চ্যানেল আই অনলাইন
হৃদয়ে বাংলাদেশ প্রবাসেও বাংলাদেশ

‘তুমি কলম দিয়েই প্রেম ছড়াও, কলমকেই বন্দুক বানাও’

শুধু বাংলার নয়, বিশ্বের সমস্ত ন্যায্য দাবী দাওয়ার পক্ষে প্রতিনিয়ত গানে সুরে কণ্ঠেই প্রতিরোধে নামেন শিল্পী কবীর সুমন। এটা তার পুরনো অভ্যেস। ভারত-পাকিস্তানের মধ্যে চলমান সাম্প্রতিক ইস্যু নিয়েও বহুবার কথা বলেছেন এই সংগীত স্রষ্ঠা। কিন্তু এবার প্রতিবাদের অস্র করলেন নিজের লেখা ও সুরের গান। যা প্রশংসায় ভাসছে সমস্ত বাংলায়।

বিজ্ঞাপন

সম্প্রতি ভারতের জম্মু-কাশ্মীর রাজ্যের পুলওয়ামার অবন্তীপুররে সিআরপিএফের গাড়িবহরে পাকিস্তানের জঙ্গিদের হামলার ঘটনায় কেঁদে উঠে সারা ভারতবর্ষ। তার কিছুদিন পরেই পুলওয়ামার বদলা নেয় ভারতীয় বিমান বাহিনী। পাকিস্তানের ভূখণ্ডে ঢুকে ১২টি যুদ্ধবিমান থেকে ফেলা হয় ১০০০ কেটি বোমা। উড়িয়ে দেয়া হয় জইশের বৃহত্তম প্রশিক্ষণ শিবির এবং মেরে ফেলা হয় বহু সন্ত্রাসবাদীকে। এই সাফল্যকে স্যালুট জানায় পুরো ভারত। সদ্য ঘটে যাওয়া পুলওয়ামা হামলার ঘটনা এবং তার পরবর্তীতে ভারত-পাক যুদ্ধকালীন পরিস্থিতি নিয়ে এবার গান লিখলেন কবীর সুমন।

গানটি এখনো প্রকাশ না পেলেও এরইমধ্যে নিজের ফেসবুকে লিরিক পোস্ট দিয়েছেন কবীর। আর তাতেই প্রশংসায় ভাসছেন তিনি। গানটির লিরিক হুবুহু তুলে ধরা হলো:

‘‘মরচে ধরুক অস্ত্রে
গ আকার ন গান
জি ইউ এন-টা চাই না গাইব
শস্যের জয়গান।

জং ধরে যাক অস্ত্রে
সের দরে বেচে দাও
সেই টাকা দিয়ে গণভোজ হোক
আবডালে চুমু খাও।

গোলাগুলি আর নয়
ঘৃণার বদলে হাসি
অস্ত্র কেনার টাকায় খাওয়াও
নিরন্ন দেশবাসী।

বরাদ্দ যাক কমে
প্রতিরক্ষার খাতে
সারা দুনিয়ার যত ছেলেমেয়ে
থাক দুধে আর ভাতে।

কাশ্মীরে কেন গুলি
কেন নয় গণভোট
স্বাধীনতা তুমি হঠাৎ বাতিল
পাঁচশ টাকার নোট।

আমি কি দেশদ্রোহী
বলছ যখন তাই
দেশ কাকে বলে তুমি ভাল জানো
আমার তোমাকে চাই।’’

কবীর সুমন জানান, শিগগির এই লিরিকে সুরারোপ করে প্রকাশ পাবে গানটি। তিনি এও জানান, অসাধারণ এই গানটি লিখতে খরচ হয়েছে মাত্র ১৫ মিনিট!

ফেসবুকে গানটি পোস্ট করার পর থেকে প্রশংসা পাচ্ছেন সব শ্রেণির মানুষের। কবীর সুমনের এমন গীতে মুগ্ধ প্রবীর সেন নামের একজন। সুমনকে উদ্দেশ্য করে তিনি লিখেছেন, তুমি কলম দিয়ে প্রেম ছড়াতে জানো আবার কলম টাকে বন্দুক বানাতেও পারো। তাই তুমি প্রিয়, তুমি মনজুড়ে থাকো। কবীর সুমন আমাদের পথপ্রদর্শক।

কাজী নুদরত হোসেন নামের একজন লিখেছেন: আহা, কত আগুনের আঁচ…! কত বিক্ষত হৃদয়ের অভিমান…। কত উদার শান্তি।

একজন লিখেছেন, আহা!এমন গানের জন্য বহুদূর হেঁটে যেতে পারি! কাজী তবিবুর রহমান নামের একজন লিখেছে, দুর্দান্ত!! একমাত্র আপনার পক্ষেই সম্ভব এমন গান লেখা। মানোবতার।

অনেকে এই লিরিকে দ্রুত সুর দিতেও বলেছেন কবীর সুমনকে। জানিয়েছেন, দ্রুত সুর দিয়ে যেন শিগগির এই গানটি প্রকাশ করা হয়। সবাই মুখিয়ে আছে।