চ্যানেল আই অনলাইন
হৃদয়ে বাংলাদেশ প্রবাসেও বাংলাদেশ

অধিনায়কের চাওয়াতেই দলে সাব্বির

কিছুই জানে না শৃঙ্খলা কমিটি!

হাতের কাগজে চোখ রেখে এক এক করে ১৫ সদস্যের ওয়ানডে দল ঘোষণা করলেন মিনহাজুল আবেদিন নান্নু। পাশেই বসা হাবিবুল বাশার সুমন। নিউজিল্যান্ড সফরের দলে আছে সাব্বির রহমানের নাম। ভুলে ‘সাব্বির’ নামটা চলে এল না তো! সে সন্দেহ থেকে আরেকবার দলটা পড়ে শোনানোর অনুরোধ করা হল প্রধান নির্বাচককে।

পরে সাব্বিরকে দলে রাখার ব্যাখ্যায় মিনহাজুল জানালেন, তার শাস্তির মেয়াদ এক মাস কমেছে এবং অধিনায়ক মাশরাফী বিন মোর্ত্তজার জোরাল দাবির মুখেই এ সিদ্ধান্ত নিয়েছেন তারা।

বিজ্ঞাপন

মিনহাজুল জানান, শাস্তি কমানোর বিষয়টি শৃঙ্খলা কমিটির এবং সেটি কমানো হয়েছে আগেই। কেবল মিডিয়াকে জানানো হয়নি। যদিও শৃঙ্খলা কমিটির ভাইস-চেয়ারম্যান শেখ সোহেল চ্যানেল আই অনলাইনকে জানান, সাব্বিরের শাস্তি কমানো হয়নি। দলের স্বার্থে যদি সাব্বিরকে দরকার হয় সেটি কমানোর ক্ষমতা রাখেন একমাত্র বিসিবি সভাপতি নাজমুল হাসান পাপন।

শাস্তি যেভাবেই কমুক। শাস্তির মেয়াদ শেষ হওয়ার আগেই জাতীয় দলের স্কোয়াডে উঠে গেছে সাব্বিরের নাম। অনেকটা নাটকীয়ভাবেই!

বিজ্ঞাপন

শৃঙ্খলাভঙ্গের কারণে আন্তর্জাতিক ক্রিকেট থেকে সাময়িক নিষিদ্ধ হওয়া সাব্বিরের ৬ মাস শাস্তির যে মেয়াদ, সেটি শেষ হওয়ার কথা ছিল আগামী ১ মার্চ। যদি এক মাস কমানো হয় তাতেও ১ ফেব্রুয়ারি পর্যন্ত নিষিদ্ধ এ ক্রিকেটার। কিন্তু তার আগেই বিবেচনায় সাব্বির। বারবার শৃঙ্খলাভঙ্গের কারণে সমালোচিত হওয়া এ ব্যাটসম্যান কতটা শুধরেছেন নিজেকে, সেটির ব্যাখ্যাও দিতে পারেননি কেউ।

৫ মাস ধরে জাতীয় দলের বাইরে থাকা সাব্বির বিপিএলে কেবল একটি ম্যাচেই জ্বলে উঠেছেন। তাতেই নির্বাচক-অধিনায়কের আস্থা ফিরে পেয়েছেন।

‘এটা সম্পূর্ণ আমাদের অধিনায়কের পছন্দের। ও খুব জোরালভাবে আমাদেরকে দাবি জানিয়েছে এবং আমরা দুজনই তার পক্ষে রাজী হয়েছি। ওরা এমন একজনকে চাচ্ছে যারা লোয়ারমিডল অর্ডারে ফাস্ট বোলারকে সামলাতে পারবে। বিশ্বকাপ পরিকল্পনা করে নিউজিল্যান্ডে ওকে নেয়া হচ্ছে। দেখা যাক, অধিনায়ক যথেষ্ট আত্মবিশ্বাসী তার ব্যাপারে। আমিও আশাবাদী সে ফিরে আসবে।’ সংবাদ সম্মেলনে বাংলাদেশের সাবেক অধিনায়ক মিনহাজুল বললেন এভাবেই।

দল গঠনের প্রক্রিয়া প্রসঙ্গে মিনহাজুল বলেছেন, ‘এটা (সাব্বিরের শাস্তি কমেছে) আমরা টিম দেয়ার আগেই জেনেছি। আমাদের সিলেকশনের পর ছাড়পত্র নিতে হয়। সভাপতির অনুমোদন লাগে। আমাদের ক্লিয়ারেন্স (সাব্বির খেলতে পারবে) না দিলে তো আমরা নিতে পারি না।’