন, যারা এই কাজগুলো করছে, তারা অধিকাংশ ক্ষমতাসীন দলের লোক।

বিজ্ঞাপন

আর ক্ষমতাসীন দলের লোক বলেই তারা পার পেয়ে যাচ্ছে। তারা সরকারের আনুকূল্য পাচ্ছে। আর আনুকূল্য পাচ্ছে বলেই এই সামাজিক অপরাধ সরকার ঠেকাতে পারছে না। বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য সালাউদ্দিন আহমেদের নিখোঁজ হওয়ার বিষয়ে রিজভী বলেন, আজ সালাউদ্দিন আহমেদের গুম দিবস।

আজকে তিনি ভারতে কেনো? কারণ তিনি মেধাবী ছাত্র বলে, তিনি রাজধানী করতেন, পরে তিনি রাজনীতিতে যোগ দিয়েছেন, মন্ত্রী হয়েছেন এবং কয়েকবার এমপিও ছিলেন। কিন্তু এক অন্ধকারের মৃত্যুকূপের মধ্যে তাকে ফেলে দিয়ে রাখা হয়েছে। আজ সেখানে তিনি এক মানবতার জীবন-যাপন করছেন। এখন তার নামই হয়ে গেছে গুম সালাউদ্দিন। বিএনপির এই মুখপাত্র বলেন, গত আড়াই হাজার বছরে মধ্যে মতপ্রকাশের স্বাধীনতার জন্য একজন জীবন দিয়েছিলেন। তিনি হলেন, গ্রিক দার্শনিক সক্রেটিস।

তিনি তার কথা ও সত্য উচ্চারণ থেকে দ্বিধান্বিত হননি। আর আড়াই হাজার বছর পরে আরেকজন, তিনি হলেন-বিএনপি চেয়ারপার্সন বেগম খালেদা জিয়া। তিনি মতপ্রকাশের স্বাধীনতার জন্য কারাগারে জীবন-মৃত্যুর সন্ধিক্ষণে দিন পার করছেন। এরপরও তার মাথাকে নত করা যায়নি।

আজকে ক্ষমতাসীনরা গণতন্ত্রকে অবরুদ্ধ করে রেখেছে বলেও মন্তব্য করেন রুহুল কবির রিজভী। আয়োজক সংগঠনের সভাপতি আফরোজা আব্বাসের সভাপতিত্বে ও মহিলা দলের সাধারণ সম্পাদক সুলতানা আহমেদের সঞ্চালনায় মানববন্ধনে সংগঠনটির নেত্রী জেবা খান, হেলেন জেরিন খান প্রমুখ বক্তব্য রাখেন।