চ্যানেল আই অনলাইন
হৃদয়ে বাংলাদেশ প্রবাসেও বাংলাদেশ

আওয়ামী লীগকে দেয়া জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের চিঠিতে কী আছে

সংলাপে বসার আহ্বান জানিয়ে আওয়ামী লীগের সভাপতি, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা এবং সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদেরের কাছে নিজেদের ৭ দফা ও ১১ টি লক্ষ্য সম্বলিত চিঠি দিয়েছে জাতীয় ঐক্যফ্রন্ট।

বিজ্ঞাপন

রোববার সন্ধ্যায় জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের দুই সমন্বয়ক জগলুল হায়দার আফ্রিক এবং আ ফ ম শফিউল্লাহ ধানমন্ডির আওয়ামী লীগ কার্যালয়ে গিয়ে এই চিঠি পৌঁছে দিয়েছেন।

দুটি চিঠির একটি আওয়ামী লীগ সভাপতির জন্য, যেটিতে স্বাক্ষর করেছেন ঐক্যফ্রন্টের শীর্ষ নেতা ড. কামাল হোসেন। মোস্তফা মহসীন মন্টু স্বাক্ষরিত অপর চিঠিটি সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের এর জন্য বলে জানিয়েছেন জগলুল হায়দার আফ্রিক।

বিজ্ঞাপন

তিনি বলেন চিঠিতে আওয়ামী লীগের শীর্ষনেতার উদ্দেশে বলা হয়েছে, আপনি নিশ্চয়ই একমত হবেন যে, বাংলাদেশের জনগণ নির্বাচনকে একটি মহোৎসব মনে করে। ‘এক ব্যক্তির এক ভোট’ এর বিধান জনগণের জন্য বঙ্গবন্ধুই নিশ্চিত করেছেন-যা রক্ষা করা আমাদের সকলেরেই সাংবিধানিক দায়িত্ব।’

এতে আরো বলা হয়েছে, ইতিবাচক রাজনীতি একটা জাতিকে কিভাবে ঐক্যবদ্ধ করে জনগণের ন্যায়সঙ্গত অধিকারসমুহ আদায়ের মূল শক্তিতে পরিণত করে-তা বঙ্গবন্ধু আমাদের শিখিয়েছেন। নেতিবাচক রুগ্ন-রাজনীতি কি ভাবে আমাদের জাতিকে বিভক্ত ও মহাসংকটের মধ্যে ফেলে দিয়েছে, তাও আমাদের অজানা নয়। এ সংকট থেকে উত্তরণ ঘটানো আমাদের জাতীয় চ্যালেঞ্জ। এ চ্যালেঞ্জ মোকাবেলায় জাতীয় ঐক্যফ্রন্ট ৭ দফা দাবি ১১ দফা লক্ষ্য ঘোষণা।

চিঠির বিষয়ে জগলুল হায়দার আফ্রিক বলেন, আমরা আওয়ামী লীগের দপ্তর সম্পাদকের কাছে দুটি চিঠি হস্তান্তর করেছি৷ তিনি গ্রহণ করেছেন এবং আওয়ামী লীগের সভাপতি প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা এবং সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের এর কাছে পৌঁছে দেবেন বলেছেন।

চিঠি পাওয়ার কথা স্বীকার করে আওয়ামী লীগের দপ্তর সম্পাদক আব্দুস সোবহান গোলাপ বলেন, জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের দু’জন প্রতিনিধি এসেছিলেন এবং আমাদের কাছে সাধারণ সম্পাদক ও সভাপতির জন্য দুটি চিঠি দিয়ে গেছেন৷ চিঠিতে কি আছে বুঝতে পারিনি। আমি খুলে দেখিনি। সাধারণ সম্পাদক এসে তা দেখবেন। আমি শুধু রিসিভ করেছি। আমরা পড়ে আগামীকাল এ বিষয়ে আপনাদেরকে জানাতে পারবো৷