চ্যানেল আই অনলাইন
হৃদয়ে বাংলাদেশ প্রবাসেও বাংলাদেশ

দেশের একজন মানুষও গৃহহারা থাকবে না: প্রধানমন্ত্রী

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, বঙ্গবন্ধুর নেতৃত্বে দেশ স্বাধীন করা আওয়ামী লীগ সরকার ক্ষমতায় থাকাকালে স্বাধীন বাংলাদেশের একজন মানুষও গৃহহারা থাকবে না। প্রত্যেক মানুষের জন্য মাথা গোঁজার ঠাঁই করে দেয়া হবে।

বিজ্ঞাপন

অকাল বন্যায় ক্ষতিগ্রস্ত হাওর এলাকা পরিদর্শনে নেত্রকোনার খালিয়াজুরীতে গিয়ে তিনি এসব কথা বলেন।

তিনি বলেন, ‘আমি জানি, কারণ আমিও নদীভাঙ্গা এলাকার মানুষ। প্রতিনিয়ত নদী ভাঙ্গে, এবং এতে বহু মানুষ গৃহহারা হয়। কিন্তু কেউ যখনই যারা গৃহহারা হবে, তাদেরকে ঘর করে দেয়া হবে। একটি টিনের ঘর হলেও আমরা করে দেবো। এজন্য সরকার কাজ করে যাচ্ছে।’

একটি বাড়ি একটি খামার প্রকল্প বাস্তবায়ন সম্পর্কে প্রধানমন্ত্রী বলেন, একেকটি পরিবার কী কাজ করতে চায় তা তাদের কাছ থেকে শুনে সে অনুযায়ী আর্থিক সহায়তা দেয়া হচ্ছে। সেখান থেকেই মানুষ অর্থ উপার্জন করতে পারবে।

এ কাজের মধ্য দিয়ে যদি একেকজন মানুষ ২শ’ টাকাও জমাতে পারে তাহলে সরকার তাকে আরও ২শ’ টাকা দেবে। এভাবে সরকার দু’বছর পর্যন্ত সহায়তা দেবে বলে জানান প্রধানমন্ত্রী।

বিজ্ঞাপন

‘সেই টাকা রাখার জন্য আমরা পল্লী সঞ্চয় ব্যাংক করে দিয়েছি। ওই ব্যাংকের মাধ্যমে পরবর্তীতে কারও মুখাপেক্ষী হয়ে নয়, নিজের অর্থ দিয়ে নিজের ব্যবসা বাণিজ্য হোক, কুটিরশিল্প হোক, যে কাজই হোক, নিজে করে নিজের পায়ে দাঁড়াবেন, দারিদ্র্যের হাত থেকে থেকে মুক্তি পাবেন। সেই পদক্ষেপই নেয়া হয়েছে একটি বাড়ি একটি খামার প্রকল্পের মাধ্যমে।’

এছাড়া যুবসমাজের জন্য কর্মসংস্থান ব্যাংক করে দেয়ার প্রসঙ্গ উল্লেখ করেন প্রধানমন্ত্রী। তিনি বলেন, এর অধীনে কোনো জামানত ছাড়াই ২ লাখ টাকা ঋণ নিতে পারবে যুবকরা। এই ঋণ দিয়ে ক্ষুদ্র ব্যবসা করে বেকারত্বের অভিশাপ থেকে তারা মুক্তি পাবে বলে আশা প্রকাশ করেন তিনি।

হাওরাঞ্চলে শিক্ষা ব্যবস্থার বিষয়ে প্রধানমন্ত্রী বলেন, হাওর এবং পাহাড়ি অঞ্চলে ছেলেমেয়েদের শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে যাতায়াত করা কঠিন। বিশেষ করে বর্ষার সময় হাওরগুলোতে সাগরের মতো ঢেউ ওঠে। সে কারণে হাওরাঞ্চলে শিক্ষার্থীদের জন্য আবাসিক স্কুল নির্মাণের প্রতিশ্রুতি দিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী। যেন সেসব স্কুলে বসবাস করেই ছেলেমেয়েরা লেখাপড়া শিখতে পারে। সেদিকে লক্ষ্য রেখেই সরকার বিভিন্ন পদক্ষেপ নিচ্ছে।

বর্তমান সরকার শিক্ষাকে গুরুত্ব দেয় জানিয়ে প্রধানমন্ত্রী বলেন,  চলতি বছর জানুয়ারি মাসে প্রায় ৪ কোটি ২৬ লাখ ৩৫ হাজার ৯৩৭ জন শিক্ষার্থীর মাঝে ৩৬ কোটি ২১ লাখ ৪২ হাজার ২৪৫টি বই সরকারের পক্ষ থেকে বিনামূল্যে বিতরণ করা হয়েছে।

‘বাবা-মাকে এখন আর পয়সা খরচ করে বই কিনতে হয় না। আপনাদের ছেলেমেয়েদের লেখাপড়ার জন্য বই কেনার দায়িত্ব আমরা নিয়েছি। তাছাড়া আমরা উপবৃত্তিও দিচ্ছি।’

বিভিন্ন এলাকায় হাসপাতালের শয্যাসংখ্যা বাড়ানো হয়েছে উল্লেখ করে প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘প্রতিটি উপজেলায় আমরা সরকারি স্কুল ও কলেজ করে দিচ্ছি একটি করে। তেমনি একটি করে মসজিদও আমরা করে দেবো।’