চ্যানেল আই অনলাইন
হৃদয়ে বাংলাদেশ প্রবাসেও বাংলাদেশ

জাবি চিকিৎসা কেন্দ্রের উন্নয়নের দাবিতে শিক্ষার্থীদের আন্দোলন

বিজ্ঞাপন

জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের ইংরেজি বিভাগের ৪৫তম আবর্তনের শিক্ষার্থী নূরুজ্জামান নিভৃতের মৃত্যুর ঘটনায় বিশ্ববিদ্যালয় চিকিৎসা কেন্দ্রে পর্যাপ্ত সুচিকিৎসার ব্যবস্থা না থাকাকে দায়ী করে মানববন্ধন, বিক্ষোভ মিছিল ও অবস্থান কর্মসূচি পালন করছে শিক্ষার্থীরা।

বিজ্ঞাপন

প্রতিবেদন লেখা পর্যন্ত শিক্ষার্থীরা মেডিকেল সেন্টার ও শহীদ মিনারের সামনে অবস্থান কর্মসূচি চালিয়ে যাচ্ছেন।

শনিবার রাত ১০টার দিকে অসুস্থ অবস্থায় সাভারে এনাম মেডিকেলে নেওয়ার সময় অ্যাম্বুলেন্সে শেষ নিঃশ্বাস ত্যাগ করে নুরুজ্জামান। সেখানে দায়িত্বরত চিকিৎসক নিশ্চিত করেন হার্ট অ্যাটাকে নিভৃতের মৃত্যু হয়েছে।

কিন্তু নিভৃতের সহপাঠী ও শিক্ষার্থীদের অভিযোগ বিশ্ববিদ্যালয় মেডিকেল সেন্টারের কর্তৃপক্ষ যথাসময়ে অ্যাম্বুলেন্স দিতে ব্যার্থ হওয়ায় চিকিৎসার অভাবে নিভৃতের মৃত্যু ঘটেছে। তিন ঘণ্টা পর অ্যাম্বুল্যান্সে করে সাভার এনাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের উদ্দেশে নেওয়া হলে অ্যাম্বুলেন্সেই নিভৃত মারা যায়।

নুরুজ্জামান নিভৃতের মৃত্যুর ঘটনায় প্রশাসনকে দায়ী করে বেলা সাড়ে ১২টার দিকে কেন্দ্রীয় শহীদ মিনারের পাদদেশে মানববন্ধন করা হয়। মানববন্ধন শেষে শহীদ মিনার থেকে বিক্ষোভ মিছিল নিয়ে চিকিৎসা কেন্দ্রের সামনে যান শিক্ষার্থীরা। সেখানে তারা শিক্ষক ও চিকিৎসকদের সাথে কথা বলেন।

তারা চিকিৎসার অব্যবস্থাপনার কারণ জানতে চাইলে চিকিৎসা কেন্দ্রের ভারপ্রাপ্ত চিকিৎসক ডা. মো. শামছুর রহমান তাদের সংকটের কথা স্বীকার করে বলেন, ২০০০ সালে চিকিৎসকের সংখ্যা ছিল আট জন, এখন সাত জন। দীর্ঘদিন যাবৎ উপদেষ্টা কমিটির সভা দেয়ার কথা থাকলেও তা দেয়া হচ্ছে না। ফলে নতুন নিয়োগ, অ্যাম্বুলেন্স ও ঔষধের কোন সুরাহা হচ্ছে না।

শিক্ষার্থীরা প্যাথলজি বিভাগের জন্য উন্নত যন্ত্রপাতি ও ইসিজি মেশিনের দাবি করলে তিনি বলেন, এখানে বিশেষজ্ঞ চিকিৎসকের কোন পদ নেই। ইসিজি মেশিনের জন্য বিশেষজ্ঞ চিকিৎসক ও টেকনিশিয়ান প্রয়োজন।

চিকিৎসা কেন্দ্রের সামনে অবস্থান নিয়ে শিক্ষার্থীরা বিভিন্ন দাবি তুলে ধরেন। তাদের দাবির মধ্যে রয়েছে, নুরুজ্জামানের মৃত্যুর কারণ তদন্ত করে তিন দিনের মধ্যে দায়ীদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা গ্রহণ; পূর্ণাঙ্গ মেডিকেল সেন্টার বাস্তবায়ন; চিকিৎসা কেন্দ্রের ভবন সম্প্রসারণ; সার্বক্ষণিক অ্যাম্বুলেন্সের সুবিধার ব্যবস্থা; প্যাথলজি বিভাগের উন্নয়ন ও আধুনিক চিকিৎসা সরঞ্জামের ব্যবস্থা এবং অভিজ্ঞ ও বিশেষজ্ঞ ডাক্তারের পদ সৃষ্টি করে দায়িত্বে নিয়োগ দেয়া। এছাড়াও চিকিৎসা কেন্দ্রে রোগীকে প্রাসঙ্গিক সেবা দিতে ব্যর্থ হয়ে বাহিরের হাসপাতালে হস্তান্তর করলে তার ব্যয়ভার প্রশাসনকে বহন করার দাবিও জানান শিক্ষার্থীরা।

এসব দাবি নিয়ে শিক্ষার্থী ও ছাত্র সংগঠনগুলো এর আগেও স্মারকলিপি ও ঘেরাও কর্মসূচি পালন করেছে।

শিক্ষার্থীদের দাবি, বারবার এসব দাবি জানানোর পরও কোন পরিবর্তন না হওয়ায় নুরুজ্জামানের মৃত্যু হয়েছে। ফলে তাদের দাবি, নুরুজ্জামান নিভৃতের মৃত্যুর দায়ী ভার প্রশাসনকেই নিতে হবে।