চ্যানেল আই অনলাইন
হৃদয়ে বাংলাদেশ প্রবাসেও বাংলাদেশ

অপরাধীদের দৌড়ের ওপর রেখেছি: ডিএমপি কমিশনার

রোজায় রাজধানীতে বলার মতো কোনো ছিনতাই ও চাঁদাবাজির ঘটনা ঘটেনি জানিয়ে ঢাকা মহানগর পুলিশ (ডিএমপি) কমিশনার মো. আছাদুজ্জামান মিয়া বলেছেন: অপরাধীদের আমরা দৌড়ের ওপর রেখেছি। আমাদের কর্মকাণ্ডের জন্য অপরাধীরা নিয়ন্ত্রণে ও দমনে আছে।

বিজ্ঞাপন

শুক্রবার রাজধানীর কমলাপুর রেলস্টেশন প্রাঙ্গণে ৪০০ পথশিশুর মাঝে ঈদবস্ত্র বিতরণকালে ডিএমপি কমিশনার এসব কথা বলেন।

অদম্য বাংলাদেশ ফাউন্ডেশনের মজার ইশকুলের উদ্যোগে ধানমন্ডি, শাহবাগ, সদরঘাট ও কমলাপুর এলাকার পথ শিশুদের মাঝে এই ঈদবস্ত্র বিতরণ করা হয়।

তিনি বলেন: রোজা শুরুর আগে থেকেই গোয়েন্দা সদস্যরা অপরাধীদের নজরদারি করেছে। যার কারণে অপরাধীরা কোণঠাসা হয়ে পড়েছে। অভিযানের ফলে অনেকে গ্রেপ্তার হয়ে কারাগারে রয়েছে। তার মানে ছিনতাইকারী বা অপরাধীরা নেই তা কিন্তু নয়, তাদেরকে আমরা ধাওয়ার ওপরে রেখেছি, দৌড়ের ওপর রেখেছি। আমাদের কর্মকাণ্ডের জন্য অপরাধীরা নিয়ন্ত্রণে ও দমনে আছে।

বিজ্ঞাপন

ঈদযাত্রা নিয়ে কমিশনার বলেন: ঘরমুখী মানুষ যাতে নির্বিঘ্নে বাড়ি যেতে পারে, আবার ঈদ উদযাপন শেষে নিরাপদে ঢাকায় ফিরতে পারে সেজন্য নানামুখি কাজ করা হচ্ছে। বাস টার্মিনাল ও রেলওয়ে স্টেশনে যাতে কোনো ঝামেলা না হয় সেজন্য পুলিশসহ গোয়েন্দারা কাজ করছে। ঈদকে শান্তিপূর্ণ ও আনন্দঘন পরিবেশে উদযাপন করার জন্য ডিএমপির পক্ষ থেকে সব ধরনের ব্যবস্থা রাখা হয়েছে।

নিরাপত্তা প্রসঙ্গে তিনি বলেন: পুলিশ একা অপরাধীদের দমন করতে পারবে না, সুশাসন আনতে পারবে না, জনগনের নিরাপত্তা ও শৃঙ্খলা রক্ষা করতে পারবে না। যখন সাংবাদিক, পেশাজীবী, জনপ্রতিনিধি সবাই একসাথে কাজ করতে পারব তখন সবকিছুই করা সম্ভব। অপরাধের বিরুদ্ধে, অন্যায়ের বিরুদ্ধে সবাই যখন একযোগে লড়তে পারব ঠিক তখনই আমরা সফল হতে পারব।

২০১৩ সালের ১০ জানুয়ারি থেকে তরুণদের সমন্বয়ে পথশিশুদের জন্য মজার ইশকুল সংগঠনটি পরিচালিত হচ্ছে

আছাদুজ্জামান মিয়া বলেন: আমরা পুলিশের লোক সারাদিন ডিউটি করি। রমজানে ট্রাফিক নিয়ন্ত্রণে ঢাকা শহরে দুই হাজার পুলিশ সদস্য রাস্তায় দাঁড়িয়ে সারাদিন ডিউটি করে। এমনকি তারা প্রিয়জনদের সাথে ইফতার করতে পারে না। তারা রাস্তায় দাড়িয়ে একটা খেঁজুর ও এক গ্লাস পানি পান করে ইফতার করছে। এরপরেও মুখে হাসি দিয়ে নাগরিকদের সুবিধার স্বার্থে তারা দায়িত্ব পালন করছে। সারাদিন সারারাত আমরা দায়িত্ব পালন করি। চেকপোস্ট-তল্লাশি, ব্লক রেইড করছি যাতে করে সন্ত্রাসী বা দুর্বৃত্তরা শান্তিকামী মানুষকে যেন কষ্ট দিতে না পারে।

এসময় মজার ইশকুলের উদ্যোক্তা আরিয়ান আরিফসহ ডিএমপি’র ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন।