চ্যানেল আই অনলাইন
হৃদয়ে বাংলাদেশ প্রবাসেও বাংলাদেশ

‘আত্মবিশ্বাসই কঠিন মুহূর্তে শক্তি যোগায়’

পাকিস্তানের বিপক্ষে মাত্র ১ রানের জন্য ওয়ানডে ক্যারিয়ারের সপ্তম সেঞ্চুরি করতে পারেননি মুশফিকুর রহিম। সেই ইনিংস শেষ হয়েছে আক্ষেপ দিয়ে। কিন্তু মুশফিকের ৯৯ রানের ইনিংসে ভর করেই লড়াই করার মতো পুঁজি পায় বাংলাদেশ। পরে বোলারদের দাপটে পাকিস্তানকে হারিয়ে ফাইনাল নিশ্চিত করে টাইগাররা।

বিজ্ঞাপন

এই এশিয়া কাপেই শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে প্রথম ম্যাচে ২৫টি ব্যথানাশক ইনজেকশন নিয়ে মাঠে নেমে ভীষণ চাপের মধ্যে খেলেছেন ১৪৪ রানের অসাধারণ এক ইনিংস। চাপের মধ্যে মুশফিক কীভাবে এমনসব অসাধারণ ইনিংস খেলেন? প্রশ্নটা পাকিস্তানের সাবেক ব্যাটসম্যান ও ধারাভাষ্যকার রমিজ রাজার। জবাবে মুশফিক বলেছেন, নিজের উপর আত্মবিশ্বাসই তাকে কঠিন মুহূর্তে দলের হাল ধরতে শক্তি যোগায়।

বিজ্ঞাপন

সেঞ্চুরি না পাওয়ায় কিছুটা আফসোস হয়তো আছে, কিন্তু দিন শেষে দলের জয়ে তা অনেকটা চাপা পড়ে গেছে। নিজেদের ইনিংসের শুরুতেই ৪.২ ওভারে মাত্র ১২ রানে ৩ উইকেট হারিয়ে চাপে পড়ে যাওয়ার পর সেখান থেকে মোহম্মদ মিথুনকে সঙ্গে নিয়ে দলকে টেলে তোলেন মুশফিক। ১৪৪ রানের একটা গুরুত্বপূর্ণ পার্টনারশীপই বাংলাদেশ দলকে সম্মানজনক অবস্থানে নিয়ে যায়। ৯৯ রানে কট বিহাইন্ড হয়ে সাজঘরে ফেরেন মুশফিক।

ম্যাচ সেরার পুরস্কার নিতে গিয়ে মুশফিক বলেছেন, ‘নিজের ওপর বিশ্বাস রেখেছিলাম। সেটা খুবই গুরুত্বপূর্ণ ছিল। মিথুনও দুর্দান্ত ব্যাট করেছে। শুরুতেই কয়েকটি উইকেট পড়ে যাওয়ার পর তাকে বলেছিলাম, ক্রিজে আমাদের থাকতে হবে। কিভাবে যেকোনো পরিস্থিতিতে ব্যাট করা যায় তা নিয়ে অনুশীলন করেছি। ভালো প্রস্তুতি ছিল। সেটা আমার আত্মবিশ্বাস বাড়িয়েছে। আমি সঠিক সিদ্ধান্ত নিতে পেরেছি।’

এই নিয়ে তৃতীয়বার এশিয়া কাপের ফাইনালে উঠল বাংলাদেশ। প্রথম দুইবারের হতাশা কাটাতে শুক্রবার মাশরাফী বাহিনীর প্রতিপক্ষ সর্বাধিক ছয়বারের চ্যাম্পিয়ন ভারত।