চ্যানেল আই অনলাইন
হৃদয়ে বাংলাদেশ প্রবাসেও বাংলাদেশ

জিএসপি ফিরে পেতে আবারও আবেদন করবে বাংলাদেশ: সিপিডি

পোশাক শিল্পের কর্মপরিবেশ উন্নয়নে অনেক দূর এগিয়েছে বাংলাদেশ। শিগগিরই বাংলাদেশ জিএসপি ফিরে পেতে আবেদন করবে বলেও জানিয়েছে সিপিডি। তবে পোশাক কারখানার পরিবেশ উন্নয়নে মালিকদের পাশাপাশি ক্রেতারা এগিয়ে আসলে দ্রুত পোশাক শিল্পের সমস্যা সমাধান হবে বলে মনে করে এ গবেষণা সংস্থা।

বিজ্ঞাপন

রানা প্লাজা ধসের পর জিএসপি সুবিধা পাওয়া দেশগুলোর তালিকা থেকে বাদ পড়ে বাংলাদেশ। সুবিধা ফিরে পেতে কারখানার কর্মপরিবেশ, শ্রমিকদের জীবনমানের উন্নয়নসহ ১৬টি শর্ত দেয় যুক্তরাষ্ট্র। তবে সব শর্ত পূরণ না হওয়ার কারণ দেখিয়ে যুক্তরাষ্ট্র জিএসপি সুবিধা ফিরিয়ে দেওয়া দেশের সব শেষ তালিকায় বাংলাদেশকে রাখেনি।

১৬ শর্তের অন্যতম ছিলো পোশাক শিল্পের কর্মপরিবেশের উন্নয়ন। কারখানার কর্মপরিবেশ উন্নয়নে করণীয় নিয়ে গবেষণাপত্র প্রকাশ করেছে সেন্টার ফর পলিসি ডায়ালগস সিপিডি। কমমূল্যের শ্রমিক ছাড়া পোশাক শিল্পের যাবতীয় উপকরণই ব্যয়বহুল বলে জানান বক্তারা। এ শিল্পের বিদ্যমান সমস্যা সমাধানে পোশাকের দাম বেশি দিতে ক্রেতাদের আহ্বান জানান তারা।

বিজ্ঞাপন

সিপিডির সম্মানিত ফেলো ডক্টর দেবপ্রিয় ভট্টচার্য জানান, কারখানার কর্মপরিবেশ উন্নয়নে শুধু মালিক না যারা ক্রেতা আছেন তাদেরও ভূমিকা রাখতে হবে। পোশাক শিল্পে কর্মপরিবেশ উন্নয়নে বেশ কিছু ঝুঁকি আছে, এগুলো আগে সমাধান করতে হবে।

সিপিডির চেয়ারম্যান রেহমান সোবহান বলেন, বেশ কয়েকটা দেশের সঙ্গে তুলনা করলে দেখা যাবে বাংলাদেশে সস্তা বলতে শুধু শ্রমিককেই বোঝায়। পোশাক শিল্পের আর যতো সরঞ্জাম সবই ব্যয়বহুল।

শ্রম ও কর্মসংস্থান মন্ত্রণালয়ের সচিব মিথাইল শিপার বলেন, যেসব কারখানা ঝুঁকিপূর্ণ সেসব বন্ধ করা হয়েছে।খুব শীঘ্রই আমরা পোশাক শিল্পে কাঙ্খিত পরিবেশ সৃষ্টি করব।

পরে চ্যানেল আইকে দেওয়া একান্ত সাক্ষাৎকারে সিপিডির নির্বাহী পরিচালক মুস্তাফিজুর রহমান কথা বলেন জিএসপি নিয়ে।

তিনি জানান, আমাদের জিএসপিতে ঢুকতে হলে তবে রিভিউ প্রসেসের মধ্য দিয়ে ঢুকতে হবে। তাদের যে সমস্ত শর্ত ছিল গতকয়েক বছরে আমরা করেছি। এগুলো তাদের সঙ্গে আলাপ আলোচনা করে তুলে ধরতে হবে। পোশাক শিল্পের সমস্যা সমাধানে বাংলাদেশের অব্যাহতভাবে এগিয়ে যাওয়ায় উজ্জ্বল ভবিষ্যতের আশার কথা জানিয়েছে সিপিডি।