চ্যানেল আই অনলাইন
হৃদয়ে বাংলাদেশ প্রবাসেও বাংলাদেশ

আগামী বাজেটে ইন্টারনেটে ভ্যাট কমানোর আশ্বাস

আগামী বাজেটে ইন্টারনেট ব্যবহারের ওপর বিদ্যমান ভ্যাট কমানোর আশ্বাস দিয়েছেন অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আবদুল মুহিত।

বিজ্ঞাপন

বৃহস্পতিবার রাজধানীর বঙ্গবন্ধু আন্তর্জাতিক সম্মেলন কেন্দ্রে চার দিনব্যাপী বেসিস সফট এক্সপো-২০১৮’র উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে তিনি এ কথা বলেন।

অনুষ্ঠানে ডাক, টেলিযোগাযোগ ও তথ্য-প্রযুক্তি মন্ত্রী মোস্তাফা জব্বার ইন্টারনেট ব্যবহারের ওপর বিদ্যমান ১৫ শতাংশ ভ্যাট প্রত্যাহারের আবেদন জানান।

পরে প্রধান অতিথির বক্তব্যে অর্থমন্ত্রী বলেন, আগামী অর্থবছরের বাজেটে ইন্টারনেট ব্যবহারের ওপর ভ্যাট কমানোর বিষয়ে বিবেচনা করা হবে।

চলতি মাস থেকেই আগামী বাজেটের কাজ শুরু হয়েছে জানিয়ে মুহিত বলেন: ‘এই বাজেটে দেশে উৎপাদিত পণ্য থেকে ২০ শতাংশ রাজস্ব আদায় করা জরুরি হয়ে পড়েছে। কারণ বাজেটের আকার বড় হলে সরকারি সেবা বৃদ্ধি পায়, মানব সম্পদের উন্নতি হয় ও ব্যক্তিগত সামর্থ্য বাড়ে। এজন্য সবাইকে সহযোগিতার আহ্বান জানান তিনি।’

এ সময় মোস্তাফা জব্বারকে উদ্দেশ্য করে আবুল মাল আবদুল মুহিত বলেন: ‘বিশ্বের উন্নত দেশের মতো আমাদের দেশে আইসিটি নিয়ে কাজ করার বিশেষ কোনো শহর নেই। যেখানে বসে যুবকরা বিনামূল্যে ওয়াইফাই ব্যবহার করবে। এ ধরনের একটি শহর তৈরি করা যায় কি না তা বিবেচনা করা দরকার।’

বিজ্ঞাপন

প্রযুক্তি ব্যবহারের শুরুর কথা বলতে গিয়ে অর্থমন্ত্রী বলেন: ‘অনেক বছর থেকেই বাংলাদেশ প্রযুক্তির বাইরে ছিল। ১৯৯৭ সালে তৎকালীন অর্থমন্ত্রী এস এম কিবরিয়া কম্পিউটার, ল্যাপটপ আমদানিতে শুল্ক ফ্রি করে দেয়ার পর থেকে শুরু হয় এসব পণ্যের ব্যবহার।’

মোস্তাফা জব্বার বলেন: ‘ইন্টারনেট ব্যবহারে থ্রী জি থেকে ফোর জি সেবায় উন্নীত করায় মোবাইল অপারেটরগুলো ১১০ টাকা পর্যন্ত সিম রিপ্লেসমেন্ট ফি নিচ্ছে। তারা বলছে, এটা এনবিআরের ভ্যাট। এ ফি প্রত্যাহার করা উচিত।’

দেশীয় শিল্প বিকাশের জন্য তিনি বলেন: ‘সরকারি অফিসের জন্য কম্পিউটার, ল্যাপটপ জাতীয় যেসব পণ্য আমদানির জন্য বিদেশিদের টেন্ডার দেয়া হয় তা না দিয়ে দেশীয় উৎপাদনকারীদের মাধ্যমে সরবরাহ করা দরকার।’

বাংলাদেশ অ্যাসোসিয়েশন অব সফটওয়্যার অ্যান্ড ইনফরমেশন সার্ভিসেস (বেসিস) আয়োজিত বেসিস সফট এক্সপো-২০১৮ চলবে রোববার পর্যন্ত।

ইন্টারনেট স্যাটেলাইট‘ডিজাইনিং দ্য ফিউচার’- এ স্লোগান নিয়ে শুরু হওয়া তথ্যপ্রযুক্তির বৃহত্তম প্রদর্শনী সফট এক্সপোতে এবার প্রায় ২০০ দেশি-বিদেশি তথ্য ও যোগাযোগপ্রযুক্তি প্রতিষ্ঠানের পণ্য এবং সেবা প্রদর্শন করছে।

অনুষ্ঠানে জানানো হয়, প্রদর্শনীতে এলাকাকে সফটওয়্যার সেবা প্রদর্শনী জোন, উদ্ভাবনী মোবাইল সেবা জোন, ডিজিটাল কমার্স জোন, আইটিইএস ও বিপিও জোনে ভাগ করা হয়েছে।

এছাড়া থাকছে তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি বিষয়ক সেমিনার, আইটি জব ফেয়ার, ইনোভেশন জোন।

অনুষ্ঠানে আরো বক্তব্য দেন, এক্সপোর আহ্বায়ক মোস্তাফিজুর রহমান। সমাপনী বক্তব্য দেন বেসিস সভাপতি সৈয়দ আলমাস কবির।