চ্যানেল আই অনলাইন
হৃদয়ে বাংলাদেশ প্রবাসেও বাংলাদেশ

কেন্দ্র দখল করে সিল মারছে মহাজোটের প্রার্থীদের সমর্থকরা: ইমরান এইচ সরকার

রিটার্নিং অফিসারের কাছে নানা অনিয়ম ও ভোটকেন্দ্র দখলের অভিযোগ এনেছেন কুড়িগ্রাম-৪ আসনের স্বতন্ত্র প্রার্থী ইমরান এইচ সরকার।

বিজ্ঞাপন

তার অভিযোগ, কেন্দ্রগুলো থেকে ক্ষমতাসীন দলের লোকজন অন্যান্য সব প্রার্থীর পোলিং এজেন্টদের বের করে দিচ্ছে। ভোটের আগের রাতে প্রশাসনের সহায়তায় ক্ষমতাসীনরা ভোট দিয়েছে বলেও অভিযোগ করেন তিনি।

রোববার সকালে গণজাগরণ মঞ্চের এই মুখপাত্র চ্যানেল আই অনলাইনকে জানান, কুড়িগ্রাম-৪ আসনের অন্তত ২০টি ভোটকেন্দ্র ইতোমধ্যে দখল করে ব্যালটে সিল মারছে আওয়ামী লীগ-মহাজোটের প্রার্থীদের সমর্থকরা। রৌমারী, চিলমারী, চর বোয়ালমারী, চরসাজাই, কড়াই বরিশাল, নয়ারহাট ইউনিয়নের সব কেন্দ্র, সিজি জামান স্কুল কেন্দ্র, সোনাপুর, ফুলবাড়ীসহ অনেকগুলো ভোটকেন্দ্র দখল হয়ে গেছে বলে অভিযোগ করেছেন তিনি।

সকাল ৮টায় আনুষ্ঠানিকভাবে ভোটগ্রহণ শুরু হওয়ার কিছুক্ষণের মধ্যেই কেন্দ্রগুলো থেকে স্বতন্ত্রসহ বিভিন্ন দলের পোলিং এজেন্টদের বের করে দিয়ে সরকারি দলের লোকেরা সিল মারতে শুরু করে বলে উল্লেখ করেন ইমরান এইচ সরকার।

বিজ্ঞাপন

এছাড়া শনিবার রাতেই অন্তত ৩৫ হাজার ভোট দেয়া হয়ে গিয়েছিল বলে ইমরান অভিযোগ করেন। এর ফলে প্রকৃত ভোটাররা ভোট দিতে পারছেন না। তিনি বলেন, ‘রাতেই আমরা এমন একটা খবর পেয়েছিলাম যে সব মিলিয়ে অন্তত ৩৫ হাজার ভোট প্রশাসনের সহায়তায় দেয়া হয়ে গেছে। কিন্তু সকালের পরিস্থিতি দেখে নিশ্চিত হয়েছি।’ইমরান এইচ সরকার-ভোটকেন্দ্র দখল-অনিয়ম

‘সকাল সকাল যারা ভোট দিতে যাচ্ছে, তারাও কেন্দ্রে গিয়ে দেখছে তাদের ভোট আগেই দেয়া হয়ে গেছে। এটা বিকেলে হলেও না হয় বোঝা যেত অন্যরকম। কিন্তু সকালে গিয়েই যেহেতু তারা দেখছে ভোট দেয়া হয়ে গেছে, সেহেতু তো বোঝাই যাচ্ছে রাতে ভোট হয়ে যাওয়ার তথ্যটি সত্য,’ বলেন তিনি।

বেশিরভাগ কেন্দ্রেই এমনটা হয়েছে বলে মন্তব্য করেছেন তিনি।

অভিযোগ জানানোর পর রিটার্নিং অফিসার বলেছেন, অভিযোগ পাওয়া কেন্দ্রগুলো অনেক প্রত্যন্ত এলাকায়। বিষয়টি দেখছেন বলে তিনি জানিয়েছেন।

স্থানীয় প্রশাসন অবশ্য জানিয়েছে, ৬৯৭ কেন্দ্রের মধ্যে চরাঞ্চলের ১শ’ কেন্দ্রসহ ৩৭৭টি কেন্দ্র গুরুত্বপূর্ণ বিবেচনায় সে কেন্দ্রগুলোতে আইন শৃংখলার বিশেষ ব্যবস্থা নিয়েছে জেলা রিটার্নিং কর্মকর্তা। তবে এখন পর্যন্ত কোথাও কোনো অপ্রীতিকর ঘটনার খবর পাওয়া যায়নি।