চ্যানেল আই অনলাইন
হৃদয়ে বাংলাদেশ প্রবাসেও বাংলাদেশ

জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার অর্জনে ইমপ্রেসের রেকর্ড

বরাবরই মান সম্মত ও সুস্থ ধারার চলচ্চিত্র উপহার দিয়ে আসছে ইমপ্রেস টেলিফিল্ম লিমিটেড। বিপরীতে তার প্রাপ্তিও কম নয়। দেশ বিদেশে প্রায়শই সমাদৃত হতে দেখা যায় ইমপ্রেস টেলিফিল্মের ছবিগুলো। সদ্য ঘোষিত জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কারেও সেই অর্জন অব্যাহত রেখেছে ইমপ্রেসের চলচ্চিত্র। শ্রেষ্ঠ চলচ্চিত্র পুরস্কারসহ মোট আটটি বিভাগে শ্রেষ্ঠত্ব অর্জন করেছে। তারই সূত্র ধরে অতিত অর্জন মিলিয়ে একটি অনন্য রেকর্ডও করে ফেলেছে ইমপ্রেস টেলিফিল্ম!

বিজ্ঞাপন

হ্যাঁ। ২০০৪ থেকে ২০১৬ সাল পর্যন্ত একক কোনো প্রযোজনা সংস্থা হিসেবে সবচেয়ে বেশি জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার প্রাপ্তির খাতায় নাম লিখেয়েছে ইমপ্রেস টেলিফিল্ম। প্রযোজনা সংস্থা ইমপ্রেসের তরফ থেকে জানা গেছে, ২০০৪ সাল থেকে ২০১৬ সাল পর্যন্ত ৭টি শ্রেষ্ঠ চলচ্চিত্রের পুরস্কারসহ মোট ১৭০টি বিভাগে পুরস্কার অর্জন করেছে তারা। এর আগে জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কারে এমন নজির নেই।

২০০৪ সালে তৌকীর আহমেদের নির্মাণে ‘জয়যাত্রা’ ছবিটি দিয়ে শ্রেষ্ঠ জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার অর্জন করে ইমপ্রেস টেলিফিল্ম। শুধু শ্রেষ্ঠ চলচ্চিত্র বিভাগেই নয়, সেই সময় থেকে এখন পর্যন্ত সেরা নির্মাতা, সেরা অভিনেতা, সেরা অভিনেত্রী, সেরা চিত্রনাট্যকার, সেরা কণ্ঠশিল্পী থেকে শুরু করে পুরস্কারের সব বিভাগেই প্রায় প্রতিবারই শ্রেষ্ঠত্ব অর্জনে সবার সামনে থাকছে প্রযোজনা সংস্থাটি।

গত ১৩ বছরে ইমপ্রেসের অর্জন মোট ১৭০টি পুরস্কার। যার মধ্যে রয়েছে ৭টি শ্রেষ্ঠ চলচ্চিত্রের পুরস্কার। ২০০৪ সাল থেকে যে সাতটি চলচ্চিত্র শ্রেষ্ঠত্ব অর্জন করেছে:
২০০৪ সাল- জয়যাত্রা-তৌকীর আহমেদ
২০০৭ সাল- দারুচিনি দ্বীপ – তৌকীর আহমেদ
২০০৮ সাল- চন্দ্রগ্রহণ – মুরাদ পারভেজ
২০১০ সাল- গহীনে শব্দ – খালিদ মাহমুদ মিঠু
২০১১ সাল- গেরিলা – নাসিরউদ্দিন ইউসুফ বাচ্চু
২০১২ সাল- উত্তরের সুর – শাহনেওয়াজ কাকলী
২০১৬ সাল- অজ্ঞাতনামা- তৌকীর আহমেদ