চ্যানেল আই অনলাইন
হৃদয়ে বাংলাদেশ প্রবাসেও বাংলাদেশ

এক ক্যাচে আগুন লাগিয়ে দিয়েছেন স্টোকস!

সংবাদ সম্মেলন থেকে শুরু করে মাঠে-ময়দানে কিংবা সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে, সব জায়গায় বিরতিহীনভাবে একই প্রসঙ্গে বাজছে। সাউথ আফ্রিকা ম্যাচে কি অসাধারণ ক্যাচটাই না নিলেন ইংল্যান্ড অলরাউন্ডার বেন স্টোকস!

বিজ্ঞাপন

উদ্বোধনী ম্যাচে বৃহস্পতিবার ইংলিশদের ৩১১ রানের জবাবে ব্যাট করছিল সাউথ আফ্রিকা। একে একে গুরুত্বপূর্ণ সব ব্যাটসম্যান আউট হয়ে যাওয়ায় সহজ জয়ের পথে ছিল ইংল্যান্ড। কিন্তু গলার কাঁটা হয়ে আটকে ছিলেন আন্দিলে ফেলুকোয়ও।

সেসময় ৩৫তম ওভারে বল করার দায়িত্ব পেলেন আদিল রশিদ। স্ট্রাইকে ফেলুকোয়ও। প্রথম বলটাই সপাটে করলেন সুইপ। মিড উইকেটে তখন ফিল্ডিয়ে ছিলেন স্টোকস। বল বাতাসে ভাসতে দেখে একটু সামনেই চলে এসেছিলেন। এসেই বুঝলেন ভুল করেছেন! সেই ভুল শোধরাতে দিলেন লম্বা এক লাফ। লাফ শেষে যখন মাটিতে পড়লেন, ডান মুঠোয় তখন আটকে আছে বল!

বিজ্ঞাপন

স্টোকসের সেই ক্যাচের পরপরই শুরু হয়ে গেছে তুমুল আলোচনা। এটি সর্বকালের সেরা ক্যাচগুলোর একটি কিনা সেটি নিয়েও চলছে বিতর্ক। ২০১৫ বিশ্বকাপে এমনই একটি ক্যাচ নিয়েছিলেন স্টোকস। সেটি ছাপিয়ে এখনকার ক্যাচটি নিয়েই যত সরগরম আলোচনা।

ধারাভাষ্যকক্ষ থেকে যেমন ইংলিশদের সাবেক অধিনায়ক নাসের হুসেইন বলেই দিলেন, ‘মোটেও না! মোটেও না! এমনটা তুমি মোটেও করতে পারো না বেন স্টোকস। এটা অসাধারণ। সর্বকালের সেরা ক্যাচগুলোর একটি।’ আরেক ইংলিশ সাবেক গ্রায়েম সোয়ানও বলছেন, তার চোখে এটিই সেরা ক্যাচ!

যিনি ক্যাচ নিয়েছেন সেই স্টোকস কী বলছেন, ‘আমি আসলে ভুল জায়গায় চলে এসেছিলাম। সহজভাবে ধরতে না গিয়ে কঠিনভাবে চেষ্টা করেছি। আমি যদি আগের জায়গায় দাঁড়িয়ে থাকতাম তাহলে এটা আমার জন্য নিয়মিত ক্যাচ।’

সবাই যখন এই ক্যাচকে বলছেন সেরা, স্টোকস তখন এগিয়ে রাখলেন ২০১৫ সালের ক্যাচকেই, ‘আপনারা বলছেন এই ক্যাচটা ২০১৫ সালের থেকে সেরা? না। ওই ক্যাচটা ছিল অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষে। ওই মর্যাদা অন্য সবার থেকে এগিয়ে!’

দুর্দান্ত ক্যাচের দিনে ব্যাটে-বলেও সেরা দিয়েছেন স্টোকস। ইনিংস সর্বোচ্চ ৮৯ রানের পাশাপাশি ২ উইকেট নিয়ে হয়েছেন ম্যাচসেরা।