চ্যানেল আই অনলাইন
হৃদয়ে বাংলাদেশ প্রবাসেও বাংলাদেশ

দাপট দেখিয়ে জিতল সাকিবের ঢাকা

ব্যাটিংয়ের পর বোলিংয়েও দাপট দেখিয়ে সহজ জয়ে বিপিএল শুরু করল ঢাকা ডায়নামাইটস। শের-ই-বাংলা স্টেডিয়ামে রাতের ম্যাচে মেহেদী হাসান মিরাজের রাজশাহী কিংসকে ৮৩ রানে হারিয়েছে সাকিব আল হাসানের দল।

বিজ্ঞাপন

ঢাকার দেয়া ১৯০ রানের বড় লক্ষ্যে ব্যাটিংয়ে নেমে পাল্টা জবাব দিতে পারেনি রাজশাহী। শুরু থেকেই নিয়মিত বিরতিতে উইকেট হারিয়ে ধুঁকতে থাকা দলটি শেষপর্যন্ত তুলতে পেরেছে ১০৬ রান।

দুই দলের মাঝে বড় পার্থক্য ইনিংসের সূচনায়। ৯ ওভারে বিনা উইকেটে ১০০ রান তোলে ঢাকা। বিপরীত রাজশাহী ৯.৫ ওভারে তোলে মাত্র ৫৯ রান, হারাতে হয় ৬ উইকেট। মিরাজের দলের আশারবাতি অবশ্য নিভে যায় আরও আগেই। পঞ্চম ব্যাটসম্যান হিসেবে মোহাম্মদ হাফিজ (২৯) যখন সাজঘরে ফেরেন।

বড় লক্ষ্য ছুঁতে দরকার ছিল পাওয়ার-প্লে কাজে লাগানো। কিন্তু প্রথম ৬ ওভারে রাজশাহী তুলতে পারে ২ উইকেট হারিয়ে ৪৭ রান। পরে রুবেল হোসেনের তোপে বিপদ বাড়ে পদ্মাপাড়ের দলটির। টাইগার পেসার দ্রুত তিন উইকেট তুলে নিয়ে ম্যাচ বানিয়ে ফেলেন একপেশে।

মুমিনুলকে ফিরিয়ে শুরুতে আঘাত হানেন সাকিব। হাফিজের সঙ্গে ওপেনিংয়ে জুটি গড়ে ভালই খেলছিলেন এ বাঁহাতি। ইনিংসের তৃতীয় ওভারে মিজানুর রহমানের হাতে ক্যাচ দেয়ার আগে এক বাউন্ডারিতে করেন ৫ বলে ৮ রান। ২.৩ ওভারে রাজশাহীর রান তখন ২৪। শুরুর ওটুকু সময়ই কেবল ম্যাচে ছিল রাজশাহী।

পরে একে একে সৌম্য সরকার (৪), লরি ইভান্স (১০), জাকির হাসান (২) সাজঘরে ফিরলে বিষাদের ছায়া নামে কিংস ডাগআউটে। ব্যাটসম্যানদের আসা-যাওয়া অব্যাহত থাকে শেষ অবধি। ঢাকার বোলারদের তোপে ইনিংসের ১০ বল আগেই গুটিয়ে যায় রাজশাহী।

বিজ্ঞাপন

৩ ওভারে মাত্র ৭ রান দিয়ে ৩ উইকেট নেন বাংলাদেশ টি-টুয়েন্টি দলে ব্রাত্য রুবেল হোসেন। বিপিএলে অভিষিক্ত মোহর শেখ অন্তর নিয়েছেন দুটি উইকেট। সাকিব, আন্দ্রে রাসেল, কাইরেন পোলার্ড ও শুভাগত হোম নেন একটি করে উইকেট।

এর আগে বিপিএলের উদ্বোধনী ম্যাচে রানখরা দেখে মিরপুরে আসা দর্শকরা হয়ত ভাবেননি সন্ধ্যায় ফ্ল্যাডলাইটের আলোয় সাকিবের দল দেখাবে চার-ছক্কার ঝলকানি। দুপুরে চট্টগ্রাম ভাইকিংসের বিপক্ষে মাত্র ৯৮ রান নিয়েও শেষ ওভার পর্যন্ত লড়েছে রংপুর রাইডার্স। রাতের ম্যাচে রাজশাহী কিংসের বিপক্ষে ৯ ওভারেই ঢাকা ডায়নামাইটস তুলে ফেলে ১০০ রান। একই উইকেটে দিন ও রাতের ম্যাচে দেখা যায় বিপরীত চিত্র।

বিনা উইকেটে শতরান পাড়ি দেয়া ঢাকা দুইশ ছোঁয়ার দারুণ সম্ভাবনা জাগালেও পারেনি ২০ রানের মধ্যে ৫ উইকেট হারিয়ে।

হযরতউল্লাহ জাজাই ও সুনিল নারিন মিলে ওপেনিং জুটিতে উপহার দেন ১১৬ রান। পরে নিয়মিত বিরতিতে উইকেট হারালে রান তোলার গতি কিছুটা কমে আসে।

২৮ বলে ৩৮ করে প্রথম ব্যাটসম্যান হিসেবে সাজঘরে ফেরেন নারিন। ৪১ বলে ৭৮ রানের অসাধারণ ইনিংস খেলে ফেরেন হযরতউল্লাহ। দুই ওপেনার সাজঘরে ফেরার পর কাইরেন পোলার্ড (৩), অধিনায়ক সাকিব আল হাসান (২), নুরুল হাসান সোহান (১) রানের চাকা ঘোরাতে গিয়ে উইকেট বিলিয়ে আসেন।

শেষে শুভাগত হোম ব্যাটে ঝড় তুললে ১৮৯ রানের লড়াকু পুঁজি পায় ঢাকা। শুভাগত ১৪ বলে ৩৮ ও রাসেল ১৯ বলে ২১ রান করে অপরাজিত থাকেন। ষষ্ঠ উইকেটে ২৮ বলে ৫৩ রানের অবিচ্ছিন্ন জুটি গড়েন দুজনে।

আরাফাত সানি নিয়েছেন দুটি উইকেট। একটি করে উইকেট নিয়েছেন মেহেদী হাসান মিরাজ, আরাফাত সানি ও কায়েস আহমেদ। ৩ ওভারে ৫৩ রান দিয়ে উইকেটহীন ছিলেন এক মৌসুম পর বিপিএলে ফেরা আলাউদ্দিন বাবু।