চ্যানেল আই অনলাইন
হৃদয়ে বাংলাদেশ প্রবাসেও বাংলাদেশ

চড়াই-উৎরাই পেরিয়েই আইনজীবীকে সাফল্যের শিখরে পৌঁছতে হয়: প্রধান বিচারপতি

প্রধান বিচারপতি সৈয়দ মাহমুদ হোসেন বলেছেন: একজন আইনজীবীর জীবন কখনই মসৃণ নয়। বিভিন্ন চড়াই-উৎড়াই পেরিয়েই একজন আইনজীবীকে সাফল্যের শিখরে পৌঁছতে হয়। আর সে পথচলায় প্রয়োজন হয় নিষ্ঠা, সময়ানুবর্তীতা, ধৈর্য্য, সততা, পরিশ্রম এবং নিরন্তর অধ্যয়নের।

বিজ্ঞাপন

প্রধান বিচারপতি আরও বলেন: আইন পেশার সুমহান মর্যাদা রক্ষা করতে সকল অনিয়মের বিরুদ্ধে বার ও বেঞ্চকে সোচ্চার থাকতে হবে। প্রতিটি মামলা পরিচালনায় শিক্ষা, মেধা এবং বিচক্ষণতার প্রয়োগ হতে হবে। জেনে-শুনে মামলার ঘটনার বিকৃত উপস্থাপনা করা একজন আইনজীবীর কখনই উচিত নয়। সঠিক সাক্ষ্য-প্রমাণ এবং আইনি বিশ্লেষণের মাধ্যমে সঠিক সিদ্ধান্তে উপনীত হতে আদালতকে সহায়তা করাই আইনজীবীর মূল উদ্দেশ্য।

বিজ্ঞাপন

মঙ্গলবার সুপ্রিমকোর্ট আইনজীবী সমিতির শহিদ সফিউর রহমান মিলনায়তনে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় এলএল.এম লইয়ার্স এসোসিয়েশন (ডুলা) আয়োজিত নবীন বরণ ও ফাগুন উৎসব অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন।প্রধান বিচারপতি

ভাষা শহীদদের স্মরণ করে প্রধান বিচারপতি বলেন: যাদের রক্তের বিনিময়ে আমরা মাতৃভাষায় কথা বলতে পারছি তাদের গভীর শ্রদ্ধার সাথে স্মরণ করছি। স্মরণ করছি স্বাধীন বাংলাদেশের স্বপ্ন দ্রষ্টা, জাতির পিতা, হাজার বছরের শ্রেষ্ঠ বাঙালি ও বাঙালির মুক্তি সংগ্রামের অবিসংবাদিত নেতা এবং ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের আইন বিভাগের প্রাক্তন ছাত্র বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানকে।

অনুষ্ঠানে গৃহায়ণ ও গণপূর্ত মন্ত্রী শ ম রেজাউল করিম বলেন: কাউকে ছোট করে নিজে বড় হওয়া যায় না। মামলা পরিচালনায় আইনজীবীদের মধ্যে প্রতিযোগিতা হবে যে কে কত বিনয়ী হতে পারে।

আয়োজক সংগঠনেক সভাপতি অ্যাডভোকেট এ কেএম ফয়েজের সভাপতিত্বে এ অনুষ্ঠানে আরো বক্তব্য রাখেন- আপিল বিভাগের বিচারপতি মির্জা হোসেইন হায়দার, রেলমন্ত্রী নুরুল ইসলাম সুজন, সুপ্রিমকোর্ট আইনজীবী সমিতির সভাপতি জয়নুল আবেদীন, সম্পাদক ব্যারিস্টার মাহবুব উদ্দিন খোকন, ডুলা’র প্রতিষ্ঠাতা সভাপতি ও বিচারপতি এ, কে, এম, আব্দুল হাকিম প্রমুখ।