চ্যানেল আই অনলাইন
হৃদয়ে বাংলাদেশ প্রবাসেও বাংলাদেশ

ইংল্যান্ড-উইন্ডিজ: ইতিহাস কী বলছে?

সাত দিনের মধ্যে চারটি ম্যাচ বৃষ্টির কারণে পরিত্যক্ত। উত্তেজনা ও রোমাঞ্চের জায়গায় বিশ্বকাপ হতাশায় ডোবাচ্ছে ক্রিকেটপ্রেমীদের। এমন অবস্থায় নতুন রোমাঞ্চ নিয়ে হাজির হচ্ছে ওয়েস্ট ইন্ডিজ ও ইংল্যান্ডের লড়াই। শুক্রবার সাউদাম্পটনে দেখা মিলবে পাওয়ার হিটিং বনাম পাওয়ার হিটিংয়ের লড়াই।

বিশ্বকাপের এবারের আসরে অন্যতম হট-ফেভারিট ইংল্যান্ড তিন ম্যাচের দুটিতে জিতে পয়েন্ট টেবিলের চার নম্বরে আছে। সমান ম্যাচে একটি করে জয়-পরাজয় ও এক ম্যাচ পরিত্যক্ত হওয়ায় তিন পয়েন্টে ছয় নম্বরে ওয়েস্ট ইন্ডিজ। সেমিফাইনালে উঠতে দুই দলের জন্যই ম্যাচটি সমান গুরুত্বপূর্ণ।

গতমাসে সাউদাম্পটনের এ মাঠে ইংল্যান্ড ও পাকিস্তান মিলে ৭৩৪ রান করেছিল। শুক্রবার তাই ওয়েস্ট ইন্ডিজ ও ইংল্যান্ডের ম্যাচে রানবন্যা দেখার জন্য অপেক্ষা করাই যায়।

দুই দলের মধ্যে মুখোমুখি লড়াইয়ে ইংল্যান্ড কিছুটা এগিয়ে। ১০১ বারের সাক্ষাতে ইংল্যান্ডের ৫১ জয়ের বিপরীতে ওয়েস্ট ইন্ডিজ জিতেছে ৪৪ ম্যাচে। অন্য ৬টি ম্যাচ পরিত্যক্ত হয়।

বিশ্বকাপের পরিসংখ্যানও কথা বলছে একবারও বিশ্বকাপ না জেতা ইংল্যান্ডের হয়েই। বিশ্বমঞ্চে ছয়বারের সাক্ষাতে ওয়েস্ট ইন্ডিজকে পাঁচবার হারিয়েছে ইংলিশরা। ১৯৭৯ সালে ব্যাক-টু-ব্যাক শিরোপা জেতার পথে ফাইনালে ইংল্যান্ডকে হারায় ওয়েস্ট ইন্ডিজ। এরপর বিশ্বকাপে আর ইংল্যান্ডকে হারাতে পারেনি ক্যারিবীয়রা। ১৯৮৭ বিশ্বকাপে দুবার এবং ১৯৯২, ২০০৭ ও ২০১১ বিশ্বকাপে ক্যারিবিয়ানদের পরাজয়ের স্বাদ দেয় ইংলিশরা।

আগের ম্যাচে বাংলাদেশকে হারিয়ে বেশ ফুরফুরে রয়েছে ইংল্যান্ড। অন্যদিকে সাউথ আফ্রিকা ম্যাচ পরিত্যক্ত হওয়ার আগে অস্ট্রেলিয়ার কাছে হারে ওয়েস্ট ইন্ডিজ। ফলে ইংল্যান্ডকে হারিয়ে ছন্দে ফিরতে মরিয়া হয়েই মাঠে নামবে দুবারের বিশ্বচ্যাম্পিয়নরা।

সাউদাম্পটনে পাওয়ার হিটাররাই পার্থক্য গড়ে দেবেন বলে মত বিশ্লেষকদের। ক্রিস গেইল ও এভিন লুইসের জবাবে ইংল্যান্ডের রয়েছে জেসন রয় ও জনি বেয়ারস্টো। আন্দ্রে রাসেলের জবাব দিতে প্রস্তুত জস বাটলার। শাই হোপ রয়েছেন একদিকে, ওদিকে আছেন জো রুট। জেসন হোল্ডারের জবাবে আছেন ইয়ন মরগান।

পাওয়ার হিটারদের মাঝে ম্যাচের ভাগ্য গড়ে দিতে পারেন বোলাররাও, বিশেষ করে পেসাররা। এক্ষেত্রে ইংল্যান্ডের ভরসা ওয়েস্ট ইন্ডিজ বংশোদ্ভূত জফরা আর্চার। অন্যদিকে ওয়েস্ট ইন্ডিজ আস্থা রাখছে শেলডন কটরেলের উপর।

বিশ্বকাপের অন্যতম দাবিদার ইংল্যান্ড শুক্রবারের ম্যাচে ফেভারিট হয়েই নামবে। তবে ওয়েস্ট ইন্ডিজ দলে এমন অনেক ব্যাটসম্যান আছেন যারা একাই প্রতিপক্ষের থেকে ম্যাচ বের করে আনতে পারেন। ইংল্যান্ডের শক্তিশালী ব্যাটিং লাইন গুঁড়িয়ে দেয়ার মতো বোলারও আছে ক্যারিবিয়ান স্কোয়াডে। সবমিলিয়ে সাউদাম্পটন উত্তেজনাকর ও রোমাঞ্চকর লড়াইয়ের পসরা সাজিয়ে অপেক্ষা করছে।

টিম নিউজ
ইংল্যান্ড: আগুনের জবাব আগুন দিয়েই দিতে হবে। তবে মার্ক উডের ইনজুরি ইংল্যান্ডকে কিছুটা হলেও ধাক্কা দিয়েছে। ইংল্যান্ডের পক্ষ থেকে যদিও জানানো হয়েছে ম্যাচের দিন ইনজুরি পর্যবেক্ষণ করে উডের ব্যাপারে সিদ্ধান্ত নেয়া হবে। গ্রুপপর্বের আরো পাঁচটি ম্যাচ বাকি থাকায় এই পেসারকে নিয়ে স্বাগতিকরা ঝুঁকি নেবে না বলেই মনে হচ্ছে। এতে কন্যা সন্তানের বাবা হওয়ায় বাংলাদেশ ম্যাচ মিস করা মঈন আলিকে একাদশে নিয়ে মাঠে নামতে পারে ইংল্যান্ড।

ওয়েস্ট ইন্ডিজ: আন্দ্রে রাসেল ইনজুরি কাটিয়ে এখনো পুরোপুরি ফিট হয়ে ওঠেননি। গুরুত্বপূর্ণ ম্যাচে তাকে পাওয়ার ব্যাপারে আশাবাদী ওয়েস্ট ইন্ডিজ। অধিনায়ক জেসন হোল্ডার জানিয়েছেন, ম্যাচের দিন সকালে রাসেলের ব্যাপারে সিদ্ধান্ত নেয়া হবে। রাসেল খেলতে না পারলে তার জায়গায় কেমার রোচ একাদশে ঢুকতে পারেন। আগের ম্যাচ খেলতে না পারলেও শুক্রবার ক্রিস গেইলের সঙ্গে ইনিংস ওপেন করতে দেখা যাবে এভিন লুইসকে।

ইংল্যান্ড একাদশ (সম্ভাব্য): জেসন রয়, জনি বেয়ারস্টো, ইয়ন মরগান, বেন স্টোকস, জস বাটলার, মঈন আলি, ক্রিস ওকস, আদিল রশিদ, লিয়াম প্লাঙ্কেট ও জফরা আর্চার।

ওয়েস্ট ইন্ডিজ একাদশ (সম্ভাব্য): ক্রিস গেইল, এভিন লুইস, শাই হোপ, নিকোলাস পুরান, সিমরন হেটমায়ার, জেসন হোল্ডার, আন্দ্রে রাসেল, কার্লোস ব্র্যাথওয়েট, অ্যাশলে নার্শ, শেলডন কটরেল ও ওশানে থমাস।