চ্যানেল আই অনলাইন
হৃদয়ে বাংলাদেশ প্রবাসেও বাংলাদেশ

‘এল ক্ল্যাসিকো’তে আবারও বার্সার বাজিমাত

গত বুধবার এল ক্ল্যাসিকোতে হেরে কোপা ডেল রে থেকে ছিটকে যেতে হয়েছিল রিয়াল মাদ্রিদকে। শনিবার লা লিগা সুযোগ করে দিয়েছিল কোপা ডেল রে’তে হারের বদলা নেয়ার। কিন্তু বদল হল না চিত্রনাট্যের। অ্যাওয়ে ম্যাচে ‘সম্মানের লড়াই’ জিতে ৮৭ বছরে প্রথমবার হেড-টু-হেডে এগিয়ে গেল বার্সেলোনা।

বিজ্ঞাপন

আর তিনদিনের ব্যবধানে আবার একটি এল ক্ল্যাসিকো হেরে লা লিগা জয়ের দৌড়ে অনেকটা পিছু হটল রিয়াল। কোপা ডেল রের ম্যাচ ৩-০তে জেতার পর লিগ ক্ল্যাসিকোতে বার্সা জিতেছে ১-০ গোলে।

ম্যাচ ছিল প্রায় পঞ্চাশ পঞ্চাশই। কিন্তু গত এল ক্ল্যাসিকোর মতো এই ম্যাচেও গোলের খাতা খুলতে পারেনি রিয়াল। ম্যাচে একটি মাত্র গোলই হয়। প্রথমার্ধের ২৬ মিনিটে বার্সার হয়ে গোল করেন ইভান রাকিটিচ। যা শেষ পর্যন্ত ব্যবধান গড়ে দেয়। রিয়ালের তরুণ ফুটবলার ভিনিসিয়াস জুনিয়র এই ম্যাচে আবার নজর কাড়েন।

ঘরের মাঠে লা লিগার প্রথম লেগের ম্যাচে রিয়ালকে ৫ গোলের লজ্জায় বিঁধেছিল কাতালান ক্লাবটি। শনিবার ক্রোয়েট তারকা ইভান রাকিটিচের একমাত্র গোলে চলতি লিগে অষ্টম হারের মুখ দেখল লস ব্ল্যাঙ্কোসরা। সেইসঙ্গে লিগ টেবিলের শীর্ষে থাকা বার্সার সঙ্গে পয়েন্টের ব্যবধান বেড়ে দাঁড়াল ১২। এই হারের ফলে ২০০৪ সালের পর লিগে ঘরের মাঠে টানা তিন ম্যাচে হারের মুখ দেখল রিয়াল মাদ্রিদ।

বিজ্ঞাপন

কোপা ডেল রে’র দ্বিতীয় লেগের ম্যাচে প্রথম অন টার্গেটেই গোল তুলে নিয়েছিল বার্সেলোনা। শনিবারও একই ঘটনার পুনরাবৃত্তি ঘটিয়ে ম্যাচের ২৬ মিনিটে বার্সাকে এগিয়ে দেন ইভান রাকিটিচ।

যদিও উত্তেজনাপূর্ণ ম্যাচের শুরুতেই গোলের কাছে পৌঁছে গিয়েছিল দু’দলের ফুটবলাররাই। দুর্দান্ত স্লাইডারে মদ্রিচের গোলমুখী শট যেমন আটকে দেন জেরার্ড পিকে, তেমনি সুয়ারেজের অসাধারণ ভলি আটকে যায় থিবো কোর্তোয়ার হাতে।

কিন্তু ২৬ মিনিটে ডানদিক থেকে বল ধরে রামোসকে কাঁধে নিয়েই গোলমুখে এগিয়ে যান রাকিটিচ। এরপর বক্সে পৌঁছে কোর্তোয়ার মাথার উপর দিয়ে আলতো চিপে বল জালে জড়ান ক্রোয়েশিয়ান মিডফিল্ডার। রামোস ফাইনাল ট্যাকেলে গেলেও শেষরক্ষা করতে পারেননি।

বিরতি থেকে ফিরে দ্বিতীয়ার্ধেও বজায় থাকে উত্তেজনা। সমতা ফেরাতে মরিয়া হয়ে ওঠে ইউরোপ সেরারা। ভিনিসিয়াস জুনিয়রের একটি দুর্দান্ত চেষ্টা প্রতিহত হয় বার্সা গোলকিপার টের স্টেগানের হাতে। ফিরতি শট আটকে দেন লেংলেট। উল্টোদিকে ব্যবধান বাড়িয়ে নেয়ার সুযোগ চলে আসে মেসি-ডেম্বেলেদের কাছে। কিন্তু রাকিটিচের একমাত্র গোলই ম্যাচের নির্ণায়ক হয়ে দাঁড়ায়।

এই জয়ের ফলে হেড-টু-হেডে জয়ে রিয়ালকে এদিন টপকে গেল বার্সা (বার্সেলোনা ৯৬, আর রিয়াল ৯৫, ৫১টি ম্যাচ ড্র)। একইসঙ্গে লিগ টেবিলের শীর্ষে অবস্থান মজবুত করল লাল-নীল জার্সিধারীরা। ২৬ ম্যাচে তাদের পয়েন্ট সংখ্যা ৬০। ২৫ ম্যাচে ৫০ পয়েন্ট নিয়ে দ্বিতীয়স্থানে অ্যাটলেটিকো মাদ্রিদ। আর ২৬ ম্যাচে ৪৮ পয়েন্টে অনেকটা পিছনে তিন নম্বরে রিয়াল।