চ্যানেল আই অনলাইন
হৃদয়ে বাংলাদেশ প্রবাসেও বাংলাদেশ

এফডিসিতে বুলবুলের দ্বিতীয় জানাজা সম্পন্ন

দেশ বরেণ্য সঙ্গীতজ্ঞ-বীর মুক্তিযোদ্ধা আহমেদ ইমতিয়াজ বুলবুলের দ্বিতীয় নামাজে জানাজা সম্পন্ন হয়েছে বাংলাদেশ চলচ্চিত্র উন্নয়ন করপোরেশনে(বিএফডিসি)। নামাজে জানাজা শুরু হয় ২টা ২০ মিনিটে। এখন তার মরদেহ নিয়ে যাওয়া হচ্ছে মিরপুর বুদ্ধিজীবী কবরস্থানে। সেখানেই চিরনিদ্রায় শায়িত হবেন বরেণ্য এই সঙ্গীতজ্ঞ।

বিজ্ঞাপন

আহমেদ ইমতিয়াজ বুলবুল তার গান দিয়ে চলচ্চিত্রকে সমৃদ্ধ করলেও তার জানাজায় এফডিসি ছিল প্রায় তারকা শূন্য। গানের মানুষরাই বেশী ছিলেন। নায়কদের মধ্যে ছিলেন আলমগীর, রিয়াজ, জায়েদ খান। এছাড়া চোখে পড়ার মতো তারকা দেখা যায়নি। বিষয়টি নিয়ে অনেক শিল্পী ক্ষোভ প্রকাশ করেছেন।

কিংবদন্তি গায়ক তপন চৌধুরী বলেন, শিল্পীর উপস্থিতি আরো থাকা উচিত ছিল। বুলবুল ভাইয়ের গান ছিল চলচ্চিত্রের অপরিহার্য অংশ। তিনি চলে গেলেন। অথচ এফডিসির নায়ক-নায়িকারা সেভাবে কেউ এলো না। আমরা গানের মানুষ শহীদ মিনার, তার বাসায়  গিয়েছিলাম। কিন্তু তার শেষ শ্রদ্ধায় সম্মান জানাতে আরো নায়ক নায়িকা আসতে পারতো।

বিজ্ঞাপন

চলচ্চিত্রের তারকাদের উপস্থিতি কম কেন জানতে চাইলে জায়েদ খান বলেন, শিল্পী সমিতির পক্ষ থেকে আমি সবাইকে এসএমএস করেছি, ফোন করেছি। কেউ না এলে আমার কিছু করার নেই। এটা যার যার ব্যক্তিগত ব্যাপার। আমি আমার দায়িত্ব পালন করেছি।

এর আগে বুধবার (২৩ জানুয়ারি) বাদ জোহর ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের কেন্দ্রীয় জামে মসজিদে তার প্রথম নামাজে জানাজা অনুষ্ঠিত হয়। এতে সাংস্কৃতিক অঙ্গনসহ সর্বস্তরের মানুষ অংশ নেন।

২২ জানুয়ারি মঙ্গলবার ভোরে রাজধানীর আফতাবনগরে নিজ বাসায় হার্ট অ্যাটাকে আক্রান্ত হন বীর মুক্তিযোদ্ধা, গীতিকার, সুরকার ও সংগীত পরিচালক আহমেদ ইমতিয়াজ বুলবুল। তারপর তাকে মহাখালীর ইউনিভার্সেল মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নেওয়া হয়েছিল। সেখানে চিকিৎসক তাকে মৃত ঘোষণা করা হয়। মৃত্যুকালে আহমেদ ইমতিয়াজ বুলবুলের বয়স হয়েছিল ৬৩ বছর।

এর আগে ২০১৮ সালের মাঝামাঝি বুলবুলের হার্টে আটটি ব্লক ধরা পড়ে। তার শারীরিক অবস্থার কথা জানতে পেরে চিকিৎসার দায়িত্ব নেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। তিনি রাষ্ট্রীয় সর্বোচ্চ সম্মান একুশে পদক, জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার এবং রাষ্ট্রপতির পুরস্কারসহ অসংখ্য পুরস্কারে ভূষিত হন। আহমেদ ইমতিয়াজ বুলবুলের মৃত্যুতে সংগীত অঙ্গনে শোকের ছায়া নেমে এসেছে। প্রধানমন্ত্রী ও রাষ্ট্রপতি দুজনেই শোক প্রকাশ করেছেন।