চ্যানেল আই অনলাইন
হৃদয়ে বাংলাদেশ প্রবাসেও বাংলাদেশ

ঢাবিতে ‘স্বাধীনতা বিরোধীদের’ অবাঞ্ছিত ঘোষণা

বিজ্ঞাপন

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ক্যাম্পাসে স্বাধীনতা বিরোধী ও জামায়াতের প্রার্থীদের অবাঞ্ছিত ঘোষণা করেছে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় (ঢাবি) ছাত্রলীগ। পাশাপাশি ক্যাম্পাসে তাদেরকে দেখলে ‘পিটিয়ে শুইয়ে’ দেয়ারও ঘোষণা দেন ঢাবি ছাত্রলীগ সভাপতি সনজিত চন্দ্র দাস।

বিজ্ঞাপন

বুধবার বিকেলে বিশ্ববিদ্যালয় ক্যাম্পাসে স্বাধীনতা বিরোধীদের বয়কটের আহ্বান জানিয়ে আয়োজিত বিক্ষোভ মিছিল পরবর্তী এক সমাবেশ থেকে এ ঘোষণা দেন তিনি। বিক্ষোভ মিছিলটি মধুর ক্যান্টিন থেকে শুরু হয়ে ছাত্র-শিক্ষক কেন্দ্রে (টিএসসি) এসে এক সংক্ষিপ্ত সমাবেশের মাধ্যমে শেষ হয়।

সমাবেশে সনজিত চন্দ্র দাস বলেন, ঢাবি ক্যাম্পাসে স্বাধীনতাবিরোধীদের উত্থান দেখলে পিটিয়ে একদম জায়গায় শুইয়ে দেয়া হবে। যারা জঙ্গি তৎপরতা চালায় তাদের সকল ছাত্র সংগঠনকে আমরা ক্যাম্পাসে অবাঞ্ছিত ঘোষণা করলাম। তাদেরকে যেখানে পাওয়া যাবে সেখানেই গণধোলাই দেয়া হবে।

তিনি বলেন, তারেক জিয়াকে হুঁশিয়ারি দিয়ে বলতে চাই বাংলাদেশে কোনো ধরনের জঙ্গি কর্মকাণ্ড করতে দেয়া হবে না। আপনি নিজে দেশে নেই, দেশের মানুষের সুখ-দুঃখের সঙ্গে আপনি পরিচিত নন। আপনি নিজে মূর্খ, বাংলাদেশে আপনি মূর্খের সরকার কায়েম করতে চান।

ছাত্রদলকে ‘স্বাধানতা বিরোধী সংগঠন’ উল্লেখ করে সনজিত বলেন, এই বাংলাদেশে কোনো ধরনের জঙ্গি কার্যক্রম চলতে দেয়া হবে না।

এসময় ঢাবি ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক সাদ্দাম হোসেন বলেন, আপনারা ব্যালটের মাধ্যমে মৌলবাদী দল বিএনপিকে বর্জন করবেন। শেখ হাসিনাকে বিজয়ের মাধ্যমে বাংলাদেশে একটি উন্নত দেশ প্রমাণ করে ছাড়বেন। দেশে স্বাধীনতা বিরোধীদের যারা পৃষ্ঠপোষকতা করে, তাদের ভোটে যাওয়ার কোনো অধিকার নেই। রাজনীতি করার অধিকার নেই। এই ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় ক্যাম্পাসে আমরা মুক্তিযুদ্ধের অঙ্গীকারের কোন রাজনৈতিক দল ছাড়া অন্য রাজনৈতিক দলের প্রচারণা দেখতে চাইনা। যুদ্ধাপরাধীদের কোনো রাজনৈতিক দলের প্রার্থীকে  ক্যাম্পাসে দেখতে পেলে সাধারণ শিক্ষার্থীরা তাদের প্রতিহত করবে।

সমাবেশ থেকে তারা আওয়ামী লীগের নির্বাচনী প্রচারণা শুরু করেন। সাদ্দাম হোসেনের সঞ্চালনায় আরও বক্তব্য রাখেন সমাজকল্যাণমন্ত্রী ও ঢাকা-৮ আসনের মহাজোট মনোনীতি প্রার্থী রাশেদ খান মেনন, টিএসসি ভিত্তিক সংগঠন স্লোগান একাত্তরের সভাপতি কাজী সুজন।