চ্যানেল আই অনলাইন
হৃদয়ে বাংলাদেশ প্রবাসেও বাংলাদেশ

খুলনায় নদী দখল বাণিজ্য, মৃতপ্রায় ১২টি নদী

খুলনায় নদীর দখলদারদের তালিকা অনেক লম্বা। রাজনৈতিক দলের নেতাকর্মী, সুশীল সমাজসহ প্রভাবশালীদের প্রায় সকলেই এই বাণিজ্যে যুক্ত। নদী দখল করে গড়ে তুলছে দোকানপাট, ব্যবসা প্রতিষ্ঠানসহ নানান স্থাপনা। এসব উচ্ছেদ করার কথা বলছেন জেলা প্রশাসক এবং মৎস্য ও প্রাণিসম্পদ মন্ত্রী।

বিজ্ঞাপন

খুলনা নগরীর প্রাণ রূপসা নদী। খানজাহান আলী সেতুর পাশে এ নদীর উপর দখলদারদের অসংখ্য স্থাপনা। জেলা প্রশাসনের করা তালিকায় ৬৫ জন দখলদারের মধ্যে আছেন ওয়ার্ড আওয়ামী লীগের সভাপতি, ওয়ার্ড বিএনপির সাবেক সভাপতি, সিটি কর্পোরেশনের কাউন্সিলর ও সুশীল সমাজের প্রতিনিধি।

ভৈরব নদের জেলখানা খেয়াঘাট থেকে ৫নং ঘাট পর্যন্ত ৯৭ দখলদারের তালিকা করেছে জাতীয় নদী রক্ষা কমিশন।

বিজ্ঞাপন

এভাবে দখল হতে হতে এখন মৃতপ্রায় খুলনার ১২টি নদী, আরও ৭টি নদী অস্তিত্ব সংকটে।

সামান্য আর্থিক লোভের কারণে দখলদাররা জীববৈচিত্র্যের বিশাল ক্ষতি করছে বলে মনে করছেন  খুলনা বিশ্ববিদ্যালয়ের অধ্যাপক ডক্টর ইউসুফ আবদুল্লাহ হারুন ।

তবে, সরকারের পক্ষ থেকে এখনো বলা হচ্ছে আশার কথা।

নদনদী-রক্ষার তৎপরতা এখনি শুরু করা না হলে মানচিত্র থেকে মুছে যাবে অনেক নদীর নাম, বলে অভিমত ব্যক্ত করেছেন বিশেষজ্ঞরা।

আরও দেখুন দানিয়েল সুজিত বোসের ভিডিও রিপোর্টে: