চ্যানেল আই অনলাইন
হৃদয়ে বাংলাদেশ প্রবাসেও বাংলাদেশ

ঈদকে ঘিরে ব্যাংকগুলোতে উপচে পড়া ভিড়

রমজান ঈদকে সামনে রেখে ব্যাংকগুলোতে গ্রাহকদের উপচে পড়া ভিড় দেখা গেছে। কেউ টাকা তোলা আর কেউ জমা দেওয়ার জন্য দীর্ঘ লাইনে দাঁড়িয়েছিলেন। গ্রাহকদের এ ভিড় সামলাতে ব্যস্ত সময় পার করেছেন ব্যাংকাররাও।

বৃহস্পতিবার রাজধানীর মতিঝিল ও দিলকুশা, দৈনিক বাংলা, পল্টনসহ বিভিন্ন এলাকার ব্যাংকের শাখাগুলো ঘুরে এ চিত্র দেখা গেছে।

এ দিন সকাল থেকে ব্যাংকের শাখাগুলোতে টাকা জমা ও উত্তোলনে কাউন্টারে সামনে গ্রাহকদের লম্বা লাইন দেখা গেছে। প্রয়োজনীয় লেনদেনের পাশাপাশি নতুন টাকার জন্যও ভিড় করছেন গ্রাহকরা। অন্যান্য সময়ের চেয়ে অতিরিক্ত লোক দেখা গেছে।

প্রতি ঈদের আগে গ্রাহকের ভিড় বাড়ে বলে জানালেন মতিঝিল সোনালী ব্যাংকের লোকাল ব্রাঞ্চের জেনারেল ম্যানেজার নিজাম উদ্দিন আহমেদ চৌধুরী

তিনি বলেন, ‘প্রতি বছরই এই সময় গ্রাহকের চাপ থাকে। ঈদে লোকজন গ্রামে যাবেন। আবার অনেকে কর্মীদের বেতন-বোনাস দিবেন। সব মিলিয়ে ঈদ উপলক্ষে ব্যবসা ও নিজস্ব প্রয়োজনে টাকা উত্তোলন করছে। এছাড়া সঞ্চয়পত্রের মুনাফা তুলছেন। আবার অনেকে ডিপোজিটের অর্থ জমা করছে। সেজন্য সকাল থেকেই প্রতিটি ক্যাশ কাউন্টারে গ্রাহকেরা ভিড় করেছেন।’

বাড়তি গ্রাহকের চাপে সেবা দিতে ব্যাংক কর্মকর্তা-কর্মচারীরা হিমশিম খাচ্ছে উল্লেখ করে তিনি বলেন, ‘গ্রাহক বেশি হলেও নগদ টাকার কোনো সমস্যা নেই। তাদের চাহিদা মত পরিশোধ করা হচ্ছে।’

ঈদের আগে ৩ জুন (সোমবার) শেষ কার্যদিবস। ওইদিন বিশেষ ছুটি হবে কি না এ নিয়ে গুঞ্জন রয়েছে। এজন্য আজকেই প্রয়োজনীয় লেনদেন সারতে গ্রাহকরা ব্যাংকে ভিড় করেছে।

খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, আগামী সোমবার অনেক কর্মকর্তা-কর্মচারী ছুটি নিচ্ছেন। তাই ৩ জুন ঈদের আগে শেষ কর্মদিবসে অনেকটা ছুটির আমেজে থাকবে।

অগ্রণী ব্যাংকে ক্যাশ কাউন্টারের লাইনে দাঁড়ানো সাইফুল ইসলাম বলেন, ‘আমার ছোট্ট একটি কারখানা রয়েছে। কর্মীদের বেতন-বোনাস দিতে হবে। তাই টাকা তুলতে এসেছি। আধা ঘণ্টা হয়েছে এসেছি। অতিরিক্ত গ্রাহকের কারণে আরও আধাঘণ্টা অপেক্ষা করতে হবে বলে মনে হচ্ছে।’

নতুন টাকার জন্য বাংলাদেশ ব্যাংকের লাইনে দাঁড়িয়েছে আবু সাঈদ। তিনি বলেন, ‘আজ রাতে গ্রামে যাবো। ঈদে সেলামি হিসেবে নতুন টাকার বিকল্প নেই। তাই নতুন টাকা তুলতে এসেছি। চাকরির কারণে এতদিন খুব ব্যস্ত ছিলাম বলে টাকা তুলতে পারিনি।

এক্সিম ব্যাংকের মতিঝিল শাখার এক কর্মকর্তা জানান, ‘সকাল থেকেই গ্রাহকের প্রচণ্ড ভিড়। গ্রাহকরা জমার চেয়ে বেশি উত্তোলন করছেন।’